Date : 2022-05-26

সবাই শেষ পর্যন্ত থাকবে তো! বাংলার সাংসদদের নিয়ে দ্বিধায় প্রধানমন্ত্রী। কটাক্ষ কুনালের

সঞ্জু সুর, রিপোর্টার : বারবার তিন বার। তিনবার সময় দিয়েও বাংলার বিজেপি সাংসদদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন নি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। শুক্রবার এই নিয়ে কটাক্ষ ছুঁড়ে দিলেন তৃণমূল কংগ্রেসের অন্যতম রাজ্য সম্পাদক কুনাল ঘোষ।

বগটুই হত্যাকাণ্ড সহ রাজ্যের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর কাছে দরবার করতে চেয়েছিলেন এরাজ্যের বিজেপি সাংসদরা। বিজেপি সূত্রে খবর, সবুজ সংকেত এসেছিলো প্রধানমন্ত্রীর দফতর থেকেও। সময় দেওয়া হয়েছিলো বুধবার সকালে। কিন্তু সেই সময় বদলে যায়। পরিবর্ত সময় দেওয়া হয় বৃহস্পতিবার দুপুরে। কিন্তু দ্বিতীয়বার‌ও সুকান্ত মজুমদারদের সঙ্গে দেখা করেন নি প্রধানমন্ত্রী। শোনা যায়, পিএম‌ও থেকে বিজেপি নেতাদের জানিয়ে দেওয়া হয় ফের শুক্রবার দিন প্রধানমন্ত্রীর বাসভবনে প্রাতঃরাশ বৈঠকে বাংলার সাংসদদের সঙ্গে দেখা করবেন প্রধানমন্ত্রী। কিন্তু সেই সময়ও অনির্দিষ্টকালের জন্য পিছিয়ে গিয়েছে। সূত্রের খবর, প্রধানমন্ত্রীর পূর্ব নির্ধারিত কর্মসূচি থাকার কারণে তিনি বাংলার বিজেপি সাংসদদের সঙ্গে দেখা করতে পারেন নি। তবে এপ্রিল মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহের পর কোন এক সময় প্রধানমন্ত্রী তাদের সঙ্গে দেখা করবেন বলে আশাবাদী এ রাজ্যের বিজেপি সাংসদরা।

বারবার তিনবার প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করতে চাওয়া চেয়ে ব্যর্থ হওয়া বাংলার বিজেপি সাংসদদের উদ্দেশ্যে কটাক্ষ ছুড়ে দিয়েছেন তৃণমূল কংগ্রেসের অন্যতম রাজ্য সম্পাদক কুনাল ঘোষ। শুক্রবার তিনি বলেন, “প্রধানমন্ত্রী আসলে ভয় পাচ্ছেন। তিনি দ্বিধায় রয়েছেন যাদের সঙ্গে তিনি বৈঠক করবেন বাংলার সেই সব বিজেপি সাংসদরা আজ থেকে পাঁচ ছয় মাস পরে বিজেপিতে আদৌ থাকবেন তো!”
কুনাল ঘোষের এই মন্তব্য নিয়ে বিজেপি সংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায় বলেন, “ভেবে ভাল লাগছে যে কুনাল ঘোষ আমাদের সংগঠনের বিষয়ে চিন্তা ভাবনা করছেন। প্রধানমন্ত্রী অত্যন্ত ব্যস্ত। তিনি ঠিক সময় দেখা করবেন। আমরা তো অলরেডী রামপুরহাট ও পশ্চিমবঙ্গের আইনশৃঙ্খলা নিয়ে অমিত শাহ এবং জেপি নাড্ডার কাছে আলাদা আলাদাভাবে দেখা করেছি।”
এদিন কুনাল ঘোষ একটি মারাত্মক ইঙ্গিত দিয়ে বলেন, “ওদের দলের প্রধানমন্ত্রী। আজ না হয় কাল নিশ্চয়ই দেখা করবেন। কিন্তু প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকে কি আলোচনা হবে, কি সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে তা আমরা সঙ্গে সঙ্গেই জানতে পেরে যাবো। ওদের কয়েকজন সাংসদ আমাদের হয়ে ওদের দলে রয়েছে। তারাই আমাদের সব খবর দিয়ে দেবে।” কুনাল ঘোষের এই মারাত্মক ইঙ্গিত নিয়ে প্রশ্ন করা হলে অবশ্য বিজেপি সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায় বলেন, “কুনাল ঘোষের সব মন্তব্যের উত্তর দেওয়ার প্রয়োজন বোধ করছি না।”
কুনাল ঘোষ কোনো আলটপকা মন্তব্য করেন নি বরং জেনে বুঝেই এই মন্তব্য করেছেন বলেই মনে করছেন রাজনৈতিক তথ্যাভিজ্ঞ মহল। এমনিতে বাংলার বিজেপির অভ্যন্তরে লকেট চট্টোপাধ্যায় বা অর্জুন সিং বা জগন্নাথ সরকার কে যথেষ্ট কৌতুহল তৈরি হয়েছে। সেই কৌতুহল কে আরো একটু উসকে দিয়েছে তৃণমূল রাজ্য সম্পাদক কুনাল ঘোষের এই মন্তব্য।