Date : 2021-02-25

শহরের সব বৃদ্ধরা এবার পুলিশের সিসি ক্যামেরার আওতায়…

কলকাতা: শহরে প্রবীন নাগরিকদের সুরক্ষা বাড়াতে এবার আরও বড় উদ্যোগ নিতে চলেছে কলকাতা পুলিশ। শহরের প্রত্যেক বৃদ্ধ দম্পতির বাড়ির সামনে সিসিটিভি ক্যামেরা বসানোর কথা আলোচনা করা হচ্ছে পুলিশের তরফে। পুলিশ কমিশনার অনুজ শর্মা জানান, সম্প্রতিকাল শহরে বৃদ্ধ দম্পতি নিজেদের বাড়িতেই নিরাপত্তার অভাব বোধ করছেন। বিশেষ করে তাদের খুন করে সম্পত্তি লুঠের প্রবনতাও বাড়ছে। তাই একা বসবাসকারী বৃদ্ধ দম্পতির বাড়ি আনতে হবে সিসিটিভি ক্যামেরার আওতায় এমনটাই জানান পুলিশ কমিশনার।

স্থানীয় থানা থেকে ওই সিসিটিভি গুলির উপর নজরদারী রাখতে হবে। বৃহস্পতিবার তাঁর নির্দেশে নিউ আলিপুরের এক ওসি নেতাজি নগর এলাকার এক বৃদ্ধার বাড়ি যান, এবং সেখানে ওসির তত্ত্ববধানে লাগিয়ে দিয়ে আসা হয় গুরুত্বপূর্ণ কিছু ফোন নম্বর। যাতে আপৎকালীন সময় বৃদ্ধ দম্পতি স্থানীয় থানার সঙ্গে সরাসরি যোগাযোগ করতে পারেন। প্রসঙ্গত, সোমবার রাতে নেতাজিনগরের বাসিন্দা বৃদ্ধ দম্পতি।তার কিছুদিন আগে বেহালায় বৃদ্ধা খুন হয়েছেন।

আরও পড়ুন : নেতাজিনগরে রহস্যজনক মৃত্যু নিঃসন্তান বৃদ্ধ দম্পতির

দক্ষিণ ২৪ পরগনার নরেন্দ্রপুরেও নৃশংসভাবে খুন করা হয় বৃদ্ধ দম্পতিকে। পরপর এই ঘটনার জেরে এবার এসওপি তৈরি করেছে লালবাজার। বুধবার লালবাজারে দক্ষিণ কলকাতার প্রত্যেকটি থানার ওসিদের নিয়ে বৈঠক করেন পুলিশ কমিশনার অনুজ শর্মা। ইতিমধ্যেই কলকাতা পুলিশের তরফে শহরের বৃদ্ধ-বৃদ্ধাদের সুরক্ষার জন্য “প্রণাম” প্রকল্প রয়েছে। প্রবীনদের জন্য রয়েছে বিশেষ হেল্প লাইন নম্বর- ৯৮৩০০৮৮৮৮৪। এই নম্বরে ফোন করলেই উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দিয়েছে প্রশাসনিক কর্তৃপক্ষ। এই ব্যবস্থাটিকে ‘SOP’ নাম দেওয়া হয়েছে পুলিশের তরফে। এই ব্যবস্থায় কতগুলি বিশেষ নিয়মের কথা জানানো হয়েছে লাল বাজারের তরফে।

বৃদ্ধ দম্পতিদের বাড়িতে আনাগোনা থাকে যাদের, যেমন মিস্ত্রী, কাজের লোক, দুধওয়ালা এবং অন্যান্যদের সম্পর্কে সমস্ত তথ্য জমা দিতে হবে লোকাল থানায়।

প্রত্যেক থানার ওসি তাঁর পুলিশকর্মীদের নিয়ে বিট মিটিং করতে হবে৷ একেকটি থানায় আট থেকে দশটি বিট রয়েছে। প্রত্যেক বিটের কনস্টেবলরা সপ্তাহে একবার করে বৃদ্ধ-বৃদ্ধাদের খবর নেবেন। ১৫ দিন অন্তর তাঁদের বাড়িতে গিয়ে কথা বলবেন।

সিকিউরিটি অডিট করা হবে। বাড়িতে লোহার গেট-গ্রিল, ডোর বেল, বেয়ে ওঠার মতো দেওয়াল, বিতর্কিত ভাড়াটে, সিসিটিভি কী অবস্থায় আছে, খতিয়ে দেখে ফাইল তৈরি করা হবে।

প্রত্যেক বৃদ্ধ-বৃদ্ধার বাড়িতে অ্যালার্ম বেল থাকবে। কোনও সমস্যা দেখলেই তিনি সেই অ্যালার্ম বাজিয়ে বাইরের লোককেও সতর্ক করতে পারবেন।

লালবাজারের তরফে মনে করা হচ্ছে এই নিয়মে চললে শহরে বৃদ্ধদের নিরাপত্তা দিতে সক্ষম হবে পুলিশ।