Date : 2021-10-22

ম্যানহোলে পড়ে নয়!চার শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে পাইপলাইনের কাজ করতে গিয়ে।মামলায় দাবি রাজ্য সরকারের।

ষষ্ঠী চট্টোপাধ্যায়, রিপোর্টার : বর্ষার আগে প্রতি বছর শহর কলকাতার ম্যানহোল গুলি পরিষ্কার করার রেয়াজ আজও আছে কলকাতা পুরসভার।গত ফেব্রুয়ারি মাসে কুঁদঘাট পাম্প হাউসের কাছে ম্যানহোলে কাজ করতে নেমে অসুস্থ হয়ে পড়েন কলকাতা পুরসভার চার ঠিকা কর্মী। ম্যানহোলে কাজ করতে নেমে তাঁরা তলিয়ে গিয়েছিলেন। তাঁদের মধ্যে দু’জনকে এসএসকেএম বাকি দু’জনকে বাঘাযতীন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে তাঁদের মৃত্যু হয়।এই ঘটনায়।রাজ্য মানবাধিকার সংগঠন এপিডিআর কলকাতা হাইকোর্টে একটি জনস্বার্থ মামলায় মানবাধিকার সংগঠনের পক্ষের আইনজীবী রঘুনাথ চট্টোপাধ্যায় আদালতে জানান কলকাতা পুরসভার ১৪৪ নম্বর ওয়ার্ডে কুঁদঘাট পাম্প হাউসের কাছে সেদিন ম্যানহোলের পুরনো ও নতুন পাইপ সংযুক্তিকরণের কাজ চলছিল। প্রথমে তিনজন শ্রমিক ম্যানহোলে নেমেছিলেন বলেই অভিযোগ ওঠে। জানা যায়, তাঁদের তলিয়ে যেতে দেখে ম্যানহোলে রাস্তার ওপরে দাঁড়িয়ে থাকা আরও এক জন শ্রমিক নামেন, কিন্তু তিনিও ভেসে যান। দীর্ঘক্ষণ সহকর্মীদের উঠতে না দেখে বাকি কর্মীরা ততক্ষণে দমকলে খবর দেওয়া হয়। কিন্তু দমকল দীর্ঘক্ষণ চেষ্টা করেও তাঁদের খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল না। তার পর ঘটনাস্থলে পৌঁছয় বিপর্যয় মোকাবিলা দফতর। ডুবুরি নামিয়ে তল্লাশি চালানোর পর ঘণ্টা দুয়েকের চেষ্টায় তাঁদের উদ্ধার করা সম্ভব হয়। কিন্তু চারজন কর্মীরই মৃত্যু হয়।

যদিও রাজ্য সরকারের পক্ষের আইনজীবী অমিতেশ বন্দ্যোপাধ্যায়ের দাবি ম্যানহোলে কাজ করতে নয়, পাইপলাইনের কাজ করতে গিয়েই মৃত্যু হয়েছিল।এই মৃত্যুর ঘটনা অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক।আবেদনকারীর আইনজীবী বলেন এই সংক্রান্ত বিষয়ে একটি আইন রয়েছে যা ঠিকা শ্রমিকদের রক্ষাকবজ হিসেবে কাজ করে। প্রহিবিশন অফ এমপ্লয়মেন্ট অ্যাজ় ম্যানুয়াল স্ক্যাভেঞ্জারস অ্যান্ড দেয়ার রিহ্যাবিলিটেশন বিল’ পাশ হয়। যা পরবর্তীতে আইনে পরিণত হয়েছে। সেই আইন অনুযায়ী, নর্দমা পরিষ্কার করা পেশায় যুক্ত কাউকে ম্যানহোলে নামিয়ে কাজে নিযুক্ত করলে ওই নিযুক্তকারী ব্যক্তির পাঁচ বছর পর্যন্ত জেল হতে পারে। একই সঙ্গে ম্যানহোল বা সেপটিক ট্যাঙ্কে নেমে কাজ করার কাজে যুক্ত সাফাইকর্মী ও তাঁদের পরিবারের পুনর্বাসনের ব্যবস্থাও আইনে উল্লেখ করা হয় বলে জানিয়েছেন মানবাধিকার সংগঠনের পক্ষের আইনজীবী।

মামলার শুনানি শেষে রাজ্যের কাছে হলফনামা তলব করলো হাইকোর্ট। আগামী ২৩ নভেম্বর মামলার পরবর্তী শুনানি।