Date : 2022-05-26

অবশেষে কোভিড বিধিনিষেধ থেকে মিলল মুক্তি, তবে সংযম রেখেই।

সঞ্জু সুর, রিপোর্টার:- দীর্ঘ দুই বছর পর কোভিড বিধিনিষেধ তুলে নিলো কেন্দ্র। সেই সঙ্গে কেন্দ্রের সঙ্গে তাল মিলিয়ে আমাদের রাজ্যেও সমস্ত রকম কোভিড বিধিনিষেধ তুলে নেওয়া হলো বৃহস্পতিবার মধ্য রাত থেকেই। স্বস্তিতে সাধারণ মানুষ।
২৩ মার্চ কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের সচিব অজয় ভাল্লা চিঠি দিয়ে সব রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল কে জানিয়ে দেন কেন্দ্রীয় সরকার ১ এপ্রিল থেকে কোভিড বিধিনিষেধ সম্পূর্ণরূপে তুলে নিচ্ছে। তবে ভিন্ন ভিন্ন রাজ্য প্রশাসন এই বিষয়ে নিজেদের মতো করে সিদ্ধান্ত নিতে পারে। মূলতঃ নতুন করে কোভিড আক্রান্তের সংখ্যা ও মৃত্যুর সংখ্যা নিম্নগামী হ‌ওয়ার কারণেই কেন্দ্র এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে চিঠিতে জানানো হয়। এদিকে গত বেশ কয়েকদিন ধরেই পশ্চিমবঙ্গের কোভিড পরিস্থিতিও যথেষ্ট আশাব্যঞ্জক। একদিকে নতুন কোভিড আক্রান্তের হার যখন নিম্নমুখী ঠিক তখন সুস্থতার হার‌ও যথেষ্ঠ উর্ধ্বমুখী।

এই অবস্থায় স্টেট ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্ট অথরিটির একজিকিউটিভ কমিটি বিধিনিষেধ তুলে নেওয়ার পক্ষেই মত দেয়। সেই পরামর্শ মেনেই বৃহস্পতিবার রাজ্যের মুখ্যসচিব হরিকৃষ্ণ দ্বিবেদী নবান্ন থেকে বিজ্ঞপ্তি জারি করেন। বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী বৃহস্পতিবার মধ্য রাত থেকেই রাজ্যে সমস্ত রকম কোভিড বিধিনিষেধ প্রত্যাহার করে নেওয়া হলো। অবশ্য শেষ কয়েক মাস ধরে পশ্চিমবঙ্গের কোভিড সিচুয়েশন যথেষ্ট ভালো থাকায়, ধাপে ধাপে অনেক বিধিনিষেধ ই তুলে নেওয়া হয়েছিলো। কঠোর বিধিনিষেধ যা ২০২০ সালের মার্চ মাস থেকে শুরু করা হয়েছিলো লকডাউনের মাধ্যমে, তা আনলক ১,২,৩ এর মাধ্যমে অনেকটাই শিথিল করা হয়েছিল। শুধুমাত্র রাত্রিকালীন বিধিনিষেধ (রাত ১২ টা থেকে ভোর ৫ টা পর্যন্ত)কিছুটা কড়া ছিলো। এবার সেটাও তুলে নেওয়া হলো।
বিধিনিষেধ সম্পূর্ণ প্রত্যাহার করা হলেও কিছু বিষয়ে অবশ্যই সতর্ক থাকার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। হাত ধোয়া, মাস্ক ব্যবহার করা ও অন্যান্য কোভিড স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে বলেই বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে। পাশাপাশি সব ধরনের সরকারি ও বেসরকারি অফিস কাছাড়িতে করোনা বিধি মেনেই স্যানিটাইজেশনের কাজ চালিয়ে যাওয়ার পরামর্শ‌ও দেওয়া হয়েছে।