Date : 2019-10-24

ডাক্তার দিয়েছে জবাব, হঠাৎই বডি উঠল জেগে…

ওয়েব ডেস্ক: বাড়িতে একটা থমথমে পরিবেশ। বাড়িতে কেউ হঠাৎ মারা গেলে এরকম হওয়াটাই স্বাভাবিক।

হসপিটাল থেকে আনা হয়েছে বডি। বছর ২০র ছেলেটি এইভাবে যে অকালে চলে যাবে কেউ ভাবতেও পারেনি।

কিন্তু নিয়তিকে তো কেউ আটকাতে পারেন না। মর্গ থেকে আনা হয়েছে দেহ, আত্মীয়-স্বজনরা বসে কান্না-কাটি করছে।

হঠাৎই ঘটল একটি অবাক করা ঘটনা। নড়ে উঠল ফুরকানের দেহ। চোখের জল মুছে ততক্ষণে সবাই নড়চড়ে বসেছে। এক দৃষ্টে তাকিয়ে দেহটির দিকে। দুচোখে ভরা আশা। যদি বেঁচে ওঠে ফুরকান। হ্যাঁ, প্রিয়জনদের এই আশা পূরণ হল।

জুনের ২১ তারিখ একটি অ্যাক্সিডেন্টের দরুন লক্ষনৌর একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয় বছর ২০র ফুরকানকে। পরে অবস্থা খুবই খারাপ হয়ে যাওয়ায় তাকে ভেন্টিলেশনেও রাখা হয়। যাতে খরচ হয় ৭ লক্ষ্য টাকা। ফুরকানের পরিবারের আর টাকা দেওয়ার সামর্থ না থাকায় তারা সেটা হাসপাতাল কতৃপক্ষকে জানায়। তবে কিছুদিন পর ডাক্তার জবাব দিয়ে দেন। কিছুদিন পর তার দেহ আনা হয় বাড়িতে।

কিন্তু হঠাৎই সে নড়াচড়া করতে থাকে। ও অল্প অল্প নিঃশ্বাস নিতেও দেখা যায়। আর দেরী না করে তক্ষুনি ডাক্তার ডাকা হয়। অক্সিজেন মাস্ক সমেতই ভর্তি করা হয় লোকাল হাসপাতালে। এখন ফুরকান চিকিৎসাধিন। ডাক্তার জানিয়েছেন, তিনি ব্রেন ডেড নয়। পালসও আছে। তবে ব্লাড প্রেসার এদিক ওদিক করার জন্য ভেন্টিলেশনে রাখা হয়েছে তাকে।