Date : 2019-09-19

বিজেপিতে সম্মান নেই, শিঘ্রই হয়তো সিদ্ধান্ত নিতে পারেন শোভন-বৈশাখী….

কলকাতা : মোটেও ভালো কাটেনি তাদের দিনগুলি। দল পাল্টে বিজেপিতে যাওয়ার পরেও একের পর এক বিতর্কে জড়িয়ে পড়েছেন দুজনেই। শোভন চট্টোপাধ্যায় ও বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায় কি এবার তবে বিজেপি থেকেও বেরিয়ে আসতে পারেন? প্রসঙ্গত, শোভন চট্টোপাধ্যায় ও বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায় বিজেপিতে যোগদানের পরের মুহুর্তেই তৃণমূল বিধায়ক দেবশ্রী রায়ের বিজেপিতে যোগদান ঘিরে জল্পনা সৃষ্টি হয়।

তার উপর বিজেপির রাজ্য নেতা জয় বন্দ্যোপাধ্যায়ের মন্তব্য ঘিরে শুরু হয় জল্পনা। এদিন সংবাদ মাধ্যমের একটি সাক্ষাৎকারে বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায় বিজেপি নেতা জয় বন্দ্যোপাধ্যায়র তীর্যক উক্তিতে বিরক্তি প্রকাশ করেন।

এমনকি বিজেপিতে তিনি থাকবেন কিনা তা নিয়ে খুব শীঘ্রই তিনি ও শোভন চট্টোপাধ্যায় সিদ্ধান্ত নেবেন বলে জানিয়ে দিয়েছেন। রবিবার একটি সাংবাদিক সম্মেলনে বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়কে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, “বাংলা পরকীয়া নয়, প্রেমের স্থান।

তাই এখানে দলের ভাবমূর্তি ঠিক রাখতে দলে দেবশ্রী রায়কে স্থান দেওয়া উচিত।” বর্ধমানের একটি সভায় করা জয়ের এই মন্তব্যের পাল্টা বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘‘অত্যন্ত কুরুচিপূর্ণ, নিম্নরুচির মানুষ কী বলেছেন, তা নিয়ে কথা বলতেই আমার রুচিতে লাগছে। দিলীপদা, অরবিন্দ মেননজিকে জানিয়েছি বিষয়টি। রাজনৈতিক মঞ্চে রাজনৈতিক কথা বলুন। উনি যেভাবে নিজের স্ত্রীর সম্পর্কে অবমাননাকর কথা বলেন, তাতে বোঝা যায় উনি মহিলাদের সম্পর্কে কী ভাবেন’’।

এদিন শোভন চট্টোপাধ্যায় স্পষ্ট করে দেন, দেবশ্রী রায় বিজেপিতে যোগদান করলে তিনি তা কখনওই মেনে নেবেন না। বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায় এই প্রসঙ্গে বলেন, বিজেপিতে যোগ দেওয়ার পর থেকেই একের পর এক কটাক্ষ আসছে। খোদ বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষও কুরুচিকর মন্তব্য করেছেন। তবে তারা ফের তৃণমূল কংগ্রেসে ফিরে যাবেন কিনা সেই নিয়ে কোন মন্তব্য করেননি।