Date : 2022-05-26

গড়ফায় তরুণীকে শ্বাসরোধ করে খুন, গ্রেফতার প্রেমিক

সঞ্জনা লাহিড়ী, সাংবাদিক: গড়ফার বিবেক নগরে নিজের বাড়িতে রহস্য মৃত্যু তরুণীর। ঘটনায় গ্রেফতার তরুণীর প্রেমিক। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে গড়ফা থানার পুলিশ। দীর্ঘ ১০ বছর ধরে গড়ফার বিবেক নগরের বাসিন্দা সুস্মিতা দাসের সঙ্গে প্রণয় ঘটিত সম্পর্ক ছিল হাবড়ার বাসিন্দা প্রণব দাস ওরফে পঙ্কজের। রবিবার দুপুরে বিবেক নগরের বাড়িতে প্রেমিকার সঙ্গে দেখা করতে যান পঙ্কজ। দুপুরে দুজনের মধ্যে বচসা শুরু হয়। এরপরই বাড়ি থেকে বেরিয়ে যায় পঙ্কজ। বছর ছাব্বিশের সুস্মিতাকে অচৈতন্য অবস্থায় তাঁর ঘরে পাওয়া যায়। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌছয় গড়ফা থানার পুলিশ। তাঁকে উদ্ধার করে বাঙ্গুর হাসপাতালে নিয়ে গেলে মৃত বলে ঘোষণা করে চিকিৎসকরা।

এরপরই মৃত তরুণীর পরিবারের তরফে পঙ্কজের বিরুদ্ধে গড়ফা থানায় খুনের অভিযোগ দায়ের করে। তদন্তে নেমে অভিযুক্ত যুবকের খোঁজে হাবড়ায় অভিযান চালায় পুলিশ। ভোর সাড়ে ৩টে নাগাদ টাওয়ার লোকেশনের মাধ্যমে হাবড়া থেকে গ্রেফতার করা হয় যুবককে। পুলিশ সূত্রে খবর, শ্বাসরোধ করে খুন করা হয়েছে বলে প্রাথমিক জেরায় স্বীকার করে অভিযুক্ত। ১০ বছর ধরে পঙ্কজ ও সুস্মিতার সম্পর্ক থাকলেও ইদানিং পঙ্কজকে এড়িয়ে চলছিল সুস্মিতা। বিয়ের কথা বললে নানা অছিলায় বিয়ের প্রসঙ্গ এড়িয়ে যেত সুস্মিতা। সুস্মিতার এক আত্মীয়ের কাছ থেকে পঙ্কজ জানতে পারে সুস্মিতার জীবনে বিগত দেড় বছর আগে নতুন মানুষ এসেছে।

বিষয়টি জানতে পেরে পেশায় হোটেল কর্মী পঙ্কজ তড়িঘড়ি আন্দামান থেকে চলে আসেন। দুই পরিবারের মধ্যে বিয়ের পাকা কথা হয়ে গেলেও পঙ্কজকে সুস্মিতা বিয়ে করতে চাইছিলেন না। এই নিয়ে একাধিক বার দুজনের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। রবিবারও এই বিষয় নিয়ে বচসা হয় দুজনের। সুস্মিতা অন্য সম্পর্কে রয়েছে তা স্বীকার করলে পঙ্কজ রাগের বশে তাঁকে খুন করে বলে পুলিশ সূত্রে জানা গেছে। সোমবার অভিযুক্তকে আলিপুর পুলিশ আদালতে তোলা হলে পুলিশ হেফাজতে নেওয়া হয়। রাগের বশেই খুন নাকি অন্য কোনও কারণ রয়েছে তা খতিয়ে দেখছে গড়ফা থানার পুলিশ।