Date : 2021-10-22

Surrender Ration Card : রেশন পাক যোগ্য ব্যক্তি। মৃত কার্ড হোল্ডারদের তালিকা তৈরির নির্দেশ।

সঞ্জু সুর, রিপোর্টার : মৃতের রেশন কার্ড সারেন্ডার না করায় রেশন পাওয়া থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন যোগ্য রেশন প্রাপকরা। এটা আটকাতে ও যোগ্য রেশন প্রাপকরা যাতে রেশন পান সেটা সুনিশ্চিত করতে মেমোরান্ডাম জারি করলো রাজ্য খাদ্য ও সরবরাহ দফতর। বৃহস্পতিবার এই মর্মে একটি বিজ্ঞপ্তি জারি করে বেশ কিছু নির্দেশিকা দেওয়া হয়েছে।

রাজ্যে এখন প্রায় দশ কোটি তেত্রিশ লক্ষ রেশন কার্ড হোল্ডার রয়েছেন। কেন্দ্রের খাদ্য সুরক্ষা আইন ও রাজ্যের খাদ্যসাথী প্রকল্পের আওতাধীন এইসব রেশন গ্রহিতারা এখন প্রায় সকলেই বিনামূল্যে রেশন পান। বিশেষ করে গত বছর কোভিড শুরু হ‌ওয়ার পর থেকে সকলকেই বিনামূল্যে রেশন প্রদান করা হয়। পাশাপাশি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ঘোষণা মতো রাজ্যে খাদ্যসাথীর আওতাধীন সকলেই আপাতত সম্পূর্ণ বিনামূল্যে রেশন পাচ্ছেন। এছাড়া মুখ্যমন্ত্রীর নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি মতো ‘দুয়ারে রেশন’ প্রকল্প চালুর জন্য ইতিমধ্যেই পাইলট প্রজেক্ট হিসাবে সেই কাজ শুরু হয়েছে। এইসব বিভিন্ন কারণে রাজ্যের মানুষের মধ্যে রেশন সংগ্রহের পরিমান বেড়েছে বলেই দফতর সূত্রে খবর। এদিকে জন্ম মৃত্যুর পারস্পরিক হারে যতগুলো রেশন কার্ড সারেন্ডার হ‌ওয়ার কথা, রেকর্ড অনুযায়ী দেখা যাচ্ছে তার থেকে অনেক কম কার্ড সারেন্ডার হচ্ছে। এর ফলে নতুন ও যোগ্য ব্যক্তিদের জন্য রেশন চালু করা অনেক সময়েই সম্ভব হয়ে উঠছে না।

এই সমস্যা দূর করতেই খাদ্য দফতরের অতিরিক্ত সচিব একটি মেমোরান্ডাম ইস্যু করেছেন। মেমোরান্ডাম অনুযায়ী জেলাশাসকদের ও কলকাতার ক্ষেত্রে পুর কমিশনার কে বলা হয়েছে তাঁদের নিজ নিজ এক্তিয়ারভুক্ত এলাকায় সব জন্ম-মৃত্যু নিবন্ধীকরককে যেন এই মর্মে জানিয়ে দেওয়া হয় যে সঠিক সময়ে সঠিক তথ্য তাঁদের কাছে পাঠাতে হবে যাতে ফরম-৭ (রেশন কার্ড সারেন্ডার সংক্রান্ত ফরম) ফিল‌আপ করাতে সুবিধা হয়। পাশাপাশি বিভিন্ন রেশন ডিলারদের সাথে যেহেতু সরাসরি উপভোক্তাদের যোগাযোগ হয়, এক্ষেত্রে রেশন ডিলারদের কাছে মৃত ব্যক্তি সম্পর্কে নিশ্চিত করেই তথ্য এসে পৌঁছায়। রেশন ডিলারকে এক্ষেত্রে কিছুটা ভুমিকা পালন করে উপভোক্তার পরিবারের সদস্যকে দিয়ে ফরম-৭ পূরণ করিয়ে সেই তথ্য নির্দিষ্ট দিন অন্তর জানাতে হবে।

এছাড়াও জেলাশাসকদের বলা হয়েছে গত চার বছরে তাদের এলাকায় মোট কতজন মানুষ মারা গিয়েছেন ও কতজন তাদের রেশন কার্ড সারেন্ডার করেছেন, সেই তালিকা তৈরি করতে হবে। পাশাপাশি এটাও খেয়াল রাখতে হবে ‘সমব্যাথী’ প্রকল্পের সাহায্য কার কার জন্য নেওয়া হচ্ছে বা ভোটার তালিকা থেকে কার কার নাম বাদ যাচ্ছে। এইসব তালিকা তৈরি করে খাদ্য দফতরে পাঠাতে ও দফতরের পোর্টালে তা আপলোড করার কথাও মেমোরান্ডামে বলা হয়েছে। খাদ্য দফতর সূত্রে খবর, এই ব্যবস্থা চালু করার অর্থ হলো এক, রেশন চুরি আটকানো ও দুই, যোগ্য ব্যক্তি যাতে রেশন পায় তা সুনিশ্চিত করা।