Date : 2019-07-21

৪২ ডিগ্রিতে পুড়ছে সুমেরু সংলগ্ন আলাস্কা! বিপন্ন ভারসাম্য…

ওয়েব ডেস্ক: গ্লোবাল ওয়ার্মিং-এর প্রভাব এখন পুরনো বিষয়। মেরু সংলগ্ন দেশগুলিতে বিশ্ব উষ্ণায়ন এখন রীতিমতো খেল দেখাতে শুরু করেছে। মেরু অঞ্চলের বরফের স্তর ক্রমশ ভাঙতে শুরু করে দিয়েছে। খাবারের অভাবে মেরু অঞ্চল থেকে শ্বেত ভল্লুক লোকালয়ে আসতে শুরু করেছে। কপালে চিন্তার ভাঁজ ফেলে দেওয়ার মতো খবর এলো এবার উত্তর আমেরিকার আলাস্কা থেকে। সারা বছর তুষারাবৃত এই অঞ্চলে চলছে তীব্র তাপপ্রবাহ।

ব্যাপক হারে গলতে শুরু করেছে বরফ। আলাস্কার মধ্যাঞ্চলে শনিবারের তাপমাত্রা ছিল ৪২ ডিগ্রি সেলসিয়াস বা ১০০ ডিগ্রি ফারেনাইট। আমেরিকার ন্যাশানাল ওয়েদার সার্ভিসের রিপোর্ট অনুযায়ী আলাস্কার দিনের তাপমাত্রা সাধারনত ৫থেকে৭ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে থাকে, কিন্তু শনিবার সেখানে তাপমাত্রা ছিল ২৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস। সুমেরু মহাসাগর সংলগ্ন উপকূলবর্তী অঞ্চলের তাপমাত্রা ছিল ৩২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। ভূ-বিদদের মতে ইতিহাসের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছুঁয়েছে আলাস্কা।

বরফাবৃত অঞ্চলে তীব্র গরমের কারণে পশু,পাখি, মানুষ ইতিমধ্যে অসুস্থ হয়ে পড়তে শুরু করেছে। ভূ-বিদের মতে আমেরিকার মূল ভূখন্ডের তপমাত্রার থেকেও ৪.৭ ডিগ্রি হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে আলাস্কার তাপমাত্রা। সুমেরু অঞ্চলে বহু পাখির ও পাফিনের মৃত্যুর কারণে ওই অঞ্চলে পশুদের খাওয়ারের উৎস কমে আসতে শুরু করেছে। এই কারণে অনেকেই সুমেরু অঞ্চলের তাপমাত্রার বৃদ্ধিকেই দায়ী করছেন সকলে।

অন্য বছরের এ সময়ে আলাস্কায় গড় তাপমাত্রা থাকে সাধারণত ১৬-১৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। অন্যান্য বছর এই সময় আলস্কার মানুষ টুপি,সোয়েটার পরে বেরলেও এখন তাদের রোদ্দুর থেকে বাঁচতে রীতিমতো সান্সক্রিম ব্যবহার করতে হচ্ছে।

ভারী বরফের স্তরে বদলে বেরিং সমুদ্রে এখন ভেসে বেরাচ্ছে পাতলা বরফস্তর। এরফলে বেরিং সমুদ্রের জল ফুলে ফেপেও উঠেছে। প্রাণীবিদদের মতে এই সময় সিল মাছের প্রজনন ঋতু।

সিল সন্তান জন্ম দেয় এই ভেসে থাকা বরফের স্তরের মধ্যেই। বরফের স্তর পাতলা হয়ে যাওয়ায় তাদের প্রজননক্রিয়া ব্যাহত হতে পারে বলে মত বিশেষজ্ঞদের। এবছর শীতের সময় থেকেই আলাস্কার তাপমাত্রার ব্যপক পরিবর্তন দেখা গেছে।

এই পরিবর্তনের কারণে উত্তর আমেরিকার স্বাধীনতা দিবস উজ্জাপনে সরকারি তরফে আতসবাজী প্রদর্শন নিষিদ্ধ করা হয়েছিল। স্থগিত হয়ে গিয়েছে স্লেডটানার বাৎসরিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতাও। তাপমাত্রার এই ব্যাপক বৃদ্ধির ফলে এই দেশে ক্ষতিকর প্রভাব পড়তে চলেছে বলে মত আবহাওয়াবিদদের।