Date : 2022-05-29

মাঝ আকাশে আগুনের গোলা !

পৌষালী সেনগুপ্ত, নিউজ ডেস্ক : মাঝ আকাশে ছুটছে নাকি আগুনের গোলা। তাও আবার মাটি থেকে ৩৬ ফুট ওপরে।সেগুলি দেখতে পাচ্ছেন বিমান চালকরা। তাঁদের বক্তব্য প্রচণ্ড আলোর ঝলকানিতে নাকি চোখই ধাঁধিয়ে যাচ্ছে। একের পর এক বিমান থেকে এই অভিযোগ পেয়ে নড়েচড়ে বসল কলকাতা বিমানবন্দরের এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোল।অভিযোগ পাওয়ার প্রথমে তাঁরা ভেবেছিলেন চালকরা হয়তো ভুল দেখছে। কারণ ওতো উচ্চতায় অনেকসময় চোখের ভুল হয়।ভুবনেশ্বর থেকে দিল্লি, কলকাতা মুম্বই, কলকাতা থেকে দিল্লি– প্রায় সবক’টি রুট থেকেই হয় আগুনের গোলা, নয় আলোর ঝলকানির অভিযোগ আসে বলে বিমানবন্দর সূত্রের খবর। মুম্বই থেকে স্পাইসজেটের বিমানের পাইলট জানান, তিনি আগুনের গোলা দেখতে পান পটনা থেকে কাঠমান্ডুর মধ্যের উড়ানপথে।

এটিসি সূত্রের খবর, পর পর বিমান থেকে অভিযোগ পেয়ে অফিসারেরা বায়ুসেনা, ডিআরডিও (ডিফেন্স রিসার্চ ডেভেলপমেন্ট অর্গানাইজ়েশন)-এর সঙ্গে যোগাযোগ করেন। তাঁদের দাবি, ধুমকেতু, উল্কাপাত অথবা ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা হলে তা আগে থেকে এটিসি-কে জানিয়ে দেওয়া হয়। কিন্তু, এ দিন সে রকম কোনও সতর্কবার্তা ছিল না। ফলে, তাঁরা কার্যত বিভ্রান্ত হয়ে পড়েন। পরে এটিসি সূত্রে জানা যায়, পশ্চিম আকাশে উল্কাপাতের কারণেই সব মিলিয়ে মোট ১১টি বিমানের পাইলট এই অভিযোগ করেছেন। কেন্দ্রীয় সরকারি সংস্থা পজিশনাল অ্যাস্ট্রোনমি সেন্টারের তরফে জানানো হয় এ দিন কোনও উল্কাবৃষ্টি হওয়ার কথা ছিল না। এ দিনের ঘটনা নিয়ে তিনি বাখ্যা দিয়েছেন, মাঝেমধ্যেই আচমকা বাইরে থেকে ধুলো বা কোনও ছোট পাথরের টুকরো পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলে ঢুকে পড়ে। বায়ুমণ্ডলে প্রবেশের পরে বায়ুর সঙ্গে ঘর্ষণের ফলে সেই ধুলো বা পাথরের টুকরোগুলি জ্বলে যায়। এ ক্ষেত্রেও তেমন হতে পারে। তিনি এ-ও জানিয়েছেন যে, এই ধরনের ঘটনার আগাম কোনও পূর্বাভাসও থাকে না।