Date : 2021-11-27

“যেমন নাম তেমন তার কাজ” ভবিষ্যতের সাইবার রোবোট- নাম কৃষ্ণা

শাহিনা ইয়াসমিন, রিপোর্টার : আমেরিকা হল শক্তিশালী দেশ। সেই দেশের তৈরি করা অটোমেটেট শুট ড্রোনকে টেক্কা দিতে সাহস দেখিয়েছে কৃষ্ণা। কে এই কৃষ্ণা ? কি তার কাজ ? সব কিছু জানতে পড়তে হবে এই বিশেষ প্রতিবেদন।

নাম কৃষ্ণা। না! দেবতা কৃষ্ণা নয়। ইনি হলেন একজন সাইবার রোবোট। রোবট কৃষ্ণা নামে প্রসিদ্ধ। যেমন নাম তেমন তার কাজ। লর্ড কৃষ্ণার মতো সব কাজে পারদর্শি এই রোবট। এনার কাজ হল ডাটা সংগ্রহ করা। অর্থাত্ আপনার পাড়ায় ঢুকে আপনার বাড়ি সহ আপনার সম্বন্ধে যাবতীয় ডাটা সংগ্রহ করে আনতে সক্ষম এই কৃষ্ণা রোবট। রোবট কৃষ্ণাকে যিনি আবিষ্কার করেছেন তিনি হলেন ইন্দ্রনীল দাস। ইন্দ্রনীল দাস পেশায় তথ্যপ্রযুক্তি কর্মী। ছয় থেকে সাতমাস লেগেছে কৃষ্ণা নামক রোবটকে তৈরি করতে। তবে শুধু ইন্দ্রনীল নয় তার সঙ্গে রোবট কৃষ্ণাকে তৈরি করতে হাত বাড়িয়ে দিয়েছে তারই তিন ছাত্র। দেখে নেওয়া যাক কি কি করতে পারে কৃষ্ণা রোবট। এই রোবটকে পৃথিবীর যেকোনও প্রান্ত থেকে কন্ট্রোল করা যাবে। আবিষ্কারকের দাবি সিআরপিএফ, ডিফেন্স, পুলিশ ফোর্সের ক্ষেত্রে উপকারি এই রোবট। যে কোনও কম্পিউটার,অ্যানড্রয়েড হ্যাক করা, ফোন কল ট্যাপ, কল লোকেশন হ্যাক, এয়ারল্যান্স হ্যাক, রেডিও বেস ডিভাইসেস হ্যাক করা। এছাড়া ফোন ক্যামেরা ও অবজেক্ট ট্র্যাক করতে পারে। ড্রোন ও হেলিকপ্টার ট্রেস করাতেও পারদর্শী ওই রোবট। এমনকি জলের তলায় ইন্টারনেট অ্যাকসেস থাকলে কাজ করতে সক্ষম এই রোবট।

যেকোনও রেডিও স্টেশনে বা রেডিও সিগন্যালের পার্টিকুলার ফ্রিকুয়েন্সিতে অডিও ট্রান্সমিট করার ক্ষমতা রাখে কৃষ্ণা। এমনটাই জানালেন টেকনিক্যাল অ্যানালিস্ট বা এথিক্যাল হ্যাকার ইন্দ্রনীল দাস। হ্যাকিং করা বা হ্যাকার সম্বন্ধে বিভিন্ন খবর শিরোনামে দেখা গেছে। সব কিছুর উপকারিতা ও অপকারিতা থাকে। তেমন হ্যাকিং এর ক্ষেত্রেও ভালো ও খারাপ দিক আছে। তাঁর আবিষ্কার রোবট কৃষ্ণার মাধ্যমে সচেতনতামূলক দিকটা তুলে ধরতে চান ইন্দ্রনীল।

রোবট ক্যান শুট- এই রোবট শুটও করতে পারবে, কটা জঙ্গি আছে কোন পজিশনে আছে তা জেনে শুট করার দক্ষতা রয়েছে রোবট কৃষ্ণার। নিজেই কেস সলভ করে দেবে। জানালেন ইন্দ্রনীল দাসের ছাত্র অয়ন বাগ।

ফোনের মধ্যে হ্যাকারদের আড়িপাতা বহুদিন ধরে চলছে। নতুন নয়। সেটা ডিফেন্সের ফোনে হোক বা সাধারণ মানুষের ফোনে। প্রত্যেকটা ক্রাইমে টেকনোলোজি রয়েছে। টেকনোলজিকে আরও তীক্ষ্ম করে ডিফেন্স যদি তাদের কাজে ব্যবহার করতে পারে তাহলে ইন্দ্রনীলের মতো মানুষদের আবিষ্কার সার্থক হবে। তাই কেন্দ্র ও রাজ্য সরকারের কাছে ইন্দ্রনীলের আবেদন তার তৈরি করা রোবটের উপর আলোকপাত করা হোক।