Date : 2022-05-29

বাম আমলের রুগ্নপ্রায় হাসপাতালের নবজীবন ফিরে পেল দক্ষিণ দাঁড়িরই প্রাথমিক হাসপাতালের

ষষ্ঠী চট্টোপাধ্যায়, রিপোর্টার:- দক্ষিন দমদম পুরসভা এলাকার অন্তর্গত দক্ষিণ দাড়ি একদা সামজবিরোধীদের দৌরাত্ম্য মাঝে মধ্যেই উত্তপ্ত হয়ে উঠত।দিনে দুপুরে সর্বক্ষণই অশান্তি লেগেই থাকতো।এই এলাকার নাম শুনলেই মানুষ ভয় পেতেন।বর্তমানে এলাকার পৌরপিতার উদ্যোগে এলাকায় শান্তিশৃঙ্খলা ফিরে এসেছে।লেগেছে উন্নয়নের ছোঁয়া ।আজ সবই যেন ইতিহাস।
রাজ্যের স্বাস্থ্য ব্যাবস্থা ঢেলে সাজিয়েছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।জেলায় জেলায় তৈরি হয়েছে সুপার স্পেশালিটি হাসপাতাল।শুধু তাই নয়, চিকিৎসা পরিষেবা থেকে যাতে মানুষ বঞ্চিত না হন সে কথা মাথায় রেখে পরিবার পিছু ৫ লক্ষ টাকা করে স্বাস্থ্য সাথী কার্ড তুলে দেওয়া হয়েছে মানুষের হাতে।

স্বাস্থ্যসাথী কার্ড শুধুমাত্র যে এরাজ্যে ক্ষেত্রেই গ্রহণযোগ্য এমনটাও নয়, ভিনরাজ্যে তাঁর পরিষেবা পেয়ে আসছেন রাজ্যের মানুষ।
বড় কোন চিকিৎসা করার আগে চিকিৎসকরা রোগীদের বেশকিছু পরীক্ষা নিরীক্ষা করতে দেন, যা যথেষ্টই ব্যায়বহুল।অনেকের পক্ষে তা সম্ভব পর হয়ে ওঠে না।সেই সমস্ত মানুষের কথা মাথায় রেখেই রাজ্যের অগ্নিনির্বাপক ও জরুরী পরিষেবা দফতরের মন্ত্রী সুজিত বসু তাঁর বিধানসভা এলাকায় এক কোটি টাকার মূল্যে অত্যাধুনিক চিকিৎসা যন্ত্রপাতি ব্যবস্থাপনা করলেন।
দক্ষিণ দমদম পুরসভার ৩৫ নম্বর ওয়ার্ডর পৌর পিতা তথা প্রশাসক মন্ডলীর অন্যতম সদস্য পার্থ ভার্মার উদ্যোগে দক্ষিণদাড়ি হাসপাতালের পরিষেবা অনেকটাই উন্নত মানের হয়েছে।২০০৯সালের পর এলাকার একমাত্র হাসপাতালের পরিষেবা প্রায় বন্ধ হতে চলেছিল।সেই হাসপাতাল কে পুনজীবন দিয়েছিল সকলের প্রিয়টিঙ্কু দা।হাসপাতালে এখন সল্পমূল্যে অল্ট্রাসোনোগ্রাফি, ডিজিটাল এক্সরে, থেকে অত্যাধুনিক দাঁতের চিকিৎসার প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম যা এলাকাবাসী খানিকটা আর্থিক নিরাময় হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।