Date : 2020-09-30

সিঙ্গাপুরে প্রয়াত সমাজবাদী পার্টির প্রাক্তন নেতা অমর সিং, বয়স হয়েছিল ৬৪ বছর

বলা হয় বলিউডকে রাজনীতির আঙিনায় তুলে এনেছিলেন তিনি। বলা হয়, রাজনৈতিক লবিকে শিল্পে পরিণত করেছিলেন তিনি। একসময় উত্তরপ্রদেশের রাজনীতিতে মুলায়ম আর তাঁর জুটিও তো সর্বজনবিদিত। দেশ থেকে বহু দূরে, সিঙ্গাপুরে মারা গেলেন সমাজবাদী পার্টির সেই প্রাক্তন নেতা অমর সিং। বয়স হয়েছিল ৬৪ বছর। দীর্ঘদিন ধরেই কিডনি সহ বিভিন্ন শারীরিক সমস্যায় ভুগছিলেন তিনি। হাসপাতালই হয়ে উঠেছিল তাঁর ঘরবাড়ি। মাস পাঁচেক আগে একবার হাসপাতাল থেকেই তিনি জানিয়েছিলেন, টাইগার আভি ভি জিন্দা হ্যায়। কিন্তু আর বেঁচে থাকা হল না। ফুরিয়ে গেল সময়। শুধু রাজনীতি নয়, জীবনের আঙিনা থেকেই চিরবিদায় নিলেন সেই বর্ণময় চরিত্র অমর সিং।

একসময় কলকাতায় থাকতেন অমর সিং। বড়বাজার থেকে পরবর্তী জীবনে উত্তরপ্রদেশের রাজনীতিতে নাম হয়ে ওঠেন অমর। সমাজবাদী পার্টির সুপ্রিমো মুলায়ম সিং যাদবের সঙ্গে তাঁর সখ্যতা আজও বহু চর্চিত। ১৯৯৬ সালে সমাজবাদী পার্টির হয়ে রাজ্যসভার সাংসদ হন অমর সিং। ২০০২ ও ২০০৮ সালেও রাজ্যসভার সাংসদ হন তিনি। কিন্তু একটা সময় মুলায়ম সিং যাদব এবং সমাজবাদী পার্টির সঙ্গে সম্পর্কের অবনতি হয় তাঁর। দলবিরোধী কাজের অভিযোগে ২০১০ সালে অমর সিংকে বহিষ্কার করে সমাজবাদী পার্টি। এরপর উত্তরপ্রদেশ রাজনীতি তথা জাতীয় রাজনীতি থেকে একরকম হারিয়ে যান অমর সিং। ফিরে আসার একটা চেষ্টা অবশ্য ছিল। ২০১৬ সালে সমাজবাদী পার্টির সমর্থনেই ফের রাজ্যসভার সাংসদ হন অমর সিং। এরপর বিভিন্ন শারীরিক সমস্যায় বিব্রত ছিলেন বর্ষীয়ান নেতা।

জাতীয় রাজনীতিতে অমর সিংয়ের একটি ভূমিকাকে কখনও ভোলা সম্ভব নয়। ২০০৮ সালে ভারত-মার্কিন পরমাণু চুক্তিকে ঘিরে প্রবল আপত্তি জানায় বামেরা। সেই সময় কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন ইউপিএ সরকারকে ৬১ জন সাংসদকে নিয়ে বাইরে থেকে সমর্থন দিচ্ছিল বামেরাই। ফলে বামেরাই ছিল সেই সরকারের প্রাণভোমরা। শুধু হুঁশিয়ারি নয়, একসময় বাস্তবিকই সরকার থেকে সমর্থন তুলে নেয় বাম নেতৃত্ব। ঠিক এই সময়েই কংগ্রেসকে অক্সিজেন জোগাতে বড় ভূমিকা নেন অমর সিং। কংগ্রেসকে সমর্থন দেয় সমাজবাদী পার্টি। সরকারও টিকে যায়। এরপর থেকেই জাতীয় রাজনীতিতে নিজের জায়গা করে নেন অমর।

১ অগাস্ট ছিল লোকমান্য বাল গঙ্গাধর তিলকের মৃত্যুবার্ষিকী। তিলকের মৃত্যুবার্ষিকীতে শনিবার হাসপাতাল থেকেই একটি টুইট করেন অমর। লিখেছিলেন, তিলকের অবদান চিরকাল স্মরণ করা হবে। কী আশ্চর্য সেই পয়লা অগাস্টেই চিরবিদায় নিলেন অমর সিং।