Date : 2020-09-30

নোভেল করোনার বিরুদ্ধে লড়তে ভারতকে সাড়ে ছ-লক্ষ মেডিক্যাল কিট দিল চিন, আসবে আরও কিট

নোভেল করোনা ভাইরাসে চিনে মৃত্যু হয়েছে ৩৩৪২ জনের। চিনের সরকারি হিসাবে সর্বশেষ এই তথ্যই জানানো হয়েছে। নোভেল করোনার আঁতুড়ঘর উহানে লকডাউন উঠে গিয়েছে। ফের স্বাভাবিক ছন্দে চিনের অধিকাংশ শহর। ভারতে তখন বিপরীত ছবি। মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১২ হাজার ছাড়িয়ে গিয়েছে। মারা গিয়েছেন চারশোর বেশি মানুষ। এই প্রেক্ষিতে দ্বিতীয় দফায় লকডাউনের মেয়াদ ১৯ দিন বাড়িয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। সংক্রমণের হাত থেকে বাঁচতে ও রোগীর চিকিৎসায় অবশ্য প্রয়োজনীয় মেডিক্যাল কিট। এর মধ্যে রয়েছে আরএটি এবং আরইকে। আরএটি অর্থাৎ রাপিড অ্যান্টিবডি টেস্ট এবং আরইকে অর্থাৎ আরএনএ এক্সট্রাকশন কিটস। চিনের থেকে এমনই ২০ লক্ষ মেডিক্যাল কিট সংগ্রহ করেছে ভারত। যা আগামী ১৫ দিনের মধ্যে ধাপে ধাপে ভারতে পাঠানোর ব্যবস্থা করা হচ্ছে। এর মধ্যে প্রথম দফায় বৃহস্পতিবার ৬.৫ লক্ষ মেডিক্যাল কিট ভারতে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন চিনে কর্মরত ভারতীয় রাষ্ট্রদূত বিক্রম মিসরি।

নোভেল করোনা ভাইরাসের থাবায় বড় ক্ষতি হয়েছে চিনেরও। সেই ক্ষতি সুদে-আসলে উসুল করে নিতে এখন পুরোদমে বাণিজ্যে মন দিয়েছে বেজিং। বিশ্বজুড়ে যেখানে ত্রাহি ত্রাহি রব, তখন পুরোদমে কাজ করছে চিনের কারখানাগুলিতে। বিশেষ করে চিকিৎসা সরঞ্জাম। করোনার চিকিৎসায় ভেন্টিলেটর ও পিপিই-র চাহিদা সর্বাধিক। ভারত-সহ বিশ্বের প্রায় সব দেশই চিনকে কমবেশি বরাত দিয়েছে ভেন্টিলেটর ও পিপিই সরবরাহের জন্য। সরকারি স্তরে যেমন বরাত দেওয়া হয়েছে তেমনি বেসরকারি তরফেও চিনের কাছে অসংখ্য অর্ডার গিয়েছে দ্রুততার সঙ্গে ওইসব সামগ্রীর জন্য। সেই চাহিদা মেটাতে দুই থেকে তিন শিফটে কাজ হচ্ছে চিনের সংশ্লিষ্ট কারখানাগুলিতে। করোনা-বিশ্বে এও এক আশ্চর্য সমাপতন।