Date : 2022-05-27

বিয়ের জন্য ধর্ম পরিবর্তন করেও শেষ রক্ষা হলো না ।পাসপোর্ট এবং আধার কার্ডে বিস্তর গরমিলমামলা খারিজ হাইকোর্টে।

ষষ্ঠী চট্টোপাধ্যায়, রিপোর্টার:- নাম এবং ধর্ম নিয়েই তৈরি হয়েছে ধোঁয়াশা। যে কারণে জেল বন্দি তুষার সুভাষ রায় ওরফে জিয়া শরীফ হোসেন ।চলতি বছরের গোড়াতে তিনি পেট্রাপোল থেকে ভারতে ঢোকার সময় BSF এর হাতে ধরা পড়ার পর দেখা যায় তাঁর পাসপোর্ট, আধার কার্ডের তথ্যের সাথে কোন মিল নেই।
বাবা-মা মুসলিম। থাকেন বাংলাদেশে। আর তিনি থাকেন ভারতে। এক দশক আগে বিয়ের জন্য ধর্ম পরিবর্তন করেছিলেন। পরিবর্তন হয়েছিল নামও। এখন নাগরিকত্বের প্রশ্নে তাই-ই কাঁটা হয়ে দাঁড়াল মুম্বইয়ের বাসিন্দা তুষার সুভাষ রায়ের। পরিচয়পত্রে গরমিল থাকায় জেলেও যেতে হয়েছে। এখন সেই পরিচয় পত্র ফিরে পেতে কলকাতা হাই কোর্টের দ্বারস্থ হয়েও বিমুখ হলেন তুষার। মঙ্গলবার উচ্চ আদালত জানায়, সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষই ওই বিষয়টি বিবেচনা করবেন। তাদের কাজে হস্তক্ষেপ করবে না আদালত।

তুষারের পূর্ব নাম জিয়া শরীফ হোসেন। ২০০৮ সালে বিয়ে করেন মুম্বইয়ের এক তরুণীকে। জানা গিয়েছে, বিয়ের জন্যই মুসলিম ধর্ম ত্যাগ করে হিন্দু হন তিনি।কিন্তু ১৮ বছর ধরে পাসপোর্টে তাঁর পূর্ব নামই রয়েছে। ২০০৬ সালের পর ২০১৬ সালে পাসপোর্ট পুনর্নবীকরণের (রিনিউ) সময়ও তিনি নতুন নাম ব্যবহার করেননি। আবার আধার কার্ডেও রয়েছে সেই পুরনো নাম। সোমবার কেন্দ্রীয় সরকারের আইনজীবী অমাজিত দে হাই কোর্টকে জানান, ওই ব্যক্তি কোন দেশের বাসিন্দা তা নিয়ে ধোঁয়াশা রয়েছে। প্রায়ই তিনি বাংলাদেশে যান। বছর পশ্চিমবঙ্গের পেট্রাপোল সীমান্ত দিয়ে এ রাজ্যে ঢোকার সময় পরিচয়পত্রে গরমিল লক্ষ্য করা যায়। তার পরই তুষারের পাসপোর্ট এবং আধার কার্ড বাজেয়াপ্ত করে বিএসএফ। নিম্ন আদালতের নির্দেশে এখন সেগুলির যাচাইয়ের কাজ চলছে।

মঙ্গলবার হাইকোর্টে তুষারবাবুর আইনজীবীর দাবি, তাঁর জন্ম এ দেশেই হয়েছে। বাবা-মা বাংলাদেশে থাকলেও তিনি ভারতীয়। কলকাতা পুরসভা তাঁকে জন্ম সার্টিফিকেট দিয়েছে। এ দেশের নাগরিক হিসাবে তাঁর পাসপোর্ট ও আধার কার্ড ফিরিয়ে দেওয়া হোক। বিচারপতি রাজাশেখর মান্থা অবশ্য ওই আবেদনে সাড়া দেননি। তাঁর মন্তব্য, “মামলাকারী কোন দেশের নাগরিক তা জানা দরকার। পুরো বিষয়টি নিয়েই ধোঁয়াশা। এখন পরিচয়পত্র যাচাইয়ের কাজ রিজিওনাল পাসপোর্ট অফিস মুম্বাই কর্তৃপক্ষই করুন। ফলে আদালত এতে নাক গলাবে না।” এর পরই মামলাটি খারিজ করে দেয় আদালত।