Date : 2022-05-27

সুগার লেভেল, ত্বকের উজ্জ্বলতা সহ হাজার গুনে ভরপুর কাঁচা আম

শাহিনা ইয়াসমিন, সাংবাদিক: কাঁচা আম শরীরের নানা ধরনের রোগের সঙ্গে লড়াই করতে খুবই সহায়ক। বিশেষ করে গ্রীষ্মকালে এটি স্বাস্থ্য সংক্রান্ত অনেক সমস্যা দূর করে।
গ্রীষ্মে কাঁচা আম খেলে শুধু সুস্থই থাকা নয়, অনেক মারাত্মক রোগ থেকে বাঁচা যায়। কাঁচা আম শরীরে জল  সরবরাহে সাহায্য করে, যা আমাদের হজমের জন্য অপরিহার্য। এটি নিয়মিত খেলে পেট সংক্রান্ত সমস্যাও দূর হয়। এটি গ্রীষ্ম ঋতুর প্রধান ফল এবং একে ফলের রাজাও বলা হয়। ভিটামিন এ, সি এবং ই ছাড়াও ক্যালসিয়াম, ফসফরাস এবং ফাইবারের মতো পুষ্টি উপাদান কাঁচা আমে পাওয়া যায়। প্রসঙ্গত, গ্রীষ্ম ঋতু সবচেয়ে বেশি প্রভাব আমাদের স্বাস্থ্যের উপর পড়ে, তাই খাবারের ব্যাপারে সতর্ক থাকা খুবই জরুরি।  কাঁচা আম স্বাদের পাশাপাশি স্বাস্থ্যের জন্যও খুবই উপকারী।
গ্রীষ্মের মরসুমে বিটনুন দিয়ে কাঁচা আম খেলে সুগারের রোগীদের জন্য এবং হিট স্ট্রোক প্রতিরোধে এর সেবন খুবই উপকারী। 

কাঁচা আম খাওয়ার উপকারিতা
অ্যাসিডিটির সমস্যা থেকে মুক্তি পান
গরমে মশলাদার খাবার খেলে প্রায়ই পেটে অ্যাসিডিটি হয়। আপনিও যদি অ্যাসিডিটির সমস্যায় ভুগে থাকেন, তাহলে বিটনুন দিয়ে কাঁচা আম খান। এতে খাবার সহজে হজম হবে এবং পেটে গ্যাস তৈরি হবে না। কাঁচা আম খেলেও ওজন কমতে পারে। তাই পেট যদি বাড়তে থাকে তাহলে কাঁচা আম খান। কয়েকদিন পর শরীরে পরিবর্তন দেখা যাবে। আপনার যদি গ্যাস বা বদহজমের মতো সমস্যা থাকে, তাহলে কাঁচা আম খাওয়া আপনার জন্য খুবই উপকারী হবে। এটি আপনাকে কোষ্ঠকাঠিন্য এবং সমস্ত পেটের ব্যাধি মোকাবেলা করতে সহায়তা করে।

হিটস্ট্রোক ও লু থেকে রক্ষায় সহায়ক 
গ্রীষ্মকালে হিটস্ট্রোক প্রতিরোধে কাঁচা আম খাওয়া উপকারী বলে মনে করা হয়। এছাড়া গরমে শরীরে জল  সরবরাহের জন্য ও আর্দ্র