Date : 2022-10-06

বিশ্বের বৃহত্তম ইগলু ক্যাফে গুলমার্গে

রিমিতা রায়, নিউজ ডেস্ক : কাশ্মীরের ইগলু ক্যাফের নাম শুনেছেন? বর্তমানে এটাই পর্যটকদের নয়া আকর্ষণ। বিশ্বের বৃহত্তম ‘ইগলু ক্যাফে’ এখন গুলমার্গে। ক্যাফেটির নাম স্নোগলু। জম্মু-কাশ্মীরের গুলমার্গে নতুন পর্যটন আকর্ষণ। ক্যাফের কর্মীদের দাবি, এটি নাকি বিশ্বের বৃহত্তম ইগলু ক্যাফে। ইগলু ক্যাফেটির স্রষ্টা সৈয়দ ওয়াসিম শাহ। ইগলু ক্যাফের এক কর্মী জানিয়েছেন, আমরা বিশ্ব রেকর্ডের জন্য আবেদন করেছি। এর প্রক্রিয়া চলছে।ক্যাফেটির দুটি ভাগ রয়েছে। একটায় বসার জন্য। অন্যটিতে দেয়াল খোদাই করে বিভিন্ন ডিজাইন করা হয়েছে। বর্তমানে আকারেও বড় করা হয়েছে ইগলু ক্যাফে। গত বছরের ক্যাফেতে চারটি টেবিল রাখা হয়েছিল। একসঙ্গে প্রায় ১৬ জনের মত পর্যটক বসতে পারত ক্যাফেতে। কিন্তু এই বছর সেটি বাড়িয়ে মোট ১০টি টেবিল রাখা হয়েছে। বিশ্বের বৃহত্তম ইগলু ক্যাফের বিচারে শেষ বিশ্ব রেকর্ডটি ২০১৬ সালের। তা ছিল সুইজারল্যান্ডের দখলে। এবার সেই রেকর্ডও ভেঙে স্নোগ্লুর নাম আসবে বলে দাবি করছেন ক্যাফের সদস্যরা।

গিনেস বুক অফ ওয়ার্ল্ড রেকর্ডস অনুসারে, সবচেয়ে বড় ইগলু ক্যাফেটি সুইতজারল্যান্ডে রয়েছে। তার উচ্চতা ৩৩.৮ ফুট। ব্যাস ৪২.৪ ফুট। কাশ্মীরের ইগলু ক্যাফেটির উচ্চতা প্রায় ৩৭.৫ ফুট। ব্যাস ৪৪.৫ ফুট। ক্যাফেটি তৈরি করতে প্রায় ২ মাস সময় লেগেছে। বরফ দিয়ে বানানো ওই ক্যাফেটি দিনরাত এক করে কাজ করে গিয়েছেন মোট ২৫ জন কর্মী। প্রথমে জানা গিয়েছিল, ফেব্রুয়ারির শেষ পর্যন্ত এই ক্যাফেটি জনসাধারণের খোলা থাকবে। পরে সেই সিদ্ধান্ত বাতিল হয়। বরফের স্তর দিয়ে বানানো ইগলুটি ১৫ মার্চ পর্যন্ত খোলা থাকবে। তারপর পর্যটকদের জন্য বন্ধ করে দেওয়া হবে। স্থানীয়দের মধ্যেও এই ক্যাফের আকর্ষণ বেড়েছে। ইগলুর মধ্যে হরেক রকমের খাবার সাথে কফির স্বাদ উপভোগ করতে অনেকে আগে থেকেই বুকিং সেরে রাখছেন। জানা গিয়েছে, একজন পর্যটক ইগলুর মধ্যে টানা ১ ঘণ্টা পর্যন্ত থাকতে পারবে।