Date : 2022-05-25

নাগাল্যান্ড ইস্যুতে সংসদে বিবৃতি আমিত শাহর, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর পদত্যাগের দাবি তৃণমূলের

মাম্পি রায়, নিউজ ডেস্ক : নাগাল্যান্ডে সেনাবাহিনীর গুলি চালানোর ঘটনায় ক্রমশ  চড়ছে রাজনৈতিক পারদ। এই ইস্যুতে  লোকসভা  এবং রাজ্যসভায় মুলতুবি প্রস্তাব পেশ করে তৃণমূল ও কংগ্রেস। নাগাল্যান্ড ইস্যুতে আলোচনা দাবি করেন বিরোধী দলের সাংসদরা। প্রচুর হইহট্টগোলও চলে। অবশেষে বাধ্য হয়ে সংসদের দুই কক্ষেই বিবৃতি পেশ করেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ।  তিনি জানান, শনিবার রাতে নাগাল্যান্ডের মন জেলার ওটিং গ্রামের কাছে জঙ্গি সন্দেহে ভুল করে খনি শ্রমিকদের গাড়িতে গুলি চালিয়েছিল সেনা। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ বলেন, গাড়ির 8 যাত্রীর মধ্যে ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় ৬ জনের। ঘটনার পর ক্ষুব্ধ গ্রামবাসীরা আসাম রাইফেলসের শিবিরে চড়াও হন। আত্মরক্ষার্থে গুলি চালাতে বাধ্য হন জওয়ানরা। ঘটনার নিরপেক্ষ তদন্তের জন্য সিট গঠন করা হচ্ছে বলে জানান কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। তিনি আরও বলেন, ঘটনার প্রাথমিক অনুসন্ধানের জন্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের অতিরিক্ত সচিব পর্যায়ের এক আধিকারিক কোহিমায় গিয়েছেন।

শনিবার রাতেই নাগাল্যান্ডে সেনাবাহিনীর গুলিতে নিরীহ গ্রামবাসীদের মৃত্যুর ঘটনায় প্রতিবাদ জানিয়েছিল তৃণমূল কংগ্রেস। পরেই তৃণমূল ঘোষণা করে তাদের দলের তরফে ৫ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল সোমবার যাবেন নাগাল্যান্ডে।  প্রতিনিধিদলে ছিলেন রাজ্যসভার তৃণমূল সাংসদ শান্তনু সেন ও সুস্মিতা দেব, লোকসভার তৃণমূল সাংসদ অপরূপা পোদ্দার ও প্রসূন বন্দ্যোপাধ্যায় এবং মিজোরামের প্রাক্তন অ্যাটর্নি জেনারেল বিশ্বজিৎ দেব।  কিন্তু নাগাল্যান্ডে ১৪৪ ধারা জারি থাকায় বোর্ডিং পাস থাকা সত্বেও ফিরে আসার সিদ্ধান্ত নেন তৃণমূল নেতৃত্ব। ফিরে এসে সংবাদ সম্মেলন করে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহকে আক্রমণ শানায় তৃণমূলের প্রতিনিধিদল।

মিজোরামের প্রাক্তন এজি বিশ্বজিৎ দেব বলেন, তৃণমূল খবর পেয়েছিল জোরহাট থেকে তাঁদের বেরোতে দেওয়া হবে না। তাই সেখানে যাওয়ার সিদ্ধান্ত বাতিল করা হয়। মৃতদের পরিবার এবং স্থানীয় মানুষের পাশে দাঁড়ানোর জন্যই যাচ্ছিল তৃণমূলের প্রতিনিধিদল। নাগাল্যান্ড সরকার এবং কেন্দ্রের মোদী সরকার এই রাজ্যের সমস্যা মেটাতে সম্পূর্ণ ব্যর্থ। রাজ্যসভার সাংসদ সুস্মিতা দেব বলেন, ‌একের পর এক গ্রামবাসীকে যখন নির্বিচারে হত্যা করা হচ্ছিল, তখন দেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কী করছিলেন? গোটা ঘটনার জবাবদিহি করতে হবে তাঁকে।  নাগাল্যান্ডের ঘটনা দেশের প্রতিরক্ষা ক্ষেত্রে বিরাট ব্যর্থতা। অমিত শাহর পদত্যাগের দাবিও জানান তিনি।  তৃণমূল কংগ্রেসকে রুখতেই নাগাল্যান্ডে ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে বলে ক্ষোভ উগড়ে দেন রাজ্যসভার তৃণমূল সাংসদ শান্তনু সেন। তিনি আরও বলেন, মোদী সরকারের আমলে যখন হু হু করে জিনিসপত্রের দাম বাড়ছে তখন কমছে মানুষের জীবনের মূল্য। দেশের প্রধানমন্ত্রী তো এত নিরাপত্তা নিয়ে থাকেন। দেশবাসীর নিরাপত্তা কোথায়? প্রশ্ন তোলেন তিনি।