Date : 2021-09-20

সাময়িক স্বস্তি মুখ্যমন্ত্রীর ! পিছিয়ে গেল ভবানীপুর উপনির্বাচন সংক্রান্ত মামলার শুনানি

স্নেহাশীষ চট্টোপাধ্যায়, রিপোর্টার : ভবানীপুর উপ নির্বাচন নিয়ে রাজ্যের মুখ্যসচিব হরেকৃষ্ণ দ্রিবেদী কেন্দ্রীয় নির্বাচন কমিশন কে দেওয়া চিঠির যৌক্তিকতা নিয়ে জনস্বার্থ মামলায় তীব্র বিরোধীতা করলেন রাজ্য সরকার। সোমবার কলকাতা হাইকোর্টে ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতির ডিভিশন বেঞ্চে রাজ্য সরকারের পক্ষে এডভোকেট জেনারেল কিশোর দত্ত জানান নির্বাচনের দিন ঘোষণা হয়ে যাওয়ার পর তার যাবতীয় দায়িত্ব কেন্দ্রীয় নির্বাচন কমিশনের ওপর বর্তায়। সেখানে আদালত কোনভাবেই হস্তক্ষেপ করতে পারে না ,এ বিষয়ে সুপ্রিম কোর্টের একাধিক রায় রয়েছে। উত্তরে মামলাকারীর পক্ষের আইনজীবী বিকাশ রঞ্জন ভট্টাচার্যের দাবি এমন কোন সাংবিধানিক সংকট দেখা দেয়নি যাতে করে রাজ্যের মুখ্য সচিবকে চিঠি দিয়ে নির্বাচন কমিশনকে জানাতে হবে শুধুমাত্র ভবানীপুর কেন্দ্রে উপ নির্বাচন করার জন্য।
রাজ্যের মুখ্য সচিবের দেওয়া নির্বাচন কমিশনকে চিঠিতে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নাম উল্লেখ করা রয়েছে। সেখানে বলা হয়েছে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ভবানীপুর কেন্দ্র থেকে উপনির্বাচনে লড়াই করবেন সুতরাং ছয় মাসের মধ্যেই সেখানে উপনির্বাচন করা না হলে সেক্ষেত্রে সাংবিধানিক সংকট দেখা দিতে পারে । যদিও মামলাকারীর পক্ষের আর এক আইনজীবী সায়ন ভট্টাচার্যের একটি দাবি করেন মুখ্যসচিব হরেকৃষ্ণ দ্বিবেদী কোন ব্যক্তির নাম নির্দিষ্ট করে কোন রকম চিঠি তারাকেন্দ্রীয় নির্বাচন কমিশন কে দিতে পারেন না , তাই এই মামলায় শুনানি দ্রুত প্রয়োজনীয়তা রয়েছে।
মামলাকারী এবং রাজ্যের এডভোকেট জেনারেল এর উদ্দেশ্যে ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি বলেন নির্বাচনে নির্ঘণ্ট ও প্রকাশ হয়ে যাওয়ার পর কেন আপনারা আদালতের দ্বারস্থ হয়েছেন ? আদালতের করণীয় কি? নির্বাচনের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের সঙ্গে সঙ্গে মামলাকারী সায়ন বন্দ্যোপাধ্যায় উত্তরে জানান নির্বাচনের বিজ্ঞপ্তি জারি হয়ে যাবার পরেই আমরা আদালতের দ্বারস্থহয়েছি।উভয় পক্ষের বক্তব্য শোনার পর প্রধান বিচারপতি মামলার পরবর্তী শুনানি।