Date : 2019-12-15

খাদ্যতালিকায় রাখুন কিছু খাবার, ডেঙ্গির আগেই কাজ করবে ওষুধের মতো…

ওয়েব ডেস্ক:- শীত পড়তে এখনও অনেক সময় বাকি, তবুও শহরে এসে পড়েছে হিমেল আবেশ। কার্তিকের শুরুতেই ডেঙ্গির থাবায় কুপকাত শহর থেকে জেলা। রেকর্ড হারে বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। এক কামড়ের সাজা, কেড়ে নিচ্ছে তরতাজা প্রাণ। পুরসভা, প্রশাসনের দিকে আঙুল তুললেও শেষ পর্যন্ত নিজের ঘরের আনাচ-কানাচ পরিচ্ছন্ন রাখার দায়িত্ব নিজেরই। টবের জল, চৌবাচ্চায় জমা জলে ডিম পাড়ে ডেঙ্গির মশা। তাই আগে থাকতেই ব্যবস্থা নিন। তবে মশার সঙ্গে ফাইট করার ক্ষমতা তৈরি করতে গেলে অবশ্যই বদল করতে হবে আপনার খাদ্যাভ্যাসের। ডেঙ্গির প্রতিরোধ তৈরি করতে অবশ্যই এই খাবারগুলো রোজের খাদ্যতালিকায় যুক্ত করে ফেলুন। ভাইরাস, ব্যক্টেরিয়ার প্রভাব অনেকটাই কম হয় এই খাবারগুলির কারণে। জেনে নিন কি খাবেন…

১) লেবু জাতীয় খাবার:- লেবু সাধারণত টক স্বাদের হয়। লেবুতে থাকে ভিটামিন সি। শ্বেত রক্তকণিকা তৈরি করতে সাহায্য করে ভিটামিন সি। শ্বেত রক্তকণিকা শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে তোলে। এছাড়া লেবু জাতীয় খাবারে থাকে প্রচুর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। যা অনায়াসেই রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে তোলে, ফলে রক্তে কোন সমস্যাই বড় আকার ধারণ করতে পারে না।

২)রসুন:- রসুনে আছে প্রচুর পরিমাণে সালফার। এই কারণেই রসুনে কড়া ঝাঁঝালো গন্ধ থাকে। সালফার স্বাস্থ্যের সুরক্ষার জন্য খুবই ভালো। প্রতিদিন একটি কোয়া বিশিষ্ট রসুন খেলে আপনার শরীরে হতে পারে ভয়ানক সব রোগের প্রতিকার। অ্যান্টিব্যাকটিরিয়াল, অ্যান্টিফাঙ্গাল কোয়ালিটি আছে রসুনের। তাই ডেঙ্গি প্রতিরোধে রসুন কিন্তু বেশ কার্যকরী।

৩)দই:- দইয়ের মধ্য আছে প্রচুর পরিমানে প্রবায়োটিক। দই দিনের যে কোন সময়ই খেতে পারেন। ডেঙ্গি প্রতিরোধে যেটুকু ক্ষমতা দরকার, প্রতিদিন দই খেলেই তা তৈরি হতে পারে।

৪)পালংশাক:- পালংশাকের মধ্যে আছে প্রচুর পরিমান বিটা ক্যারোটিন, অ্যান্টিঅক্সিটডেন্ট ও ভিটামিন সি। এই শাক শুধু মাত্র শীতকালেই সহজলভ্য। কচি পালংশাক খাদ্যতালিকায় রাখলে ডেঙ্গি থেকে নিশ্চয়ই উদ্ধার পেতে পারেন। এতে থাকা ফাইবার আপনার ওজন কমাতেও সাহায্য করে। ডেঙ্গি প্রতিরোধে আপনি খেতেই পারেন পালংশাক।

৫) আদা:- একটুকরো আদার কামল শীত কালেই বোঝা যায়। নাক বন্ধ, সর্দিভাব, প্রচন্ড কাশি কমাতে একটু আদা মুখে রাখলেই রেহাই পাওয়া যায়। আদা শুধু না খেতে পারলে চা দিয়ে খেতেই পারেন, ঋতুপরিবর্তনের সময় জ্বর সর্দির আশঙ্কা কমবে। ডেঙ্গি প্রতিরোধ এর ফলে বাড়বে।

৬) হলুদ:- হলুদকে প্রকৃতিক অ্যান্টিবায়োটিক বলা হয়। ডেঙ্গির প্রধান উপসর্গ, বমি বমি ভাব, গলা খুশখুশ অনেকটাই কমে যায়। মরসুমের শুরুতেই যারা পেটের সমস্যায় ভোগেন তাদের উচিত হলুদ খাওয়া। রান্নায় হলুদ তো খানই। সঙ্গে পারলে দুধে হলুদ মিশিয়েও খেতেই পারেন। ডেঙ্গির প্রভাব অনেকটাই কমতে পারে।