Date : 2021-10-19

ভোট পরবর্তী হিংসা মামলায় কেন্দ্র, জাতীয় মানবাধিকার কমিশন এবং নির্বাচন কমিশনকে নোটিস সুপ্রিম কোর্টের।

ষষ্ঠী চট্টোপাধ্যায়, রিপোর্টার : সুপ্রিম কোর্টে ভোট পরবর্তী ‘হিংসা’মামলায় কেন্দ্রকে নোটিস পাঠাল বিচারপতি বিনীত সরণ ও বিচারপতি অনিরুদ্ধ বসুর ডিভিশন বেঞ্চ।বৃহস্পতিবার শুনানিতেই এই ঘটনায় মানবাধিকার কমিশনের রিপোর্ট নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন রাজ্যে সরকারের পক্ষের আইনজীবী কপিল সিব্বল।মঙ্গলবার রাজ্যের পক্ষ থেকে আদালতে জানানো হয় প্রচুর ভুয়ো রিপোর্ট দায়ের হয়েছে কমিশনে।এমন ব্যক্তির খুনের অভিযোগ দায়ের হয়েছে, বাস্তবে যিনি জীবিত। এছাড়া কমিশনের তিন সদস্যের নিরপেক্ষতা নিয়েও প্রশ্ন তোলা হয়। জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের রিপোর্টে কড়া মন্তব্য ও সঠিক তথ্য কতটা যুক্তিসংগত সেটি প্রমাণ করার, দায় এসে পড়ল কেন্দ্রের ঘাড়ে।

রাজ্য সরকারের পক্ষের আইনজীবী আদালতে তথ্য-প্রমাণ পেশ করেন। তাঁর দাবি, রাজ্যে ‘হিংসা’-র ঘটনা কেউ অস্বীকার করছে না। তবে যে সময়ে হিংসার উল্লেখ করা হয়েছে, সেই সময় রাজ্যের আইনশৃঙ্খলার দায়িত্বে ছিল নির্বাচন কমিশন। কারণ ২ মে নির্বাচনের ফল প্রকাশ হলেও, মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় শপথ নেন ৫ মে। এই সময়ের মধ্যে বিভিন্ন ‘হিংসা’-র অভিযোগ উঠছে। তাছাড়া মানবাধিকার কমিশনের যে রিপোর্টকে ভিত্তি করে সিবিআই তদন্তের নির্দেশ দিয়েছে কলকাতা হাই কোর্ট, তার কোনও কপি রাজ্যকে না দেওয়ায়, তদন্তে সমস্যা তৈরি হওয়ার কথাও উল্লেখ করেন রাজ্যেরপক্ষ থেকে। তিনি জানান ধর্ষিতাদের পরিচয় না জানালে সঠিক তদন্ত করা সম্ভব হচ্ছে না।রাজ্যে ভোট পরবর্তী ‘হিংসা’ সংক্রান্ত মামলায় খুন ও ধর্ষণের ক্ষেত্রে সিবিআই ও অন্যান্য ক্ষেত্রে বিশেষ তদন্তকারী দল গঠন করে তদন্তের নির্দেশ দেয় কলকাতা হাই কোর্টের পাঁচ বিচারপতির বেঞ্চ। এই রায়ের বৈধতাকে চ্যালেঞ্জ করে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয় রাজ্য। কেন্দ্র, জাতীয় মানবাধিকার কমিশন এবং নির্বাচন কমিশনকে নোটিস দেয় সুপ্রিম কোর্টে। মামলার পরবর্তী শুনানি ৭ অক্টোবর।