Date : 2021-11-27

করোনা আবহের কথা মাথায় রেখে পরিবেশবান্ধব বাজি ফাটানোর ক্ষেত্রে সায় শীর্ষ আদালত

ষষ্ঠী চট্টোপাধ্যায়, রিপোর্টার: শর্তসাপেক্ষে বাজি ফাটানোর অনুমতি দিয়েছিল পশ্চিমবঙ্গ দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদ। তবে জনস্বার্থ মামলার পরিপ্রেক্ষিতে গত ২৯ অক্টোবর কলকাতা হাই কোর্ট উৎসবের মরশুমে বাজি নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়। হাই কোর্টের তরফে জানানো হয়, কালীপুজো, দীপাবলিতে বাজি ফাটানো যাবে না। এমনকী জগদ্ধাত্রী পুজো, বড়দিন এবং বর্ষবরণের রাতেও বাজি ফাটানো যাবে না বলেই জানিয়ে দেয় হাই কোর্ট। বাজি ফাটালে করোনা রোগী এবং করোনাজয়ীদের শ্বাসকষ্ট হতে পারে, সেই যুক্তি দেখিয়ে কলকাতা হাই কোর্ট বাজি নিষিদ্ধ করে। জীবনের থেকে ব্যবসায়িক স্বার্থ বড় নয় বলেই জানান বিচারপতিরা।

উৎসবের মরশুমে বাজি নিষিদ্ধ হওয়ায় ৩৩ লক্ষ বাজি ব্যবসায়ীর ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত হয়ে পড়ে। তাই কলকাতা হাই কোর্টের রায়কে চ্যালেঞ্জ করে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হন তাঁরা। ওই মামলার শুনানিতেই সোমবার সুপ্রিম কোর্ট

ফায়ার ক্র্যাকার এসোসিয়েশনের হয়ে সওয়াল করছেন সিদ্ধার্থ ভাটনগর পরিবেশবান্ধব বাজি ব্যবহারের পক্ষে সুপ্রিম কোর্টের ৩টি এবং ন্যাশনাল গ্রিন ট্রাইব্যুনালের ২টি রায় রয়েছে। অথচ কলকাতা হাই কোর্ট এই বাজির উপর সম্পূর্ণ নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে।

তিনি এনজিটি-র ২০২০-র রায়টি উল্লেখ করেন। এ ছাড়া বলেন, সুপ্রিম কোর্ট রায়ে বলেছে মাঝারি থেকে খুব ভাল বাতাস হলে পরিবেশবান্ধব বাজি ব্যবহার করা যাবে। ২৯ অক্টোবর ২০২১-র ওই সর্বোচ্চ আদালতের ওই নির্দেশ বলে দিচ্ছে, আতশবাজির ব্যবহার সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ নয়।

কলকাতা হাই কোর্ট নির্দেশে বলেছে, বাস্তবের মাটিতে দাঁড়িয়ে কোনটা গ্রিন ক্র্যাকার তা নির্দিষ্ট ভাবে বলা সম্ভব নয়। কোনও কার্যকর পদ্ধতিও এই মুহূর্তে রাজ্যে নেই।

তেলেঙ্গানা হাই কোর্ট বাজি সম্পূর্ণ বন্ধ নিয়ে নির্দেশ প্রসঙ্গে সুপ্রিম কোর্ট কী বলেছিল? তা উল্লেখ করেন।

মালবিকা ত্রিবেদী, শিলিগুড়ি ফায়ার ক্র্যাকার এসোসিয়েশন:

বাজির বাস্তবিক সমস্যাগুলো বুঝেই সুপ্রিম কোর্ট অর্ডার দিয়েছিল। কিন্তু সম্পূর্ণ বন্ধ করেনি।

বিচারপতি রাস্তগি: ব্যবহারিক সমস্যাগুলো সরকারের মাথায় রাখা উচিত।

বিচারপতি খানউইলকর: তবে এই ব্যবহারিক অসুবিধা গুলো কী হাই কোর্ট তা নির্দিষ্ট করে বলেনি।

গোপাল শঙ্করনারায়ণ, মামলাকারীদের আইনজীবী:

আমার দেখেছি যে প্রস্তুতকারক সংস্থাগুলি ক্রমাগত পরিবেশ বান্ধব নয় এমন পর্দাথ দিয়ে বাজি তৈরি করছেন।

সিবিআই কয়েক কেজি বরিয়াম উদ্ধার করেছে। যা বাজি তৈরিতে নিষিদ্ধ। এ নিয়ে সুপ্রিম কোর্ট আগে যে নির্দেশ দিয়েছিল তা মানা হয়নি।

হাই কোর্ট রায়ে বলেছে সবুজ বাজি শনাক্তকরণে রাজ্য কোনও ব্যবস্থা তৈরি করেনি। নাগরিকদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা ও প্রস্তুতকারকদের স্বার্থ রক্ষায় হাই কোর্টের যুক্তির ভারসাম্য রয়েছে।

আনন্দ: আমরা সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ কার্যকর করছি।

একটি আয়াপ রয়েছে।

বেঞ্চ: হাই কোর্ট হয়তো ওই ব্যবস্থাই সন্তুষ্ট ছিল না।

আনন্দ: হাই কোর্টের ভিত্তিহীন আশঙ্কা রয়েছে।

পদ্ধতি রয়েছে। পুলিশের app আছে। 2018 থেকে আমরা প্রয়োগ করছি। আমরা এফআইআর নথিভুক্ত করেছি।

বেঞ্চ: কয়টি এফআইআর নথিভুক্ত?

গ্রোভার: ২০১৮ সালে ২৪টি এফআইআর নথিভুক্ত করা হয়েছিল এবং ৪৬ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল।

এই মাসে ৭টি এফআইআর হয়েছে। এবং ১০ জন গ্রেফতার হয়েছে।

বেঞ্চ: রাজ্য দূষণ বোর্ড সবুজ ক্র্যাকারগুলির কোনও যাচাই করে কিনা?
বেঞ্চ: যে পণ্য আমদানি করা হয় তা যাচাই করা পুলিশের পক্ষে সম্ভব নয়।
রাজ্যকে বেঞ্চ: আপনাকে মেকানিজম শক্তিশালী করতে হবে।

গ্রোভার: পুলিশ নিয়মিত বাজারে যায়।
বেঞ্চ: আমদানির পর্যায়ে যাচাই-বাছাই করা যেতে পারে।

গ্রোভার: আমাকে লজিস্টিক কি চেক আপ করতে হবে। আমরা নিরলসভাবে তা বাস্তবায়ন করেছি। আমি রাজ্যের কাছে আপনাকে লর্ডশিপের পরামর্শ দেব

গ্রোভার: রাজ্য দূষণ বোর্ড বলেছে যে কোনও নিবন্ধিত সবুজ পটকা প্রস্তুতকারক নেই।

অ্যাড ত্রিবেদী: সবুজ পটকা ইতিমধ্যে খুচরা বিক্রেতাদের কাছে পৌঁছে গেছে। QR কোড ব্যবস্থা ইতিমধ্যেই রয়েছে৷ অতীতে যা ঘটেছে তা স্ক্যান করে সহজেই করা যায়। স্ক্যান করে আপনি জানেন যে কোনটি সবুজ ক্র্যাকার এবং নকল পটকা।

অ্যাডভ রাখমানি (হাইকোর্টে আবেদনকারীর পক্ষে উপস্থিত ছিলেন): QR কোড চেক করার কাজটি এন্ট্রি পয়েন্টে করতে হবে। সময়ের স্বল্পতার কারণে, এটি পটকাবাজি জড়িত উৎসবের মাস।
বেঞ্চ: দূষণের মাত্রা খারাপের চেয়ে খারাপ বা খারাপ হলে বিক্রি বন্ধ করতে হবে।

**বেঞ্চ: কোনো ঘটনা ঘটলে পুলিশ ব্যবস্থা নিতে পারে। কোভিড পরিস্থিতি নিয়ে আমাদের এসসির একাধিক আদেশ রয়েছে।

বেঞ্চ: ব্যবহারিক অসুবিধা বলতে কী বোঝ? আদালতে এ নিয়ে বিতর্ক হয়নি হঠাৎ করেই এ আদেশ এসেছে।

**অ্যাডঃ রাখামনি: রাজ্যকে হাসপাতাল থেকে দূরে আতশবাজি ফাটার জন্য খোলা মাঠ চিহ্নিত করতে হবে।
বেঞ্চ: SC দ্বারা সবকিছু নির্দিষ্ট করা হয়েছে। আমাদের সিদ্ধান্ত নিতে হবে এমন নতুন কিছু নেই।

রাখমণি: আপনার লর্ডশিপ অনুমতি দিলেও, জায়গাগুলোকে সীমাবদ্ধ করতে হবে। আতশবাজি ফাটানোর জন্য কোনো সীমাবদ্ধ এলাকা নেই। এমনকি পশ্চিমবঙ্গ দূষণ পর্ষদও কিছু জানায়নি।

বেঞ্চ: এটা সম্পূর্ণ নিষেধাজ্ঞা হতে পারে না। অপব্যবহার বন্ধ করার জন্য ব্যবস্থাকে শক্তিশালী করুন। এই প্রক্রিয়াটি জাতীয় পরিবেশ আদালত এবং সুপ্রিমকোর্টের দ্বারা নির্দিষ্ট করা হয়েছে৷

রাখামনি: আমাকে বলা হয়েছে ওড়িশা হাইকোর্ট সম্পূর্ণ নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে।

বেঞ্চ: ধারাবাহিকতা থাকতে হবে। উড়িষ্যা হাইকোর্টের আদেশকে চ্যালেঞ্জ করা হোক।

আদেশ: কীভাবে কেবলমাত্র যথাযথভাবে প্রত্যয়িত সবুজ পটকা বিক্রির অনুমতি দেওয়া যেতে পারে তা আদালতের সামনে বাস্তবিক বাস্তবতা এবং রাজ্যের দ্বারা স্থাপিত ব্যবস্থার অভাব দ্বারা প্রভাবিত হয়ে হাইকোর্ট কম্বল অর্ডার পাস করতে এগিয়ে যায়।

আদেশ: এই দিকটি নিয়ে কখনোই বিতর্ক হয়নি।

আদেশ: আমরা নিশ্চিত যে হাইকোর্ট সম্পূর্ণ নিষেধাজ্ঞা আরোপ করতে চাইলে, হাইকোর্ট দলগুলোকে আহ্বান করত।

আদেশ: এই আদালত প্রকৃতপক্ষে আতশবাজি তৈরি এবং বিক্রয়ের ক্ষেত্রে এনজিটি দ্বারা বর্ণিত ব্যবস্থার পুনরাবৃত্তি করেছে। শাসন ​​থেকে সরে যেতে হলে নির্বাহী বিভাগের নিষ্ক্রিয়তা বা সংঘর্ষের পদ্ধতি সহ চরম অবস্থানের কিছু উল্লেখ করতে হবে।

আদেশ: দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদ জমা দেয় যে কর্তৃপক্ষ ব্যবস্থা নিচ্ছে। সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের কোনো নিষ্ক্রিয়তা থাকলে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
আমরা প্রদত্ত এই আশ্বাস গ্রহণ করি।

আদেশ: আমরা বাতিল আদেশকে একপাশে রেখেছি এবং রেকর্ডে থাকা উপাদানের ভিত্তিতে যেকোন ব্যক্তিকে উচ্চ আদালতে যাওয়ার অনুমতি দিই।

আদেশ: আপাতত আমরা শুধুমাত্র ২৯ শে অক্টোবর ২০২১-এ সুপ্রিম কোর্টের অবস্থান পুনর্ব্যক্ত করছি।
অতিরিক্তভাবে পশ্চিমবঙ্গ সরকার কোনো নিষিদ্ধ উপকরণ আমদানি না করার সম্ভাবনা অন্বেষণ করবে। ব্যবস্থা জোরদার হতে পারে।

আদেশ: মিঃ লখমনি জমা দিয়েছেন যে হাইকোর্ট শুনানির সময় উল্লেখ করেছে যে এমন কোনও নিশ্চিত ব্যবস্থা নেই যা বিশ্বব্যাংকের রাজ্যে অনুমোদিত নয় এমন আতশবাজির অবৈধ আমদানি নিশ্চিত করতে পারে বা এর ব্যবহারের আবেদনটি নিষ্পত্তি করা হয়। তাই কলকাতা হাই কোর্টের রায়কে চ্যালেঞ্জ করে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হন তাঁরা। ওই মামলার শুনানিতেই সোমবার সুপ্রিম কোর্ট
ফায়ার ক্র্যাকার এসোসিয়েশনের হয়ে সওয়াল করছেন সিদ্ধার্থ ভাটনগর পরিবেশবান্ধব বাজি ব্যবহারের পক্ষে সুপ্রিম কোর্টের ৩টি এবং ন্যাশনাল গ্রিন ট্রাইব্যুনালের ২টি রায় রয়েছে। অথচ কলকাতা হাই কোর্ট এই বাজির উপর সম্পূর্ণ নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে।

তিনি এনজিটি-র ২০২০-র রায়টি উল্লেখ করেন। এ ছাড়া বলেন, সুপ্রিম কোর্ট রায়ে বলেছে মাঝারি থেকে খুব ভাল বাতাস হলে পরিবেশবান্ধব বাজি ব্যবহার করা যাবে। ২৯ অক্টোবর ২০২১-র ওই সর্বোচ্চ আদালতের ওই নির্দেশ বলে দিচ্ছে, আতশবাজির ব্যবহার সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ নয়।

কলকাতা হাই কোর্ট নির্দেশে বলেছে, বাস্তবের মাটিতে দাঁড়িয়ে কোনটা গ্রিন ক্র্যাকার তা নির্দিষ্ট ভাবে বলা সম্ভব নয়। কোনও কার্যকর পদ্ধতিও এই মুহূর্তে রাজ্যে নেই।
তেলেঙ্গানা হাই কোর্ট বাজি সম্পূর্ণ বন্ধ নিয়ে নির্দেশ প্রসঙ্গে সুপ্রিম কোর্ট কী বলেছিল? তা উল্লেখ করেন।
মালবিকা ত্রিবেদী, শিলিগুড়ি ফায়ার ক্র্যাকার এসোসিয়েশন:
বাজির বাস্তবিক সমস্যাগুলো বুঝেই সুপ্রিম কোর্ট অর্ডার দিয়েছিল। কিন্তু সম্পূর্ণ বন্ধ করেনি।
বিচারপতি রাস্তগি: ব্যবহারিক সমস্যাগুলো সরকারের মাথায় রাখা উচিত।

বিচারপতি খানউইলকর: তবে এই ব্যবহারিক অসুবিধা গুলো কী হাই কোর্ট তা নির্দিষ্ট করে বলেনি।
গোপাল শঙ্করনারায়ণ, মামলাকারীদের আইনজীবী:
আমার দেখেছি যে প্রস্তুতকারক সংস্থাগুলি ক্রমাগত পরিবেশ বান্ধব নয় এমন পর্দাথ দিয়ে বাজি তৈরি করছেন।
সিবিআই কয়েক কেজি বরিয়াম উদ্ধার করেছে। যা বাজি তৈরিতে নিষিদ্ধ। এ নিয়ে সুপ্রিম কোর্ট আগে যে নির্দেশ দিয়েছিল তা মানা হয়নি।
হাই কোর্ট রায়ে বলেছে সবুজ বাজি শনাক্তকরণে রাজ্য কোনও ব্যবস্থা তৈরি করেনি। নাগরিকদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা ও প্রস্তুতকারকদের স্বার্থ রক্ষায় হাই কোর্টের যুক্তির ভারসাম্য রয়েছে।
আনন্দ: আমরা সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ কার্যকর করছি।

একটি আয়াপ রয়েছে।
বেঞ্চ: হাই কোর্ট হয়তো ওই ব্যবস্থাই সন্তুষ্ট ছিল না।
আনন্দ: হাই কোর্টের ভিত্তিহীন আশঙ্কা রয়েছে।
পদ্ধতি রয়েছে। পুলিশের app আছে। ২০১৮থেকে আমরা প্রয়োগ করছি। আমরা এফআইআর নথিভুক্ত করেছি।

বেঞ্চ: কয়টি এফআইআর নথিভুক্ত?
গ্রোভার: ২০১৮ সালে ২৪টি এফআইআর নথিভুক্ত করা হয়েছিল এবং ৪৬ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল।
এই মাসে ৭টি এফআইআর হয়েছে। এবং ১০ জন গ্রেফতার হয়েছে।
বেঞ্চ: রাজ্য দূষণ বোর্ড সবুজ ক্র্যাকারগুলির কোনও যাচাই করে কিনা?
বেঞ্চ: যে পণ্য আমদানি করা হয় তা যাচাই করা পুলিশের পক্ষে সম্ভব নয়।
রাজ্যকে বেঞ্চ: আপনাকে মেকানিজম শক্তিশালী করতে হবে।
গ্রোভার: পুলিশ নিয়মিত বাজারে যায়।
বেঞ্চ: আমদানির পর্যায়ে যাচাই-বাছাই করা যেতে পারে।
গ্রোভার: আমাকে লজিস্টিক কি চেক আপ করতে হবে। আমরা নিরলসভাবে তা বাস্তবায়ন করেছি। আমি রাজ্যের কাছে আপনাকে লর্ডশিপের পরামর্শ দেব
গ্রোভার: রাজ্য দূষণ বোর্ড বলেছে যে কোনও নিবন্ধিত সবুজ পটকা প্রস্তুতকারক নেই।
অ্যাড ত্রিবেদী: সবুজ পটকা ইতিমধ্যে খুচরা বিক্রেতাদের কাছে পৌঁছে গেছে। QR কোড ব্যবস্থা ইতিমধ্যেই রয়েছে৷ অতীতে যা ঘটেছে তা স্ক্যান করে সহজেই করা যায়। স্ক্যান করে আপনি জানেন যে কোনটি সবুজ ক্র্যাকার এবং নকল পটকা।

অ্যাডভ রাখমানি (হাইকোর্টে আবেদনকারীর পক্ষে উপস্থিত ছিলেন): QR কোড চেক করার কাজটি এন্ট্রি পয়েন্টে করতে হবে। সময়ের স্বল্পতার কারণে, এটি পটকাবাজি জড়িত উৎসবের মাস।
বেঞ্চ: দূষণের মাত্রা খারাপের চেয়ে খারাপ বা খারাপ হলে বিক্রি বন্ধ করতে হবে।

বেঞ্চ: কোনো ঘটনা ঘটলে পুলিশ ব্যবস্থা নিতে পারে। কোভিড পরিস্থিতি নিয়ে আমাদের এসসির একাধিক আদেশ রয়েছে।

বেঞ্চ: ব্যবহারিক অসুবিধা বলতে কী বোঝ? আদালতে এ নিয়ে বিতর্ক হয়নি হঠাৎ করেই এ আদেশ এসেছে।

অ্যাডঃ রাখামনি: রাজ্যকে হাসপাতাল থেকে দূরে আতশবাজি ফাটার জন্য খোলা মাঠ চিহ্নিত করতে হবে।
বেঞ্চ: SC দ্বারা সবকিছু নির্দিষ্ট করা হয়েছে। আমাদের সিদ্ধান্ত নিতে হবে এমন নতুন কিছু নেই।

রাখমণি: আপনার লর্ডশিপ অনুমতি দিলেও, জায়গাগুলোকে সীমাবদ্ধ করতে হবে। আতশবাজি ফাটানোর জন্য কোনো সীমাবদ্ধ এলাকা নেই। এমনকি পশ্চিমবঙ্গ দূষণ পর্ষদও কিছু জানায়নি।

বেঞ্চ: এটা সম্পূর্ণ নিষেধাজ্ঞা হতে পারে না। অপব্যবহার বন্ধ করার জন্য ব্যবস্থাকে শক্তিশালী করুন। এই প্রক্রিয়াটি জাতীয় পরিবেশ আদালত এবং সুপ্রিমকোর্টের দ্বারা নির্দিষ্ট করা হয়েছে৷
রাখামনি: আমাকে বলা হয়েছে ওড়িশা হাইকোর্ট সম্পূর্ণ নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে।
বেঞ্চ: ধারাবাহিকতা থাকতে হবে। উড়িষ্যা হাইকোর্টের আদেশকে চ্যালেঞ্জ করা হোক।
আদেশ: কীভাবে কেবলমাত্র যথাযথভাবে প্রত্যয়িত সবুজ পটকা বিক্রির অনুমতি দেওয়া যেতে পারে তা আদালতের সামনে বাস্তবিক বাস্তবতা এবং রাজ্যের দ্বারা স্থাপিত ব্যবস্থার অভাব দ্বারা প্রভাবিত হয়ে হাইকোর্ট কম্বল অর্ডার পাস করতে এগিয়ে যায়।

আদেশ: এই দিকটি নিয়ে কখনোই বিতর্ক হয়নি।
আদেশ: আমরা নিশ্চিত যে হাইকোর্ট সম্পূর্ণ নিষেধাজ্ঞা আরোপ করতে চাইলে, হাইকোর্ট দলগুলোকে আহ্বান করত।

আদেশ: এই আদালত প্রকৃতপক্ষে আতশবাজি তৈরি এবং বিক্রয়ের ক্ষেত্রে এনজিটি দ্বারা বর্ণিত ব্যবস্থার পুনরাবৃত্তি করেছে। শাসন ​​থেকে সরে যেতে হলে নির্বাহী বিভাগের নিষ্ক্রিয়তা বা সংঘর্ষের পদ্ধতি সহ চরম অবস্থানের কিছু উল্লেখ করতে হবে।

আদেশ: দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদ জমা দেয় যে কর্তৃপক্ষ ব্যবস্থা নিচ্ছে। সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের কোনো নিষ্ক্রিয়তা থাকলে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
আমরা প্রদত্ত এই আশ্বাস গ্রহণ করি।

আদেশ: আমরা বাতিল আদেশকে একপাশে রেখেছি এবং রেকর্ডে থাকা উপাদানের ভিত্তিতে যেকোন ব্যক্তিকে উচ্চ আদালতে যাওয়ার অনুমতি দিই।

আদেশ: আপাতত আমরা শুধুমাত্র 29শে অক্টোবর ২০২১-এ সুপ্রিম কোর্টের অবস্থান পুনর্ব্যক্ত করছি।
অতিরিক্তভাবে পশ্চিমবঙ্গ সরকার কোনো নিষিদ্ধ উপকরণ আমদানি না করার সম্ভাবনা অন্বেষণ করবে। ব্যবস্থা জোরদার হতে পারে।

আদেশ: মিঃ লখমনি জমা দিয়েছেন যে হাইকোর্ট শুনানির সময় উল্লেখ করেছে যে এমন কোনও নিশ্চিত ব্যবস্থা নেই যা বিশ্বব্যাংকের রাজ্যে অনুমোদিত নয় এমন আতশবাজির অবৈধ আমদানি নিশ্চিত করতে পারে বা এর ব্যবহারের আবেদনটি নিষ্পত্তি করা হয়।