Date : 2022-05-27

“টক টু মেয়র”- পুরসভার আধিকারিকের উদাসীনতায় মেজাজ হারালেন মেয়র

ষষ্ঠী চট্টোপাধ্যায়, রিপোর্টার : কলকাতা পুরসভায় শনিবার মধ্যাহ্নে টক-টু-মেয়র অনুষ্ঠানে আধিকারিকদের চরম উদাসীনতার কারণে ক্ষোভ প্রকাশ করে টক টু মেয়র অনুষ্ঠানে মেয়র ফিরহাদ হাকিম বলেন আমাকে মেয়র পদ ছেড়ে দিতে হবে, নয় ডিজি কে বদলি করতে হবে।কলকাতা পুরসভার ১ নম্বর ওয়ার্ডের ৫১ এ পি সি রোড ড্রেইনেজ সমস্যা রয়েছে।বহুদিনের বাড়ি থেকে জল বেরোচ্ছে না। সেই অভিযোগ করেন দিব্যেন্দুবাবু ।এর আগেও দুবার অভিযোগ জানিয়ে কাজ হয়নি বলে জানান তিনি ।গণপতি অ্যাপার্টমেন্ট তাদের বাড়ির সমস্ত ড্রেনেজ শুধুমাত্র এলাকায় ড্রেনেজের রয়েছে। এদিন নিকাশি দফতরের কে নির্দেশ দেন অবিলম্বে সমস্যা সমাধানের।তিনি বলেন আমাকে ফোন করে আমাকে অসম্মান করা হল। নাহলে আমাকে এই জায়গা থেকে ছেড়ে দিতে হবে। কারণ তারা আমাকে ফোন করছেন সমস্যায় পড়ে। নাহলে ডি জি কে বদলি করে দিতে হবে বলে এদিন ক্ষোভ প্রকাশ করেন মেয়র।

বিটি রোডের বাসিন্দা দিব্যেন্দুবাবু ফোন করে নিজের সমস্যার কথা জানান । তাঁর অভিযোগ, “গত বছর দু’বার ফোন করেছিলাম এই সমস্যার জন্য । সাউথ সিঁথি রোড থেকে রবীন্দ্র ভারতী বিশ্ববিদ্যালয় বরাবর নিকাশি নালা আটকে রয়েছে ৷ ফলে আমাদের অ্যাপার্টমেন্ট থেকে জল বেরোচ্ছে না । কিন্তু এখনও এই সমস্যার সমাধান হয়নি ৷ সিঁথির মোড় থেকে বিড়লা ইন্সটিটিউট অফ টেকনোলজি পর্যন্ত গোটা নিকাশি নালা বুজে রয়েছে । মশা মাছির উপদ্রব হচ্ছে ।” তৃতীয় বারের জন্য এই একই অভিযোগ শুনে আধিকারিকদের উপর বেজায় চটে যানমেয়র ফিরহাদ হাকিম ।অভিযোগকারীকে কিছু সময় ফোন ধরে রাখার অনুরোধ করেই ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ডিজি পিকে দুয়াকে মেয়র বলেন, “1 নম্বর বরো কি করছে? এটা ছোটখাটো ব্যাপার । বরো দেখে নেবে, তারপর জানাবে সুয়ারেজ এবং ড্রেনেজ ডিপার্টমেন্টকে । দুয়া সাহেব আপনি গোটা বিষয়টি পর্যবেক্ষণ করে আমাকে রিপোর্ট দিন । সব জায়গায় বলছে পলি তোলার কাজ হচ্ছে, কিন্তু কোথাও কিছু হচ্ছে না । “
দাবি অতীনেরনিজের আপ্তসহায়ককেও ফিরহাদ এদিন বলেন, “এটা তুমি একা পারবে না একটা দফতর তৈরি কর ।” এরপরই ক্ষুব্ধ মেয়র বলেন,”এটা আমার জন্য খুব অসম্মানজনক, আমাকে ফোন‌ করার‌ পরও কর্পোরেশনে কাজ হল না ।‌ আমি কাজ করার জন্য এই পদে আছি, কাজ না হলে আমায় চেয়ার ছাড়তে হবে ৷ তুমি এইরকম ভাবে ক্যাজুয়ালি বিষয়টাকে নিতে পার না । তুমি একজন মেয়রের সঙ্গে কথা বলছ । বলে দিলাম আর হয়ে গেল এটা হতে পারে না । কাজ করতে হবে এবং নিয়মিত নজর রাখতে হবে । সুয়ারেজ অ্যান্ড ড্রেনেজ না করলে তার ডিজিকে পাল্টে দিতে হবে । বিষয়টিকে গুরুত্ব দিয়ে দেখতে হবে ৷ আমার কাছে অভিযোগ আসার পরেও যদি কাজ না হয় তাহলে আমায় পদ ছাড়তে হবে ৷’’