Date : 2022-05-29

শহরের বুকে আন্তর্জাতিক মানের মেলা গ্রাউন্ড। খুলে গেলো নবরূপে সজ্জিত মিলন মেলা।

সঞ্জু সুর, সাংবাদিক : দীর্ঘ চার বছরের প্রতিক্ষার অবসান। অবশেষে খুলে গেল মিলন মেলা প্রাঙ্গণ। সোমবার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় উদ্বোধন করলেন নবরূপে সজ্জিত এই মেলা প্রাঙ্গণ। নামকরণ করলেন ‘বিশ্ব বাংলা মেলা প্রাঙ্গণ’। উপস্থিত ছিলেন শিল্পমন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়, পুর ও নগরোন্নয়ন মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম ও দমকল মন্ত্রী জাভেদ আহমেদ খান।

২০১৮ সালের মার্চ মাসে মিলন মেলা গ্রাউন্ড কে নতুন করে সাজিয়ে তুলতে দায়িত্ব দেওয়া হয় দিল্লীর একটি সংস্থা কে। সেই থেকে বন্ধ ছিলো বাম আমলে তৈরি হ‌ওয়া এই মেলা গ্রাউন্ড। ৩৫০ কোটি টাকার বেশি অর্থ ব্যয়ে নবরূপে সজ্জিত এই মেলা প্রাঙ্গণে থাকছে দুটি আলাদা আলাদা প্যাভেলিয়ন বা অডিটোরিয়াম, যার এক একটির আয়তন প্রায় এক লক্ষ বর্গফুট। সম্পূর্ণ শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত এই প্যাভেলিয়নগুলিতে বৃহদাকারে সম্মেলন বা সামিট বা কনভেনশন করা যাবে। রয়েছে ওপেন এয়ার এগজিবিশন এর ব্যবস্থা, প্রশাসনিক ভবন। তৈরি করা হয়েছে ফুড কোর্ট। রয়েছে মাল্টি লেভেল কার পার্কিং যেখানে একসাথে প্রায় ১২০০ গাড়ি পার্ক করা যাবে। মেলা প্রাঙ্গণ কে আরও বেশি আকর্ষণীয় করে তুলতে ভিআইপি গেটের পাশে মা উড়ালপুলের ঠিক পাশে একটি ১৮০ ফুটের ইস্পাতের স্ট্যান্ড তৈরি করা হয়েছে। এই টাওয়ারের মাথায় বসানো হয়েছে একটি বিশ্ববাংলা লোগো দেওয়া গ্লোব।
সোমবার নবরূপে সজ্জিত এই মেলা প্রাঙ্গণের উদ্বোধন করে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, “বিশ্ব বাংলা কনভেনশন এর আগে বাংলার পালকে আরেকটা মুকুট যুক্ত হলো।” আন্তর্জাতিক মানের এই মেলা প্রাঙ্গণ যাতে আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে আরও বেশি পরিচিতি পায় তারজন্য মুখ্যমন্ত্রী বিদেশি রাষ্ট্রদূতদের কাছেও আবেদন করেন। তিনি বলেন, “সারা বিশ্বজুড়ে আপনাদের অনেক সদস্য (বিজনেস এনটিটি) রয়েছে। এখানে এখন এমন একটা ইনফ্রাস্ট্রাকচার তৈরি করা হয়েছে যেখানে আপনারা সবাইকে আমন্ত্রণ করতে পারেন।” মুখ্যমন্ত্রী আর‌ও বলেন, “কয়েকমাসের মধ্যে আলিপুরে ধনধান্যে স্টেডিয়াম ও তৈরি হয়ে যাবে।” প্রসঙ্গক্রমে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়ে দেন এবারের বেঙ্গল গ্লোবাল বিজনেস সামিটে ১৪ টি দেশ থেকে প্রতিনিধিরা আসবেন। রাজ্যে বিনিয়োগের যে উত্তম ও অনুকুল পরিবেশ রয়েছে তা মনে করিয়ে দিয়ে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, “কোভিড সিচুয়েশন এর পর আমরাই প্রথম এই ধরনের বিজনেস সামিট করতে পারছি, অন্য কেউ সেই সাহস দেখায় নি। এখানে একটু রিস্ক নিয়েছি। কারণ আমি মনে করি রিস্ক একটু নিতে হয়। নো রিস্ক, নো গেইন।” সোমবার মুখ্যমন্ত্রী যদিও রাজারহাটের ‘বিশ্ব বাংলা কনভেনশন সেন্টার’-এর কথা বলেছেন, তবে এই ‘বিশ্ব বাংলা মেলা প্রাঙ্গণ’ যেভাবে সাজিয়ে তোলা হয়েছে তাতে এবারের বিজিবিএস এখানেই হবে বলে মনে করা হচ্ছে।