Date : 2022-12-09

অনলাইনে পরীক্ষার দাবিতে সরব পড়ুয়ারা। কলেজে কলেজে চলছে আন্দোলন

নাজিয়া রহমান, সাংবাদিক : অতিমারির দুবছরে শিক্ষা ব্যবস্থা ও পঠনপাঠনের প্রভুত ক্ষতি হয়েছে। ওই সময়ে অনলাইনে পঠনপাঠন চালু রাখতে বাধ্য হন শিক্ষা পরিচালকরা। কিন্তু পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ার পথে এগোলেও রাজ্যের বিভিন্ন কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ে অনলাইনে পরীক্ষার দাবিতে শুরু হয়েছে পড়ুয়াদের বিক্ষোভ। কোথাও কোথাও এই বিক্ষোভ সভ্যতা ও শালীনতার গণ্ডি ছাড়িয়েছে। এখন অনলাইনে পরীক্ষা নেওয়া হলে পড়ুয়াদের ভবিষ্যৎ প্রশ্নচিহ্নের মুখে পড়বে বলে মনে করছে শিক্ষা মহল। পরীক্ষা অফলাইনে না অনলাইনে হবে। তার সিদ্ধান্ত বিশ্ববিদ্যালয় নেবে। উপাচার্যদের চিঠি দিয়ে সে কথা জানিয়েছে উচ্চ শিক্ষা দফতর। এর পরেই শুরু হয়েছে অশান্তি।

অনলাইনে হোক স্নাতক ও স্নাতকোত্তর স্তরের সিমেস্টার। এই দবিতে সরব হয়েছে পড়ুয়ারা। সংক্রমণের মত জেলায় জেলায় কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ে ছড়িয়েছে পড়ুয়াদের বিক্ষোভ। পড়ুয়াদের দাবি মেনে কল্যাণী বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্তর্গত ৪৮টি কলেজে স্নাতকস্তরের সমস্ত পরীক্ষা অনলাইনে নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কর্তৃপক্ষ । কল্যাণীর পথেই হেঁটেছে বিদ্যাসাগর বিশ্ববিদ্যালয়ও। সেখানেও এই বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্তর্ভুক্ত ৫৬টি কলেজের স্নাতকস্তরের সমস্ত পরীক্ষা এবছর অনলাইনেই হবে । তবে স্রোতের বিরুদ্ধে হেঁটে রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয় সিদ্ধান্ত নিয়েছে, স্নাতক ও স্নাতকোত্তরের সমস্ত পরীক্ষাই হবে অফলাইনে। পড়ুয়াদের বিক্ষোভ সভ্যতার সীমা ছাড়ালেও নিজেদের সিদ্ধান্তে অনড় কর্তৃপক্ষ। অন্যদিকে ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ুয়ারা বিরোধিতা করলেও অফলাইনেই পরীক্ষা শুরু হয়েছে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে।

আলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়েও অফলাইনে পরীক্ষা নেওয়ার বিজ্ঞপ্তি জারি হয়েছে। ২৭ মে থেকে অফলাইনে শুরু হবে পরীক্ষা। এমনই নির্দেশিকা জারি করল আলিয়া বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। চলতি বছর অফলাইনে ঠিকমত পঠনপাঠন হয়নি। তাই নেওয়া হোক অনলাইনে পরীক্ষা। এই দাবি নিয়ে আন্দোলনেও সামিল হয় পড়ুয়ারা। তবে নিজেদের সিদ্ধান্তেই অনড় আলিয়ার কর্তৃপক্ষ। তাই ছাত্র আন্দোলন চলাকালীনই অফলাইনে পরীক্ষার নির্দেশিকা জারি করা হল। পড়ুয়ারা শেষমেশ কর্তৃপক্ষ সিদ্ধান্ত মেনে নিলেও পরীক্ষার তারিখ পিছিয়ে দেওয়ার দাবি তুলেছে তারা। যদি অফলাইনে পরীক্ষার তারিখ পিছিয়ে না দেওয়া হয় তাহলে পরীক্ষা বয়কটের হুঁশিয়ারি পড়ুয়াদের।

প্রেসিডেন্সি ও কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে এখনও এবিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি। ২০ মে পরীক্ষা নিয়ে বৈঠকে বসে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। সেখানে ফ্যাকাল্টিদের তরফ থেকে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর স্তরের পরীক্ষা অফলাইনেই হোক প্রস্তাব রাখা হয়েছে। যদিও চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে ২৭মে বৈঠকে।অন্যদিকে অফলাইন পরীক্ষা নেওয়ার পক্ষেই সাঁই রয়েছে প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের।দ্রুত প্রেসিডেন্সির বিভাগীয় শিক্ষা বিষয়ক কমিটিগুলি এই বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে বলে জানা গেছে। বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষাও অফলাইনে নেওয়া হবে বলেই জানা গেছে।অনলাইনে পরীক্ষা হলে তা পড়ুয়াদের ভবিষ্যতের উপর প্রভাব ফেলবে বলেই মত শিক্ষকমহলের।