Date : 2021-12-02

একসঙ্গে “ছুটি” কাটালেন শাশ্বত-ঋতুপর্ণা, মুখোমুখি আর প্লাস নিউজের….

ওয়েব ডেস্ক:- কলকাতার বন্ডেল রোডের একটি বাড়িতে সকাল সকাল সপরিবারে প্রাতঃরাশ সারতে দেখা গেল অভিনেতা শাশ্বত চট্টোপাধ্যায়কে । স্যান্ডো গেঞ্জি পরে খাওয়া দাওয়া করছেন শাশ্বত। সঙ্গে তাঁর দুই ছেলে মেয়ে ও মা। টেবিলে খাওয়ার পরিবেশন করে দিচ্ছেন ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত। একদম ঘরোয়া পোশাকে ছুটির দিনে শাশ্বতর ঘরণী ঋতুপর্ণা। তাঁদের ছোট্টো সংসারে পৌঁছে গেল আরপ্লাস নিউজের ক্যামেরা। সত্যি মনে হলেও এ আসলে ‘ছুটি’ ছবির ছুটির দিনের গল্প। পরিচালক মুরারী এম দীক্ষিতের বাংলা ছবি ‘ছুটি’-র একটি দৃশ্যের শ্যুটিং চলছিল। নায়ক-নায়িকার সাংসারিক ব্যস্ততা থেকে একটু মুহুর্ত খুঁজে নিলাম আমরা। শুনে নিন কি বললেন অভিনেতা ও অভিনেত্রী

প্রতিনিধি:- এই যে ছবির শ্যুটিং চলছিল, আপনি একেবারে স্যান্ডো গেঞ্জি পরে, কি সিকোয়েন্স ছিল?

শাশ্বত :- রবিবার ছুটির দিনের বাজারে বাড়িতে পরিবারের সঙ্গে খাওয়া দাওয়ার একটা দৃশ্যে শ্যুটিং করছিলাম।

প্রতিনিধি:- ছুটি ছবিতে আপনার ভূমিকা নিয়ে যদি কিছু বলেন…

শাশ্বত :- একজন মেডিক্যাল রিপ্রেজেন্টেটিভের চরিত্রে আমি অভিনয় করছি। সে যেহেতু কোন বড় কোম্পানিতে চাকরি করে না তাই কাজের প্রেসার নিতে হয় তাকে। টার্গেট রিচ করার জন্য স্ট্রাগেল করে যাওয়া চরিত্র।

প্রতিনিধি:- ব্যক্তিগত জীবনে ছুটির দিন কিভাবে কাটান?

শাশ্বত :- খুব বেশি ছুটির দিন পাই না। আর যদি লম্বা ছুটির দিন পাই, তাহলে বেরিয়ে পড়ি গাড়ি নিয়ে। একটু লং ড্রাইভ এই আর কি।

প্রতিনিধি:- নতুন পরিচালকের সঙ্গে কাজ করে কেমন লাগছে?

শাশ্বত :- নতুন কারো সঙ্গে কাজ করার আগে একটু টেনশনে থাকি। জানিনা সে কেমন হবে। তারপর ঠিক হয়ে যায়। এই পরিচালক বেশ ভালো। কাজ করে ভালোই লাগছে। উনি কাজটা জানেন। আগের ছবিটা প্রশংসা পেয়েছে ওনা

প্রতিনিধি:- NRC নিয়ে দেশ জুড়ে যে অশান্তি চলছে সাধারণ মানুষ হিসাবে বা অভিনেতা কি বলবেন?

শাশ্বত :- আমি একটাই কথা বলব, শান্তি বজায় রাখুন। কারণ অশান্তি লাগিয়ে কিছু মানুষ ফায়দা তুলে এসেছে ফায়দা তুলে যাবে।তাই শান্তি বজায় রাখুন তাতেই ভালো থাকবেন সবাই।

এরপর দেখা হল একদম মধ্যবিত্ত বাঙালি পরিবারের ঘরোয়া বউ মল্লিকার সঙ্গে। এই ছবিতে মুখ্য ফিমেল প্রোটাগানিস্ট ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত এখন শাখা, সিঁদুর পরে বাঙালি বাড়ির বউ মল্লিকা। কি বললেন পর্দার আড়ালে আমাদের শুনে নিন…

প্রতিনিধি:- ঘরোয়া লুকে মধ্যবিত্ত বাড়ির বউ মল্লিকা সম্পর্কে যদি কিছু বলেন….

ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত:- মল্লিকা সামান্য মধ্যবিত্ত পরিবারের বউ। তাকে চাকরি করতে হয়, দুটো ছোট ছোট শিশুকে সামলাতেও হয়। সারাদিন এভাবে দিন কেটে যায় তার। জীবনের অনেক আশা আকাঙ্খাই অপূর্ণ থেকে যায় তার। ব্যস্ত জীবনের মধ্যে থেকে কিভাবে পরিবারকে তার সন্তানদের সঙ্গ দেবে সে? ছুটি আমাদের জীবনে কতটা গুরুত্বপূর্ণ তাই নিয়ে ছুটি ছবির কাহিনী গড়ে উঠেছে। একটি পরিবারে ছুটির দিন কতটা মূল্যবান তাই নিয়েই এই ছবি। মধ্যবিত্ত কর্মব্যস্ত জীবনের মধ্যে কিভাবে কেটে যা ছুটির দিন রবিবার গুলো তাই নিয়েই এই ছবি তৈরি করেছেন মুরারী দা।

সব মিলিয়ে দুজন অভিজ্ঞ অভিনেতাকে আমরা পেতে চলেছি ‘ছুটি’তে।