Date : 2021-10-22

Calcutta High Court : আদালতের নির্দেশ অমান্য , রাজ্য সরকারকে ২৫ হাজার টাকা জরিমানা ।

স্নেহাশীষ চট্টোপাধ্যায়, রিপোর্টার : সরকারি আবাসন এবং সরকারি সম্পত্তি কতজনচাকুরী থেকে অবসর নেওয়ার পরেও দখল করে রেখেছেন? তার চূড়ান্ত তালিকা আদালতে পেশ করতে না পারার কারণেই রাজ্য সরকার কে ২৫ হাজার টাকা জরিমানা করেন ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতির রাজেশ বিন্দল ও বিচারপতি রাজর্ষি ভারদ্বাজের ডিভিশন বেঞ্চে।

আবেদনকারী চন্দ্রাবতী দেবীর পারিবারিক পেনশন কম পাওয়ার কারণে কলকাতা হাইকোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিলেন। তাঁর স্বামী মফিল তেওয়ারি ১৯৯৩ সালের পুলিশে চাকরি থেকে অবসর গ্রহণ করেন । তার পর থেকে স্বামীর পেনশনের অর্ধেক টাকা পাওয়া নিয়ে রাজ্য সরকারের বক্তব্য সরকারি আবাসন তিনি ছাড়েননি।আজও তিনি আবাসন রয়েছেন তাই তাকে কম পেনশন দেওয়া হচ্ছে।

চলতি বছরের জুন মাসে হাইকোর্ট নির্দেশ দিয়েছিলেন সরকারি চাকরি থেকে অবসর গ্রহণ করার পর এখনো পর্যন্ত সারা রাজ্যে কতজন রয়েছেন সরকারি আবাসনে।যাঁরা চাকুরী থেকে অবসর নিয়েও দখল করে রয়েছেন , তাদের বিরুদ্ধে রাজ্য সরকার কি কি পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন তার চূড়ান্ত তালিকা সহ পূর্ণাঙ্গ রিপোর্ট হলফনামা আকারে আদালতে জমা দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছিলেন।
হাইকোর্টের আদেশের পর চলতি বছরের ১১ই সেপ্টেম্বর পুলিশ নিয়ে গিয়ে চন্দ্রাবতী দেবীকে কোয়াটার থেকে উচ্ছেদ করেন রাজ্য সরকার।

চন্দ্রাবতী দেবীর পক্ষের আইনজীবী অলক ঘোষ আদালতে জানান রাজ্য সরকার ১৯৮৪ সালের ওয়েস্ট বেঙ্গল গভর্মেন্ট অকুপেন্সি আইন অনুযায়ী যে ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে তা সঠিক নয় সম্পূর্ণ বেআইনি। বিনা নোটিশে উচ্ছেদ করা হয়েছে বলে অভিযোগ আইনজীবির।

ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি জানতে চান শুধুমাত্র তাদের ক্ষেত্রে এই ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে? অন্যান্য ক্ষেত্রে রাজ্য সরকার কি পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে আদালতে জমা দেওয়ার কথা থাকলেও কেন রাজ্য সরকার সেই রিপোর্ট আদালতে জমা দিল , সরকার পক্ষের আইনজীবী কে প্রশ্ন।

হাইকোর্টের নির্দেশ এর ছ মাস অতিক্রান্ত হয়ে যাওয়ার পরেও কেন এখনও পর্যন্ত সেই রিপোর্ট আদালতে জমা পরল না ।সঠিক উত্তর রাজ্য সরকার দিতে না পারায় ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি রাজ্য সরকারকে ২৫০০০ টাকার আর্থিক জরিমানা করেন ।পাশাপাশি আগামী ২৯ সেপ্টেম্বর মামলার পরবর্তী দিন ধার্য করেছেন।