Date : 2019-12-06

মহারাষ্ট্রের পর কর্ণাটক

ওয়েব ডেস্ক : মহারাষ্ট্রে বিরোধীদের সমর্থনে শিবসেনা ক্ষমতায় বসার পর এবার কর্ণাটকেও ফের মিলিজুলি সরকার গড়ার স্বপ্ন দেখছে কংগ্রেস। যদিও সাধারণ নাগরিকদের মতে, মহারাষ্ট্রের জোড়াতাপ্পি সরকার ৫০ দিনের বেশি টিঁকবে না। বেশ কিছু দিন দেবগৌড়ার ছেলে কুমারস্বামীকে কর্ণাটকের কুর্সিতে বসিয়ে ওই রাজ্যে রাজত্ব চালিয়েছিল কংগ্রেস। তার পর কংগ্রেসের বেশ কিছু বিধায়ক দলত্যাগ করেন। কুমারস্বামীর সরকার পড়ে যায়। সরকার গঠন করেন বিজেপি-র ইয়েদুরাপ্পা। কিন্ত মহারাষ্ট্রে ফল বেরনোর পর বিজেপি-র জুটি ভেঙে শরদ পাওয়ার-সোনিয়া গান্ধীর মহা আগাড়ির সমর্থনে উদ্ভবের সরকার গঠন কর্ণাটকে কংগ্রেসকে ফের চাঙ্গা করে তুলেছে।

আবারও তারা সেখানে নতুন করে সরকার গঠনের স্বপ্ন দেখছে। সংসদে খাতায় কলমে দলত্যাগ-বিরোধী আইন হলেও বাস্তবে সেই আইনকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে রাজ্যে রাজ্যে ভোট-পরবর্তী জোট গড়ে সরকার বানানোর নোংরা খেলা অব্যাহত। মহারাষ্ট্রেও তার প্রতিফলন দেখা গিয়েছে।কর্ণাটকে দল ভাঙাভাঙি খেলার শুরু সেই দেবরাজ আর্স কংগ্রেস এবং তার পর বঙ্গারাপ্পার জনতা ক্রান্তি রঙ্গ গজিয়ে ওঠার সময় থেকে। এখনও সেই কালচারে কোনও রকম হেরফের ঘটেনি। তাই মহারাষ্ট্রের উদাহরণ দেখে কর্ণাটকেও ফের ইয়েদুরাপ্পাকে হটিয়ে জোট সরকার গঠনের জন্য ময়দানে নেমেছে কংগ্রেস। এক সময়ের ভারতের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী, কংগ্রেস-বিরোধী হারদানাহাল্লি ডাড্ডেগৌড়া দেবগৌড়াকে নিয়েই নতুন করে রাজনীতির ছক সাজানো শুরু হয়ে গিয়েছে। কর্ণাটকের কংগ্রেস নেতা সিদ্ধারামাইয়াই সেই খেলায় নেতৃত্ব দিচ্ছেন।