Date : 2021-10-22

খোয়াই থানার ঘটনা। অভিষেক সহ ছয় নেতাকে নোটিশ ধরালো ত্রিপুরা পুলিশ।

সঞ্জু সুর, রিপোর্টার : আগষ্ট মাসের আট তারিখে ত্রিপুরার খোয়াই থানার ঘটনায় একসঙ্গে ছয় জন তৃণমূল নেতাকে ডেকে পাঠালো ত্রিপুরার খোয়াই থানার পুলিশ। ৪১ এ সিআরপিসি ধারায় প্রত্যেককে আলাদা আলাদা করে নোটিশ পাঠানো হয়েছে। সূত্রের খবর নোটিশ পাঠানো হয়েছে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়, কুণাল ঘোষ, দোলা সেন, ব্রাত্য বসু, সুবল ভৌমিক, প্রকাশ দাসকে।

সাত‌ আগষ্ট ত্রিপুরার আমবাসা ও ধর্মনগরে আক্রান্ত হন যুব তৃণমূল কংগ্রেস এর জয়া দত্ত, সুদীপ রাহা, দেবাংশু রা। ভাঙচুর করা হয় তাদের গাড়ি। মাথা ফাঁটে সুদীপের। আহত হন জয়া। অভিযোগ বিজেপির বিরুদ্ধে। জয়া, দেবাংশুরা আরো অভিযোগ করেন পুলিশের সামনেই বিজেপির গুন্ডারা তাদের উপর আক্রমণ নামিয়ে এনেছে। সেদিন শেল্টার দেওয়ার নাম করে তাদের নিয়ে যাওয়া হয় খোয়াই থানায়। পরের দিন অর্থাৎ আট আগষ্ট মহামারী আইন ভাঙার অভিযোগে জয়াদের আটক করে খোয়াই থানার পুলিশ। সেদিন‌ই ত্রিপুরায় পৌঁছান অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় সহ কুনাল ঘোষ, দোলা সেন, ব্রাত্য বসু রা। আগরতলা পৌঁছে সোজা যান খোয়াই থানায়। সেখানে জয়া, সুদীপদের অন্যায়ভাবে আটকে রাখার বিরুদ্ধে থানাতেই বিক্ষোভে সামিল হন অভিষেক, দোলা সেন, কুনাল ঘোষ বা ব্রাত্য বসু।

এই ঘটনায় তৃণমূল নেতাদের বিরুদ্ধে মামলা করে ত্রিপুরা পুলিশ। তবে গত আঠারো আগষ্ট ত্রিপুরা হাইকোর্ট এই মামলায় ত্রিপুরা পুলিশকে নির্দেশ দেয় ঐদিনের ঘটনার ভিডিও ফুটেজ আদালতে পেশ করতে। ফলে সেই মামলা এখন আদালতের বিচারাধীন। কিন্তু এরমধ্যেই ঐ একই ঘটনায় খোয়াই থানার পক্ষ থেকে সাক্ষী দেওয়ার জন্য তৃণমূল নেতাদের ডেকে পাঠানোর খবর সামনে এসেছে।

খোয়াই থানার পক্ষ থেকে বলা হয়েছে নোটিশ পাওয়ার দশ দিনের মধ্যে তদন্তকারী অফিসারের সঙ্গে দেখা করতে। এই প্রসঙ্গে তৃণমূল কংগ্রেসের রাজ্য সম্পাদক কুনাল ঘোষ আর প্লাস নিউজ কে বলেন,”সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন অভিযোগ। তবে আমি অবশ্য‌ই যাবো। দশ দিন লাগবে না, তার আগেই যাবো। আমি খোয়াই থানার তদন্তকারী অফিসারকে এটা নিশ্চিত করতে বলেছি যে আমি যাওয়ার পর থেকে আমার প্রতিটা মুভমেন্ট যেন ভিডিও রেকর্ডিং হয়। ওরা যা প্রশ্ন করবেন আমি যা উত্তর দেবো, সব কিছু।” কুনাল ঘোষ আরও বলেন, “হোমটাস্ক দিয়ে দিয়েছিলো ওদের বিজেপির লোকেরা। বাধ্য ছাত্রের মতো পুলিশ সেটা পালন করছে। রাজনৈতিক নির্দেশে প্রশাসনিক বাধ্যতামূলক কাজ।” এদিকে খোয়াই থানার নোটিশ প্রসঙ্গে তৃণমূল সাংসদ দোলা সেন বলেন,”এই বিষয়ে আমি ব্যক্তিগতভাবে কোনো সিদ্ধান্ত নিতে পারি না। আমি দলের অনুগত সৈনিক। আমি কাগজ দলকে দেবো, আমাকে দল যা যা নির্দেশ দেবে আমি তাই করবো।”