Date : 2020-10-20

রাজ্যে করোনা আক্রান্তরা দিশাহীন, নামেই হেল্পলাইন, তোপ সুজনের

রাজ্যের সার্বিক করোনা পরিস্থিতি, করোনা আক্রান্তদের একাংশের দুর্ভোগ, প্রশাসনিক কর্তাদের ভূমিকা নিয়ে সরব হলেন বাম পরিষদীয় দলনেতা সুজন চক্রবর্তী। এক ভিডিও টেপে সাম্প্রতিক বনগাঁ হাসপাতালের ঘটনা তুলে ধরে তাঁর অভিমত, এই মানুষই মানবিক হয়ে উঠতে পারে উপযুক্ত ব্যবস্থা থাকলে। সে জন্য উদ্যোগী হতে হবে রাজ্য সরকারকেই। রাষ্ট্র মানুষকে ভয় দেখিয়েই খালাস হয়ে গিয়েছে বলে তোপ সুজনের।

তাঁর ভিডিও বার্তায় সুজনবাবু বলেছেন, “কোভিড সংক্রমণের কারণে রাজ্যে যে দুরবস্থা চলছে তা অভাবনীয়। অমানবিক একটা ভয়াবহ চেহারা হচ্ছে। সোনারপুরে ১৭ ঘণ্টা বাড়িতে পড়ে রইল মৃতদেহ। বেহালাতে ১৫ ঘণ্টা। বনগাঁতে কেউ সাহায্য করতে এগিয়ে আসেনি। এটা কোন চেহারা? এই অমানবিকতার শেষ কোথায়? মন্বন্ত্বরের কথা শুনেছিলাম, যেখানে পথেঘাটে মৃতদেহ পড়ে থাকত। আমরাও এখন সেই পথেই হাটছি বলে মনে হচ্ছে। শুধু মানুষকে দোষ দিলে হবে না। এই মানুষ অমানবিক নয়। এই মানুষই প্রয়োজনে মানবিক। এই মানুষগুলোকে ভয় পাইয়ে দেওয়া হয়েছে। প্রথম থেকে এমন একটা ভয় পাইয়ে দেওয়া হল যেন এটা একটা কুষ্ঠ রোগের মতো। তাহলে সরকার কোথায়?”

এখানেই শেষ নয়। রাজ্য সরকারের কড়া সমালোচনা করেছেন বাম বিধায়ক তথা বিধানসভায় বাম পরিষদীয় দলনেতা। তিনি বলেছেন, “ডাক্তারবাবুরা প্রাণপাত পরিশ্রম করছেন। জুতো সেলাই থেকে চণ্ডীপাঠ, সবটাই পুলিশের ঘাড়ে। বাকি দফতর তাহলে কোথায়? মুখ্যমন্ত্রী রোজ ভাষণ দিচ্ছিলেন, এখন তিনি চুপ। বাড়তি ভাষণ দেওয়ার পরে এখন চুপ করে গেছেন কেন? কোথায় সেইসব সচিবরা যারা রোজ মানুষকে ভয় দেখাচ্ছিলেন? সরকারের কাজ কি মানুষকে ভয় দেখানো, চোখ রাঙানো? এমন একটা পরিবেশ তৈরি করেছে যে কেউ জানে না জ্বর হলে কী করবে, কোথায় যাবে। এমন একটা হেল্পলাইন দিয়েছেন যা কেউ খুঁজে পায় না। বারবার বলছি একটা গাইডলাইন স্পষ্ট করুন।”