Date : 2022-01-26

সাসপেনশন প্রত্যাহারের দাবিতে বিক্ষোভ, বিরোধী সাংসদদের ওয়াকআউট

মাম্পি রায়, নিউজ ডেস্ক : বিরোধী দলের ১২জন সাংসদকে সাসপেন্ড করেছিলেন রাজ্যসভার চেয়ারম্যান বেঙ্কাইয়া নাইডু। তাঁদের সাসপেনশন প্রত্যাহারের আর্জিও জানানো হয়। কিন্তু সেই আবেদন খারিজ করেন রাজ্যসভার চেয়ারম্যান। প্রতিবাদে রাজ্যসভা থেকে ওয়াকআউট করেন বিরোধীদলের সাংসদরা।  

বাদল অধিবেশনে হট্টগোলের জেরে সোমবারই নজিরবিহীনভাবে ১২ জন বিরোধী সাংসদকে সাসপেন্ড করা হয়। তালিকায় ছিলেন তৃণমূলের দুই রাজ্যসভার সাংসদ দোলা সেন, শান্তা ছেত্রী। এছাড়া ৬জন কংগ্রেস সাংসদ, ১জন সিপিএম সাংসদ, ১জন সিপিআই সাংসদ এবং ২জন শিবসেনা সাংসদ। তারই প্রতিবাদে বিক্ষোভ দেখান বিরোধী দলের সাংসদরা। যদিও আলাদা আলাদাভাবে বিক্ষোভ দেখায় কংগ্রেস ও তৃণমূল কংগ্রেস।

রাজ্যসভার বিরোধী দলনেতা তথা কংগ্রেস সাংসদ মল্লিকার্জুন খাড়গে প্রশ্ন তোলেন, বিক্ষোভ হয়েছিল বাদল অধিবেশনে। তার জেরে শীতকালীন অধিবেশনে কীভাবে পদক্ষেপ নেওয়া হয়?

যদিও রাজ্যসভার চেয়ারম্যান নাউডু জানান, সংসদ শান্তিপূর্ণভাবে চালাতে সাংসদদের বিরুদ্ধে চাইলেই পদক্ষেপ করতে পারেন তিনি।

উল্লেখ্য, সংসদের বাদল অধিবেশনের শেষদিন পেগাসাস ইস্যুতে রাজ্যসভার ওয়েলে নেমে বিক্ষোভ দেখিয়েছিলেন বিরোধী দলের সাংসদরা। মোদী সরকারের বিরুদ্ধে স্লোগানের পাশাপাশি কাগজ ছিঁড়ে প্রতিবাদ করেন তাঁরা। ওই সাংসদদের শাস্তির দাবিতে সরব হয়েছিলেন সরকারপক্ষের সাংসদরা। শীতকালীন অধিবেশনের শুরুতেই অভিযুক্ত ১২ সাংসদের শাস্তির দাবিতে প্রস্তাব আনেন তাঁরা। তার ভিত্তিতেই পুরো শীতকালীন অধিবেশন থেকে সাসপেন্ড করা হয় তাঁদের।

 নাইডু বলেন, গতবারের তিক্ত অভিজ্ঞতা তাঁর মনে আছে। যদিও রাজ্যসভার চেয়ারম্যান বেঙ্কাইয়া নাইডুর বক্তব্য মানতে চাননি বিরোধী দলের সাংসদরা। সাসপেন্ড হওয়া ১২জন সাংসদের সাসপেনশনের প্রতিবাদে রাজ্যসভা থেকে ওয়াকআউট করেন তাঁরা।

সোমবার থেকে শুরু হয়েছে সংসদের শীতকালীন অধিবেশন। কৃষি আইনের পাশাপাশি ন্যূনতম সহায়ক মূল্য, মুদ্রাস্ফীতি, পেট্রোপণ্যের মূল্যবৃদ্ধি নিয়েও সরব হতে পারেন বিরোধী দলের সাংসদরা। বিরোধী বিক্ষোভে সংসদে ব্যাপক হইহট্টগোল হওয়ার আশঙ্কাও রয়েছে। সরকারপক্ষকে আক্রমণের জন্য মুখিয়ে রয়েছেন বিরোধীরা। এই পরিস্থিতিতে একসঙ্গে ১২জন সাংসদকে সাসপেন্ড করে দেওয়ার ঘটনা যথেষ্ট তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের একাংশ।