Date : 2022-10-05

বালিগঞ্জে জমানত জব্দ হল বিজেপির, দ্বিতীয় স্থানে উঠে এল বামেরা

মাম্পি রায়, নিউজ ডেস্ক : বালিগঞ্জ বিধানসভা কেন্দ্রের উপনির্বাচনে জয় তো দূর অস্ত। পর্যাপ্ত ভোট না পাওয়ায় জমানত জব্দ হল বিজেপির। 20হাজারের বেশি ভোটের ব্যবধানে জয়ী হয়েছে তৃণমূল। 31 হাজারের কাছাকাছি ভোট পেয়ে দ্বিতীয় স্থানে উঠে এসেছে বামেরা।
সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের প্রয়াণের পর বালিগঞ্জ বিধানসভা কেন্দ্রের উপনির্বাচন। তাতে গো হারা হারল বিজেপি। 17 হাজারের কিছু বেশিভোট পেতে হত। কিন্তু বিজেপি প্রার্থী কেয়া ঘোষ কমবেশি 13 হাজার ভোট পেয়েছেন। ফলে জমানত জব্দ হল বিজেপির। একনজরকে দেখে নেওয়া যাক বালিগঞ্জ বিধানসভা কেন্দ্রের উপনির্বাচনের ফলাফল-

বালিগঞ্জে ভোটের ফল

20,228 ভোটের ব্যবধানে জয়ী বাবুল সুপ্রিয়

প্রার্থী                             প্রাপ্ত ভোট
বাবুল সুপ্রিয় (তৃণমূল)               51,199
সায়রা শাহ হালিম (সিপিএম)        30,971
কেয়া ঘোষ (বিজেপি)                13,220
কামরুজ্জামান চৌধুরী (কংগ্রেস)        5,218


বালিগঞ্জে ভোটের ফল

প্রার্থী                             প্রাপ্ত ভোট (শতাংশ)
বাবুল সুপ্রিয় (তৃণমূল)               41.69 শতাংশ
সায়রা শাহ হালিম (সিপিএম)        30.06 শতাংশ
কেয়া ঘোষ (বিজেপি)               12.83 শতাংশ
কামরুজ্জামান চৌধুরী (কংগ্রেস)      5.06 শতাংশ



ভোটে জিতে বিজেপিকে তীব্র কটাক্ষ করেছেন বাবুল সুপ্রিয়। তিনি বলেন, যেসব বিজেপি নেতারা তাঁর পরিশ্রমকে গুরুত্ব দেননি, তাদেরকে সপাটে জবাব দিয়েছে এই ফলাফল।

দ্বিতীয় স্থানে উঠে আসায় বাসিন্দাদের ধন্যবাদ দিয়েছেন সিপিএম প্রার্থী সায়রা শাহ হালিম। তিনি জানান, সাম্প্রদায়িকতা, বেকারত্ব, দুর্নীতির ভিড়ে বাংলায় বামেরাই একমাত্র বিকল্প, তা প্রমাণ করে দিয়েছে এই ফল।
রাজ্যে গণতন্ত্র ভুলুন্ঠিত হওয়ার জেরেই এই দুরবস্থা বলে মনে করছে বিজেপি নেতৃত্ব। কেন্দ্রীয় নির্বাচন কমিশনকেও কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়েছে পদ্মশিবির।

সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের কেন্দ্র বালিগঞ্জের নির্বাচনী ময়দান খুব একটা মসৃণ ছিল না। তবে বালিগঞ্জ বিধানসভা কেন্দ্রে এমন ভরাডুবি আশা করেনি গেরুয়া শিবির। মাত্র দুবছরে বালিগঞ্জে অনেকটাই কমল তৃণমূলের জয়ের ব্যবধান। 2021সালে এই কেন্দ্রে 75,339 ব্যবধানে জয়ী হয়েছিলেন সুব্রত মুখোপাধ্যায়। 2022-এ সেই কেন্দ্রেই জয়ের ব্যবধান কমে দাঁড়িয়েছে 20,228। যা নিঃসন্দেহে চিন্তা বাড়িয়েছে তৃণমূল নেতৃত্বের।