Date : 2022-10-03

CBI রক্ষাকবচে অন্তর্বর্তীকালীন স্বস্তি অনুব্রত মন্ডলের

ষষ্ঠী চট্টোপাধ্যায়, রিপোর্টার:-বৃহস্পতিবার আদালতের নির্দেশ নামায় বলা হয়েছে সিবিআই তদন্তে সবরকম সাহায্য করবেন।
হাইকোর্টের নির্দেশ ছাড়া গ্রেফতার নয় অনুব্রতকে। তিন সপ্তাহের পর মামলার পরবর্তী শুনানিতে CBI রিপোর্ট পেশ করবেন।
অনুব্রত কে তলব করতে হলে আগাম নোটিশ দিতে হবে সিবিআইকে। CBI নোটিশ পাওয়ার পরে তদন্তে সহযোগিতা করবেন অনুব্রত মন্ডল। কেন তিনি বুধবার সাত সকালে রাজ্যের শীর্ষ আদালতের দ্বারস্থ হলেন? কারণ সিবিআই আতঙ্কে তাঁর রাতের ঘুম কেড়েছে। যাঁর ভয়ে বীরভূম জেলায় বাঘে গরুতে এক ঘাটের জল খায় সেই অনুব্রত মন্ডলের। কেন্দ্রীয় তাদনকারী সংস্থা সিবিআইয়ের আধিকারিকদের আতোশ কাচে এখন তিনি।তবে আপতত স্বস্তি বীরভূমের দাপুটে নেতার।

ভোট পরবর্তী হিংসায় ইলামবাজারের গোপালনগর গ্রামে ২ মে খুন হয়েছিলেন বিজেপি নেতা গৌরব সরকার। ভোটের ফল প্রকাশের দিন বিকেলে গোপালনগর গ্রামে শাসকদলের একটি বিজয় মিছিল বের হয়। গৌরব এবং তাঁর ভাই সৌরভ বাড়ির বাইরে দাঁড়িয়েছিলেন। অভিযোগ, মিছিল থেকে কয়েকজন এসে দুই ভাইকে রড দিয়ে মারতে শুরু করে। ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় গৌরবের। সৌরভকে হাসপাতালে ভরতি করা হয়। সেই ঘটনায় মোট ২৪ জনের নামে ইলামবাজার থানায় অভিযোগ দায়ের হয়েছিল। ইলামবাজার থানার পুলিশ প্রথমে ৬ জনকে গ্রেপ্তার করে। পরে তারা জামিনে ছাড়া পেয়ে যায়। পরবর্তী সময়ে হাই কোর্টের নির্দেশে সিবিআই তদন্ত শুরু করে।

আইনজীবী সন্দীপন গাঙ্গুলি — ২৭ জানুয়ারি সিবিআই নোটিশ ইস্যু করে।
সন্দীপন :– অনুব্রত copd রোগী। ৪ সপ্তাহ সময় চেয়ে ছিলাম।
বিচারপতি — কত কিলোমিটার
সন্দীপন :— আমি বোলপুরে থাকি ডেকেছে দুর্গাপুরে
সন্দীপন — ৫৪ কিলোমিটার
সন্দীপন :— আমি মুল অভিযুক্ত নয়। এটা ভোট পরবর্তী হিংসা ঘটনার মামলা
সন্দীপন :— হা
বিচারপতি — কিসের কেস ? আপনি কি মুল অভিযুক্ত?
সিবিআই :— আবেদনকারী আগাম জামিনের আবেদন করে নি।
বিচারপতি:– আপনার আবেদন
১) আপনার জায়গামতো ডাকা হোক
২) রক্ষা কবচ
সিবিআই :— আবেদনকারী যদি গ্রেফতারের আসনখা করে তাহলে আগামজামিন চান নি কেনো?
সিবিআই :– আমরা জিজ্ঞাসা বাদের জন্য ডেকেছি। আগে জিজ্ঞাসা বাদ না করলে কি করে বুঝবো কি তথ্য পাওয়া যাবে।
বিচারপতি :– আপনি কি মনে করছেন হেফাজতের দরকার আছে?
সিবিআই:– আমরা জিজ্ঞাসাবাদের জন্য শুধু নোটিশ দিয়েছি
সিবিআই আইনজীবী এস বি রাজু
সিবিআই :– এই আবেদনের কোনও যৌক্তিকতা নেই
সিবিআই :– অর্ডার রেফার করছে
রাজু :– ৮ সপ্তাহ বাদে আসতে পারতো। রক্ষা কবচ চাইছেন কেনো? উনি ভালো আছেন। তাই ট্রাভেল করছেন।
আমায় একটা মামলায় সুপ্রিম কোর্টের CJ ডাকছেন
রাজু :– আবেদনকারী নোটিসের প্রেক্ষিতে জবাবে বলছে,
হাই ব্লাড সুগার, কিডনির সমস্যা।
৮ সপ্তাহের সময়।
২ য় জবাব :–
ক্রনিক আল্থামা কথা বলছে।
কিন্তু সে প্রতিদিনের কাজ করছে।
৩১ তারিখও সে ট্রাভেল করেছে। তাহলে ক্রনিক আসুসঠার কথা বলছে
বিচারপতি:– ওকে
৫ মিনিট সময় দিন
বিচারপতি:— অবশ্যই উনি আমার ওপরে
অনুব্রত মন্ডলের আইনজীবী সন্দীপন গাঙ্গুলি :– কলকাতা র সিজিও ও নিজাম এ দফতর আছে। এখনকার কেস। সেখানে ডাকতে পারতো। দুর্গাপুরে কেনো ডাকা হলো। তাহলে বীরভূমে যেতে সিবিআই এর অসুবিধা কোথায়?
সন্দীপন :– ১৪ তারিখে আমি ১ম নোটিস পাই । আমি উত্তর দিয়েছি।
তারপর ২৭ ২ য় নোটিস পাই।
উত্তর দিই
আবার ৩১ তারিখে ৩ য় নোটিস দেয়।
সব নোটিশ লখনউ থেকে দেওয়া হচ্ছে।
সিবিআই য়ের ইচ্ছে থাকলে পরিষ্কার ভাবে বলতে পারতো
রাজু :— fir দায়ের হয়েছে কলকাতায়। পুলিশের সাথে সিবিআই এর তদন্তে পার্থক্য আছে। কারণ পুলিশের থানার পরিকাঠামো আছে। কিন্তু সিবিআই পশ্চিমবঙ্গের যে কোনো জায়গায় ডাকতে পারে।
নোটিশ ডেট ভুল হতে পারে আমার
বিচারপতি :— তারমানে আপনার ইছে করলে দর্জিলিংয়ে ডাকতে পারেন? এর কোনও রুল আছে?
বিচারপতি :— আপনার দুটো অফিস কলকাতায় আছে। দুর্গাপুরে কেনো?
রাজু :— দুর্গাপুর বীরভূমের কাছে তাই

সিবিআই বারবার টেকনিক্যাল পয়েন্টে বিচারপতি র প্রশ্নের মুখে
বিচারপতি :– আপনি যেকোনো রাজ্য থেকে ডেকে পাঠাবেন!

বিচারপতি :— ১৬০ নিয়ে টেকনিক্যাল পয়েন্টে সিবিআই কে ধরেছে
রাজু :— ইয়েস সিবিআই তদন্তে ব্যবহার করা জয়
বিচারপতি :— ১৬০ কি সিবিআই তদন্তে ব্যবহার করতে পারেন?
রাজু :— সিবিআই রাজ্যের যেকোনো জায়গায় ডাকতে পারে।
যায়
বিচারপতি :— দিল্লি তে ডাকতে পারে?
রাজু :– রাজ্যের যেকোনো জায়গায়
রাজু :— হাইকোর্টের নির্দেশে সিবিআই তদন্ত করছে। হাইকোর্ট দ্রুত তদন্ত করতে বলেছে।

বিচারপতি:– আপনারা কোথায় জিজ্ঞাসাবাদ করতে চান? দুর্গাপুরে না অন্য কোথাও? আপনি ইচ্ছে করলে দুর্গাপুরে ও ডাকতে পারেন