Date : 2019-10-24

১০ কোটি টাকা থাকলে তবেই বিয়ে করবে এই পাত্র, আজব বিজ্ঞাপনে তোলপাড়…..

ওয়েব ডেস্ক: খবরের কাগজে বিয়ের বিজ্ঞাপন দিয়ে পাত্র-পত্রীর সন্ধান করার কথা নতুন কিছু নয়। আর সেই বিজ্ঞাপনের তালিকায় হাস্যকর চাহিদা, বেশি বয়সে বিয়ে, যৌন ক্ষমতায় অক্ষম পাত্রের পাত্রী সন্ধানের মতো আশ্চর্য বিজ্ঞাপন চোখে পড়ে। কিন্তু এইসব বিজ্ঞাপনকে ছাপিয়ে গেল এই বিজ্ঞাপনটি। বিজ্ঞপনে লেখা আছে “শিলিগুড়িতে উচ্চবিত্ত ছোট পরিবারের পাত্রীর ১০ কোটি টাকার সম্পত্তি থাকতে হবে। প্রকৃত বিয়ে করতে ইচ্ছুক এমন পাত্রীই যোগযোগ করবেন।”

মেয়ের ১০ কোটি টাকা থাকলে তবেই বিয়ে করবেন পাত্র এমন বিজ্ঞাপন দেখে কন্যাপণের অভিযোগ তুলে রীতিমতো আলোড়ন পড়ে গেছে নারীবাদীদের মধ্যে।

পাত্র উত্তরবঙ্গের একটি প্রাথমিক বিদ্যলয়ের শিক্ষক। পাত্রের বয়স ৪২। উচ্চতা ৫ফুট ৭ ইঞ্চি। সম্প্রতি বাংলা দৈনিকে এরকম বিজ্ঞাপন দিয়েই তিনি পাত্রী খুঁজতে শুরু করেছেন।

এহেন বিজ্ঞাপন দেওয়ায় মনবিদদের মত, এভাবে কন্যাপণ নিয়ে বিকৃতরুচির পরিচয় দিয়ে ওই ব্যক্তি সমগ্র নারীজাতিকেই অপমান করেছে। মনবিদদের একাংশের মত, কন্যাপণ নিয়ে তিনি সরাসরি না বলে ঘুরিয়ে প্রস্তাব রেখেছেন। আধুনিক যুগে একজন শিক্ষক হয়ে এই ধরনের দাবি অত্যন্ত নিন্দনীয়। উল্লেখ্য কন্যাপণ নেওয়া এবং দেওয়া দুই আমাদের দেশে দণ্ডনীয় অপরাধ।

তাই এই ধরনের অপরাধমুলক বিষয় সরাসরি সংবাদপত্রে বিজ্ঞাপনের আকারে প্রকাশ করে অপরাধমুলক আচরণ করেছেন। অনেক নারীবাদী প্রশ্ন তুলেছেন, রসোনালিটিতে প্রবলেম আছে। তিনি চাকরি আদৌ করেন কি না সন্দেহ! ওই পাত্রকে কেউই বিয়ে করতে রাজি হবেন না আশা করি।

সংবাদমাধ্যমের তরফে বিজ্ঞাপনে দেওয়া ফোন নম্বরে একাধিকবার ফোন করা হলেও কেউ ফোন তোলেননি। এমনকি বিজ্ঞাপন প্রকাশিত হওয়ার পর থেকে তার ফোন সুইচ অফ পাওয়া গেছে। একজন শিক্ষকের এইধরনের রুচি নিয়ে ইতিমধ্যে সোশ্যাল মিডিয়ায় বিদ্রুপের শিকার হতে শুরু করেছেন পাত্র