Date : 2020-10-25

চিটফান্ড মামলায় প্রথম বড় রায়, পিনকন কর্তা-সহ ৮ জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড

বেআইনি অর্থলগ্নি সংস্থা সংক্রান্ত মামলায় ৩ অক্টোবর স্বর্ণাক্ষরে না হলেও লাল কালিতে লেখা হয়ে রইল রাজ্যের আইনি খতিয়ানে। পিনকন কর্তা মনোরঞ্জন রায় সহ ৮ জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের নির্দেশ দিল তমলুকের মহকুমা আদালত। সঙ্গে ৫ লক্ষ টাকা জরিমানা। পিনকনের সমস্ত সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করারও নির্দেশ দিয়েছে আদালত।

শনিবার সকাল থেকেই এই মামলার রায় নিয়ে আদালত চত্বরে ভিড় জমতে শুরু করে। একসময় কড়া পুলিশ প্রহরায় আদালতে পৌঁছন বিচারক মৌ চট্টোপাধ্যায়। বেলা ১২টা নাগাদ শুরু হয় রায়দান প্রক্রিয়া। অভিযুক্ত ১৮ জনের মধ্যে ৮ জনকে দোষী সাব্যস্ত করেন বিচারক। তারা হলেন মনোরঞ্জন রায়, তাঁর স্ত্রী মৌসুমী রায়, রণদীপ বসু, হরি সিং, রঘুজয়া শেঠি, রাজকুমার রায়, বিনয় সিং এবং অরূপ ঠাকুর। সকলকেই যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেন বিচারক। পিনকনের সমস্ত সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করারও নির্দেশ দিয়েছেন বিচারক।

আশির দশকে সঞ্চয়িতা-সহ বেশ কয়েকটি চিটফান্ড সংস্থা আমানতকারীদের বহু টাকা আত্মসাৎ করেছিল। ২০১০ সাল পরবর্তী পর্যায়ে রাজ্যে চিটফান্ডের ফের রমরমা দেখা যায়। অসংখ্য ছোট, বড় ভুয়ো অর্থলগ্নি সংস্থা ডালপালা মেলে। এর মধ্যে বহুচর্চিত দুটি নাম সারদা ও রোজ ভ্যালী। আমানতকারীদের বেশি সুদের লোভ দেখিয়ে কোটি কোটি টাকা শুষে নেয় দুটি সংস্থা। কেলেঙ্কারি ফাঁস হলে তোলপাড় হয়েছিল রাজ্য। রাজ্যের বিভিন্ন থানায় শয়ে-শয়ে অভিযোগ জমা পড়ে। এখনও পর্যন্ত সেইসব আমানতকারীদের খুব ছোট অংশই রাজ্য সরকারের উদ্যোগে কিছু টাকা ফেরত পেয়েছেন। বাকিরা তাকিয়ে রয়েছেন আদালতের দিকেই। সব চিটফান্ড নিয়ে মূল মামলা রয়েছে সিবিআইয়ের হাতেই। সেই মামলার কবে ফয়সলা হবে, কবে টাকা ফেরত পাবেন, এখন সেই আশাতেই রয়েছেন রাজ্যের হাজার হাজার আমানতকারী।