Date : 2021-07-24

আতঙ্ক কাটিয়ে অবশেষে টিকাকরণ

আতঙ্ক কাটিয়ে অবশেষে টিকাকরণ হল সোনারপুরের পাইলেন গ্রামে। টিকার নাম শুনেই অসুস্থতার আশঙ্কায় শতহস্ত দূরে চলে যাচ্ছিলেন বাসিন্দারা। বাধ্য হয়ে আসরে নামেন সোনারপুর উত্তরের বিধায়ক ফিরদৌসী বেগম সহ ব্লক প্রশাসনের আধিকারিকরা। বাড়ি বাড়ি গিয়ে বোঝানোর পর পাইলেন গ্রামের 100জন বাসিন্দাদের টিকাদান সম্ভব হয়েছে।

করোনার দ্বিতীয় ঢেউ এখনও কাটেনি। এরইমধ্যে তৃতীয় ঢেউয়ের সতর্কতা জারি হয়ে গিয়েছে। এই পরিস্থিতিতে টিকাকরণে জোর দিতে বলছেন স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা। যদিও সোনারপুরের পাইলেন গ্রামে দেখা গেল সম্পূর্ণ ভিন্ন ছবি। আদিবাসী গ্রাম হিসেবে পরিচিত ওই এলাকায় কোভিড সচেতনতা তো দূর, অসুস্থতার আতঙ্কে টিকার ভ্যান দেখলেও পালিয়ে যাচ্ছিলেন বাসিন্দারা। অবশেষে আসরে নামেন সোনারপুর উত্তরের বিধায়ক ফিরদৌসী বেগম সহ ব্লক প্রশাসন, ব্লক স্বাস্থ্য আধিকারিকেরা।

খেয়াদহ 1 নম্বর গ্রাম পঞ্চায়েতের পাইলেন গ্রামে বাড়ি বাড়ি গিয়ে গ্রামবাসীদের বোঝাতে শুরু করেন আধিকারিকরা। এই কাজে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেয় একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থাও। সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় 100জন গ্রামবাসীর টিকাকরণ সম্ভব হয়েছে। বর্তমানে টিকা নিয়ে ভয় অনেকটাই কেটেছে বাসিন্দাদের।