Date : 2021-01-19

কৃষি আইন আপাতত স্থগিত রাখা হোক, কেন্দ্রীয় সরকারকে নির্দেশ সুপ্রিম কোর্টের

তিন বিতর্কিত কেন্দ্রীয় কৃষি আইন বাতিল করতে হবে। কেন্দ্রীয় সরকারের সঙ্গে আট রাউন্ডের বৈঠকে এই অবস্থান থেকে একচুলও নড়েনি আন্দোলনরত কৃষক সংগঠনগুলি। সংশোধন হতে পারে, বাতিল কোনও মতেই নয়, এই অবস্থানে অনড় কেন্দ্রীয় সরকারও। এভাবেই দেখতে দেখতে পার হয়ে গিয়েছে প্রায় দেড় মাস। এই প্রেক্ষিতে সোমবার সুপ্রিম কোর্ট কী বলে, সে দিকে নজর ছিল গোটা দেশের। কৃষি আইন সম্পর্কিত একগুচ্ছ মামলার শুনানিতে সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ, আপাতত কৃষি আইনগুলি স্থগিত করুক কেন্দ্রীয় সরকার। সর্বোচ্চ আদালতের এই নির্দেশের খবর ছড়িয়ে পড়তেই খুশিতে ফেটে পড়েন দিল্লি-হরিয়ানা সীমানার সিংঘু তীব্র শীতকে উপেক্ষা করে আন্দোলনরত কৃষকদের মধ্যে। সুপ্রিম কোর্টের এই নির্দেশকে তাঁদের আন্দোলনের জয় বলেই মনে করছেন তাঁরা। সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি অরবিন্দ বোবদে বলেন, আমরা কোনও মৃত্যু বা ক্ষত দেখতে চাই না। যদি কারোর ক্ষতি হয়, সে ক্ষেত্রে আমরা সকলেই দায়ী হব। কেন্দ্রীয় সরকারের পক্ষে অ্যাটর্নি জেনারেল কে কে বেণুগোপাল পাল্টা বলেন, একবার আইনগুলি স্থগিত হলেও বিক্ষোভ চলতে পারে। এভাবেই আন্দোলন চলতে দেবেন কিনা সে বিষয়ে আদালত সিদ্ধান্ত নিক। এরপর আদালত বলে, এত ঠান্ডায় বয়স্ক ও মহিলারা কেন আন্দোলনে অংশ নিচ্ছেন সরকার কি তা জানে? বেণুগোপাল ফের বলেন, একটি কমিটি গঠন করে দিতে পারেন। কিন্তু আইন স্থগিত করতে বলবেন না। আন্দোলনে ৩-৪ টি রাজ্যের কৃষকরা অংশ নিয়েছেন, বৃহত্তর সমাজের আন্দোলনে কোনও ভূমিকা নেই। দক্ষিণ ভারতের কৃষকরাও আন্দোলনে সামিল হননি বলে যুক্তি দেন বেণুগোপাল। মঙ্গলবারও শুনানি পর্ব চলবে। সুপ্রিম কোর্ট আর কী বলে এখন সে দিকেই তাকিয়ে দেশের কৃষক সমাজ।