Date : 2021-04-21

তামিলনাড়ুতে হল প্রথম আইনসিদ্ধ রূপান্তরকামী বিবাহ

ওয়েব ডেস্ক: সামাজিক কটাক্ষের মোকাবিলা করতে হয়েছিল ওদের। আত্মীয়-স্বজনের ভবিষ্যৎ বাণী শুনতে হয়েছিল এইভাবে বিয়ে করে নাকি তারা সুখী হতে পারবে না। তার থেকেও বড় প্রশ্ন ছিল সুখী পরিবারের সন্তানের মুখ কে দেখাবে? শুধু সামাজিক নয় এ তো প্রাকৃতিক নিয়মেরও তোয়াক্কা করেনি। অরুণ ও সৃজার সামনে প্রশ্নবাণ ছুঁড়ে দিয়েছিল সমাজ । তামিলনাড়ুর এই যুগল একে অপরকে ভালোবেসে ছিল। তবে বাধা কোথায়! হতাশা আর বিদ্রুপে কারণ একটাই, সৃজা একজন সাধারণ মেয়ে নয়। সে আসলে একজন রুপান্তকামী নারী।

স্কুল জীবন থেকেই দুজনে একে অপরকে চলার পথের সঙ্গী করেছিল। একে অপরকে ভালোবেসে ছিল ওরা। মেয়ে হওয়ার ইচ্ছে প্রকাশ করেও সবসময় সৃজা পাশে পেয়েছিল অরুণকে। গতবছর তারা বিয়ে করার সিদ্ধান্ত নিলেও সামাজিক বাধার সম্মুখীন হতে হয় তাদের। যে মন্দিরে তারা বিয়ে করতে যায় সেখানেও আপত্তিকর পরিস্থিতির শিকার হন তারা। একজন পুরুষ ও রূপান্তরকামীর বিবাহকে এখনও মেনে নিতে পারে না সমাজ। তবে থেমে থাকেনি তারা।

বন্ধুদের সাহায্যে শেষমেশ সাতপাকে বাঁধা পড়ল ওই যুগল।প্রথমে আইনিভাবে বিয়ের কোনো সংশাপত্রও দিতে চায়নি অফিস। তবে এই বছর ৩৭৭ আইনটি পাস হওয়ার পর তাদের বিবাহও বৈধতা পেয়েছে।মিলে গেছে ভালোবাসার চার হাত। তামিলনাড়ুর প্রথম আইনত ভাবে স্বীকৃতি পেল অরুণ কুমার ও রুপান্তরকামী সৃজার বিয়ে। আপাতত খুব খুশি দুজনেই। বেশ জমিয়ে ঘর করছে দুটিতে।