Date : 2021-09-20

উড়ন্ত বিমানের ‘চাকা আঁকড়ে’ এদেশ থেকে অন্যদেশে পাড়ি দেওয়া নতুন নয়

ওয়েব ডেস্কঃ সম্প্রতিই আফগানিস্তানে বিমানে ঝুলে বাঁচার চেষ্টা করছিলেন দু’জন। কিন্তু পারেননি। উড়ন্ত বিমান থেকে তাঁদের মাটিতে পড়ে যাওয়ার দৃশ্য সকলেই দেখেছেন। ভিতরে জায়গা না থাকায়, তাই চাকার কোঠরে আশ্রয় নিয়েই তালিবানের কব্জাগত আফগানিস্তান থেকে পালাতে চেয়েছিলেন ওই দুই আফগান। কিন্তু বিমানটি আকাশে ওড়ার খানিক ক্ষণের মধ্যেই তাঁরা পড়ে যান।

তবে বাঁচার এমন মরিয়া চেষ্টা কাবুলেই প্রথম হল না। এর আগেও পৃথিবীর বহু দেশে এমন ঘটনা ঘটেছে। সূত্রের খবর, ১৯৪৭ সাল থেকে ২০১৫ পর্যন্ত এ ধরনের ১১৩টি ঘটনার হিসেব রয়েছে তাদের কাছে। কাবুলেরটি সেই হিসেবে ১১৪তম। বেশিরভাগ মানুষই তাতে মারা যান। খুব স্বল্প সংখ্যক লোকই বেঁচে থাকেন। এঁদের মধ্যে একজন ভারতীয়। নাম প্রদীপ সাইনি। ১৯৯৬ সালের অক্টোবরে প্রদীপ এবং তাঁর ছোট ভাই বিজয় গোপনে উঠে বসেন ব্রিটিশ এয়ারওয়েজের বোয়িং ৭৪৭ বিমানের চাকার ফোকরে।

নয়াদিল্লি থেকে বিমানটি লন্ডনের হিথরো বিমানবন্দরে যাচ্ছিল৷ পঞ্জাবের গাড়ি মেকানিক প্রদীপের বয়স তখন ২২। তাঁর ভাই বিজয় ১৮ বছরের তরুণ।দু’জনকেই শিখ বিচ্ছিন্নতাবাদী বলে দেগে দেওয়া হয়েছিল। প্রাণের ভয়েই লন্ডনে পালিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন এই দুই ভাই। তারপরই তাঁরা চেপে বসেন প্লেনের চাকায়। কিন্তু শেষ পর্যন্ত সফল হননি। হিথরোয় নামার আগেই ঠান্ডা জমে যাওয়া বিজয়ের দেহ প্লেন থেকে মাটিতে পড়ে যায়। দাদা প্রদীপ তিনি বেঁচে যান।