Date : 2022-05-26

বিচারপতিদের কনফারেন্স। এপ্রিলের শেষে দিল্লিতে একমঞ্চে মমতা-মোদি।

সঞ্জু সুর, সাংবাদিক : ২০২১ এর নভেম্বর মাসের পর ফের দিল্লি যাচ্ছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেখানে বিচারপতিদের একটি কনফারেন্সে উপস্থিত থাকবেন তিনি। এই কনফারেন্সের উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।বিচার ব্যবস্থার পরিকাঠামো উন্নয়ন, বিচারপতিদের শূণ্য পদ পূরণ, বকেয়া মামলার দ্রুত নিষ্পত্তি সহ বিচারবিভাগের সঙ্গে যুক্ত একগুচ্ছ বিষয় নিয়ে কনফারেন্স হতে চলেছে দিল্লিতে। ২০১৬ সালের পর ফের ‘চিফ মিনিষ্টার্স ও চিফ জাস্টিসেস কনফারেন্স অন জুডিসিয়ারি’ শীর্ষক এই আলোচনা সভা দিল্লির বুকে অনুষ্ঠিত হবে আগামি ৩০ এপ্রিল।

সেই অনুষ্ঠানে যোগ দিতে ২৯ এপ্রিল দিল্লি যাবেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কনফারেন্সে উপস্থিত থাকবেন দেশের সব রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী, দেশের প্রধান বিচারপতি, সবকটি হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এই কনফারেন্সের উদ্বোধন করে বিচারব্যবস্থা নিয়ে কি বলেন সেদিকে লক্ষ্য থাকবে সকলের‌। যদিও এই অনুষ্ঠানে মুখ্যমন্ত্রীদের কোন অবকাশ আছে কিনা তা এখনও জানা যায়নি। তবে যদি তেমন কোনো সুযোগ আসে সেক্ষেত্রে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কি বলেন সেদিকেও নজর থাকবে সকলের। বিচারব্যবস্থার রাজনীতিকরণ নিয়ে বিভিন্ন সময়ে রাজনৈতিক দলগুলো তাদের মতামত জানিয়েছে। আমাদের রাজ্যে কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি অমিতাভ লালা-র বিচারে খুশি না হয়ে বাম আমলে ‘লালা, বাংলা ছেড়ে পালা’ স্লোগান তুলেছিলো সেই সময়ের শাসকদলের কর্মি সমর্থকেরা। ঠিক তেমনি এখন কলকাতা হাইকোর্টের আরেক বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়ের বিচারে না খুশ একদল আইনজীবী তাঁর এজলাস বয়কটের পথেও হেঁটেছে। যে আইনজীবীরা বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায়ের এজলাস বয়কটের ডাক দিয়েছেন তাঁরা বর্তমান শাসকদলের ঘনিষ্ঠ বলেই মত আইনজীবীদের একাংশের। ফলে বিচারব্যবস্থার রাজনীতিকরণ নিয়ে যে রাজনৈতিক দলগুলোর অবস্থান একটুও বদল হয় নি, তা বলাই যায়। এমতাবস্থায় দিল্লির এই কনফারেন্স নতুন কোনো দিগনির্দেশ করে কিনা সেটাই দেখার।