Date : 2022-05-27

করোনা আবহে দীর্ঘদিন বন্ধ ছিল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। ঠিকমত মেলেনি গবেষকদের ফেলোশিপ। বন্ধ ছিল ল্যাব, ক্ষতিগ্রস্ত গবেষণা

নাজিয়া রহমান, রিপোর্টার : বিশ্ববিদ্যালয়ের মানোন্নয়নের ক্ষেত্রে অনেকটাই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে গবেষণা। অতীতে প্রধানত গবেষণার উপর নির্ভর করে যাদবপুর, কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় দেশ বা বিশ্বের মধ্যে স্থান করেছে। তবে এই করোনাকালে সেই গবেষণা ও গবেষকেরা এখন সবচেয়ে বড় ক্ষতির মুখে বলে মত শিক্ষক মহলের। যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক পার্থ প্রতীম রায়ের মতে, গবেষকদের নিয়মিত মিলছে না ফেলোশিপ। ২০২০ সালের মার্চ মাসের পর থেকে কেন্দ্র ও বিভিন্ন ফান্ডিং এজেন্সিগুলি থেকে পাওয়া প্রজেক্ট ভিত্তিক ফেলোশিপ মিলছেই না প্রায়। পাশাপাশি গবেষণাগরে যে সমস্ত এক্যুইপমেন্ট গুলো ব্যবহার করা হয় সেগুলো ঠিক মত কাজ করছে না, সেগুলি সারাই এর টাকা কেন্দ্র ও রাজ্য কোথাও থেকে মিলছে না বলেও জানান তিনি।

অতিমারি আবহে দীর্ঘদিন বন্ধ ছিল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। বন্ধ ছিল ল্যাব। স্নাতক কিংবা স্নাতকোত্তরের পড়ুয়ারা অনলাইনে ক্লাস করতে পেরেছিল। কিন্তু ল্যাব বন্ধ থাকার জন্য কোনো রকম গবেষণা করতে পারেননি গবেষক পড়ুয়ারা। যা আগামী দিনে বিরাট ক্ষতির মুখে ফেলবে বলে বক্তব্য তাদের। করোনার সংক্রমণ নিম্নমুখী হতেই ছন্দে ফিরছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। কিন্তু দীর্ঘদিন ল্যাব বন্ধ থাকায় গবেষণার ক্ষেত্রে ব্যবহৃত দামী মেটেরিয়াল নষ্ট হয়ে গেছে বলে জানিয়েছেন গবেষকরা। আবার ফেলোশিপ সময়ে পাচ্ছেন না বলে সমস্যা হচ্ছে বলে জানান তারা। এছাড়া দীর্ঘদিন গবেষণা না হওয়ায় তার প্রভাব পড়তে পারে বিশ্ববিদ্যালয় বা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে মানোন্নয়নেও এমনটায় মত গবেষক পড়ুয়া থেকে অধ্যাপকমহলের।