Date : 2021-10-17

দুঃসাহসী মহিলা। আট হাজারী চূড়ায় চন্দননগরের পিয়ালী

সঞ্জু সুর, রিপোর্টার : বয়স তার মাত্র তিরিশ। কিন্তু স্পর্ধা তার আকাশচুম্বী। তাই তো কি অনায়াসে দূর্গম গিরি লঙ্ঘন করে ফেললো সে। নাম তার পিয়ালি বসাক। বাড়ি চন্দননগর। স্থানীয় প্রাইমারি স্কুলে শিক্ষকতা করা পিয়ালি শুক্রবার সকালে এমন এক কান্ড ঘটিয়ে ফেলেছে যা এর আগে এই দেশে কেউ করে দেখাতে পারেনি। সাপ্লিমেন্টারি অক্সিজেন ছাড়াই সে চড়ে বসেছে আট হাজারি শৃঙ্গ ধৌলাগিরির মাথায়।
ছোটো বেলায় বাবা মায়ের সাথে পাহাড় ঘুরতে গিয়ে পাহাড়ের প্রেমে পড়ে যাওয়া। সেই থেকেই স্বপ্ন দেখা ঐ দুরের এভারেস্ট এর উপরে উঠে দেখতে হবে তাকে। বাড়ির প্রশ্রয়ে ছোট্ট পিয়ালি সেই স্বপ্নকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য ভর্তি হয় মাউন্টেনিয়ারিং কোর্সে। তবে কোর্সে ভর্তি হওয়া আর পাহাড় পর্বতের মাথায় চড়ে বসা এক নয়।

তাও যদি আবার সাপ্লিমেন্টারি অক্সিজেন ছাড়াই কেউ পাহাড় ডিঙোতে চায় তো সেটা আরো বেশি অসম্ভব হয়ে ওঠে। কিন্তু অন্য ধাতুতে গড়া পিয়ালি শুক্রবার ভোর ছ’টার কিছু পরে 8,167 মিটার উচ্চতার ধৌলাগিরি শৃঙ্গ জয় করে বুঝিয়ে দিলেন এই পৃথিবীতে অসম্ভব বলে কোনো শব্দ নেই।

পিয়ালি হলেন ভারতের প্রথম সিভিলিয়ান পর্বতারোহী যিনি অক্সিজেন ছাড়া একটা আট হাজার উচ্চতার শৃঙ্ঘ জয় করলেন। পিয়ালির এই কৃতিত্বে এভারেস্ট জয়ী পর্বতারোহী সত্যরুপ সিদ্ধান্ত থেকে শুরু করে দেবব্রত মুখার্জী বা রুদ্র প্রসাদ হালদাররা তো ভীষণ উচ্ছ্বসিত। রুদ্র প্রসাদ হালদার বললেন, “পিয়ালির এই কৃতিত্ব সারা দেশের ছেলে মেয়েদের আরো বেশি উৎসাহিত করবে মাউন্টেনিয়ারিং এর প্রতি। পিয়ালির এটা একটা বিশাল কৃতিত্ব, কারণ সাপ্লিমেন্টারি অক্সিজেন ছাড়া অনেকে ছয় হাজারি শৃঙ্গ চড়তে চায় না। সেখানে একেবারে আট হাজারি শৃঙ্গ সামিট করা বিশাল ব্যাপার।”
দিদির এই সাফল্যে খুশিতে ভাসছেন বোন তমালি বসাক। বললেন, “অক্সিজেন ছাড়াই দিদি পাহাড় চড়ায় অনেক সাবলীল। বরং অক্সিজেন সিলিন্ডার নিয়ে মাস্ক পরে ওর কষ্ট হয়।” এখনো দিদির সাথে কথা হয় নি। তবে এজেন্সির কাছ থেকে খবর পেয়েছেন পিয়ালিরা ঠিক আছে। আজকেই সামিট ক্যাম্পে ফিরে আসছেন। বাঙালীর আজ গর্ব করার দিন। এখন শুধু অপেক্ষা পিয়ালির ঘরে ফেরার।