Date : 2022-10-05

আইনশৃঙ্খলার দোহাই দিয়ে স্কুল বন্ধ করা যাবেনা।স্কুল ফিস মামলায় বললো ডিভিশন বেঞ্চ

ষষ্ঠী চট্টোপাধ্যায়, সাংবাদিক:- করোনা অতিমারীতে বহু বেসরকারি স্কুল গুলিতে যথাসম্ভব বকেয়া মিটিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করেছিলেন অভিভাবকরা।কিন্তু ধীরে ধীরে স্বাভাবিক জনজীবন ফিরে আসার পর রাজ্যের সরকারি এবং বেসরকারি স্কুল কলেজ খুলতে শুরু করেছিল।
কিন্তু বাদ সেধেছে স্কুলের বকেয়া বেতন আটকে থাকায় বহু পুড়ুয়া তাঁদের ইচ্ছে থাকলেও স্কুলের গেটে র ভেতরে প্রবেশ করতে পারেনি। হাইকোর্টের নির্দেশের পরেও বেশ কিছু বেসরকারি স্কুল কর্তৃপক্ষ কোনভাবেই বকেয়া বেতন পরিশোধ না করতে পারা ছাত্র ছাত্রীদের রিপোর্ট কার্ড, প্রমোশন আটকে দিয়েছেন।যে কারণে আদালতে শরণাপন্ন হয়েছেন অভিভাবকরা।

মঙ্গলবার মামলার শুনানির জন্য বিচারপতি ইন্দ্র প্রসন্ন মুখোপাধ্যায় ও বিচারপতি মৌসুমী ভট্টাচার্য্য র ডিভিশন বেঞ্চে অভিভাবকদের পক্ষে থেকে আইনজীবী বিনীত রুইয়া জানান যে জি ডি বিড়লা , মহাদেবী বিড়লা, অ্যাডামস ও ভবানীপুর এডুকেশন সোসাইটি স্কুল গুলির বন্ধের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।স্কুল কর্তৃপক্ষ গুলি তাঁরা আদালতের কোন নির্দেশই মানছেন না।

বিচারপতি ইন্দ্র প্রসন্ন মুখোপাধ্যায় স্কুলগুলির বিরুদ্ধে এবার কড়া পদক্ষেপ নেওয়ার বিষয়ে একটি বিশেষ কমিটি গঠন করে দিলেন । কমিটির দায়িত্ব থাকবে যে সমস্ত স্কুল গুলি এই ধরনের আচরণ করছেন স্কুলের গেটের ভেতরে ছাত্র-ছাত্রীদের প্রবেশ করতে বাধা দিচ্ছেন, যে সমস্ত স্কুল গুলি আইন-শৃংখলার দোহাই দিয়ে অনির্দিষ্টকালের জন্য স্কুল বন্ধ করার নোটিশ দিচ্ছেন সেই সমস্ত স্কুলগুলির বিরুদ্ধে এবার থানায় অভিযোগ দায়ের করার নির্দেশ দিয়েছেন তিনি।
শুধু তাই নয় শিক্ষার অধিকার আইন কোন ভাবেই যাতে লুঙ্গিতো না হয় স্কুল কর্তৃপক্ষকে গুলিকে আরো একবারও স্মরণ করিয়ে দিয়েছেন বিচারপতি ইন্দ্র প্রসন্ন মুখোপাধ্যায়।পাশাপাশি জিডি বিরলা ও অন্য স্কুল গুলিকে ছাত্রদের স্কুলে ক্লাস করতে দিতে হবে।
দ্বিতীয়ত ফি বকেয়া আইনশৃঙ্খলা ও অন্য ইস্যু দেখবে জয়েন্ট স্পেশাল অফিসাররা আইনশৃঙ্খলা র দোহাই দিয়ে স্কুল বন্ধ করা যাবেনা।অবিলম্বে জিডি বিরলা ও অন্য স্কুলকে নোটিস প্রত্যাহার করতে হবে।আইনশৃঙ্খলা র সমস্যা হলে সংশ্লিষ্ট থানার সাহায্য নেবে স্পেশাল অফিসাররা।
আগামী ৬ই জুন মামলার পরবর্তী শুনানির আগেই হাই কোর্টের নিযুক্ত স্পেশাল অফিসাররা রিপোর্ট পেশ করবেন।