Date : 2022-06-26

রাজ্য মন্ত্রিসভায় রদবদল ! শুক্রবার শপথ ! সম্ভাবনা প্রবল

সঞ্জু সুর, সাংবাদিক : রাজ্যে তৃতীয় বারের জন্য ক্ষমতায় আসার এক বছর পূর্ণ হয়েছে এই ক’দিন হলো। এক বছর পার করে মন্ত্রিসভায় একটা বড়সড় রদবদল করতে চলেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মন্ত্রিসভায় আসতে চলেছে চার চারজন নতুন মুখ, যার মধ্যে দুই জন এর আগেও মন্ত্রিসভায় ছিলেন। বাকি দুই জন প্রথমবার মন্ত্রী হবেন। ৩০ তারিখ জেলা সফরে বের হ‌ওয়ার আগে শুক্রবার নতুন মন্ত্রীদের শপথ গ্রহণ সেরে ফেলতে পারেন মুখ্যমন্ত্রী।

অতি সম্প্রতি জেলা সফরে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেছিলেন পূর্ত দফতরের কাজে। বলেছিলেন, “ওদের এত খাঁই কেন?” সেই সঙ্গে তিনি এটাও বলেছিলেন প্রয়োজনে পূর্ত দফতরের থেকে কাজ নিয়ে অন্যকে দিয়ে করাতে। মুখ্যমন্ত্রীর ক্ষোভের কারণে‌ই হোক আর যাই হোক সম্ভবতঃ পূর্ত দফতর থেকে সরতে হচ্ছে মন্ত্রী মলয় ঘটক কে। তাঁর জায়গায় পূর্ত দফতরে আসতে পারেন আগের দফায় পূর্ত মন্ত্রী হিসাবে দায়িত্ব সামলানো বর্তমানে ক্রীড়া ও যুব কল্যান এবং বিদ্যুৎ দফতরের মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস। সেক্ষেত্রে বর্তমানে তাঁর হাতে থাকা একটি দফতর অন্য কারও হাতে চলে যেতে পারে। সূত্রের খবর, বুধবার নবান্নে মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে প্রায় ঘন্টাখানেক বৈঠক করেন বর্তমান পূর্ত ও আইনমন্ত্রী মলয় ঘটক।

শিক্ষক ও শিক্ষাকর্মি নিয়োগ নিয়ে সিবিআইয়ের জিজ্ঞাসাবাদের মুখোমুখি হতে হয়েছে শিক্ষা দফতরের বর্তমান ও প্রাক্তণ দুই মন্ত্রীকে। যে ঘটনা নিয়ে এমনিতেই অস্বস্তিতে রয়েছে নবান্ন। অন্যায় ভাবে নিজের মেয়েকে চাকরি পাইয়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে বর্তমান শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী পরেশ অধিকারীর বিরুদ্ধে। আদালতের নির্দেশে তাঁর মেয়ের চাকরি ফিরিয়ে নেওয়া হয়েছে। খেসারত হিসাবে এবার তাঁর চাকরিও (প্রতিমন্ত্রী) আর থাকছে না। সেই জায়গায় নিয়ে আসা হতে পারে বর্তমানে বিধানসভার ডেপুটি স্পিকার আশীষ বন্দোপাধ্যায় কে। যদিও বগটুই কান্ড তাঁকে কিছু ডিমেরিট পয়েন্ট দিয়েছে, তবে মুখ্যমন্ত্রী শিক্ষা দফতরে আশীষ বন্দোপাধ্যায়ের মতো একজনকে চাইছেন বলেই খবর।

এদিকে প্রাক্তণ শিক্ষামন্ত্রী বর্তমানে রাজ্যের শিল্পমন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়‌ও দুই দুইবার সিবিআইয়ের জিজ্ঞাসাবাদের সম্মুখীন হয়েছেন। তবে এখন‌ই শিল্প দফতর থেকে না সরালেও পরিষদীয় দফতর হয়তো তাঁর হাতছাড়া হতে চলেছে। সেই জায়গায় নিয়ে আসা হচ্ছে বর্ষীয়ান বিধায়ক ও বিধানসভায় শাসকদলের উপমূখ্য সচেতক তাপস রায় কে।

অর্জুন সিং তিনবছর পর ফের ফিরে এসেছেন তৃণমূল কংগ্রেসে। তাঁকে দলে ফিরিয়ে নেওয়ার ক্ষেত্রে অনেকের‌ই আপত্তি ছিলো। বিশেষ করে তৃণমূল কংগ্রেসের ব্যারাকপুর সাংগঠনিক জেলা সহ উত্তর ২৪ পরগণা জেলা নেতাদের অনেক‌ই মন থেকে এই সিদ্ধান্ত মানতে চাইছিলেন না। সেই ক্ষোভে প্রলেপ দিতে ব্যারাকপুর জেলার অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ নেতা তথা বিধায়ক পার্থ ভৌমিককে রাজ্য মন্ত্রিসভায় ঠাঁই দিতে চলেছেন মুখ্যমন্ত্রী। একাধারে ভালো বক্তা ও সংগঠক পার্থ ভৌমিক কিন্তু সেই সময়েও তৃণমূল ছেড়ে যান নি যখন তাঁর আসেপাশের অনেকেই তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন। সম্ভবতঃ এতদিনে তার পুরষ্কার পেতে চলেছেন পার্থ ভৌমিক।
এদিকে বিজেপি ছেড়ে তৃণমূল কংগ্রেসে যোগ দেওয়া ইস্তক বাবুল সুপ্রিয় কে নিয়ে রটনা হয়েই চলেছে তিনি রাজ্যের মন্ত্রী হবেন। সেই রটনা আরো বেশি মাইলেজ পায় যখন তাঁকে বালিগঞ্জ বিধানসভা কেন্দ্রের উপনির্বাচনে প্রার্থী করা হয় এবং তিনি জয়লাভ করেন। তৃণমূল কংগ্রেসের‌ই একটি সূত্রের দাবি বাবুল মন্ত্রী হচ্ছেন। সেক্ষেত্রে তিনি ক্রীড়া ও যুব কল্যান দফতর পেতে পারেন।

যদিও রাজ্য মন্ত্রিসভার এক গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রী জানালেন এই মুহূর্তে বাবুল সুপ্রিয় কে মন্ত্রী করা হবে না। অনন্ত আগামি বছরের পঞ্চায়েত নির্বাচনের আগে নয়। পাশাপাশি বিধানসভা সূত্রে খবর বিধায়ক হিসাবে শপথ নেওয়ার পর বাবুল সুপ্রিয়কে স্বরাষ্ট্র সহ বেশ কয়েকটি দফতর বিষয়ক স্ট্যান্ডিং কমিটির সদস্য করা হয়েছে। যা ইঙ্গিত দেয় এখন‌ই বাবুল কে মন্ত্রী করা হবে না। যদিও প্রত্যেকের‌ই বক্তব্য শেষ সিদ্ধান্ত নেবেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এখন দেখার বিষয় সোমবারের পর বাহাত্তর ঘন্টার মধ্যে বৃহস্পতিবার যে মন্ত্রিসভার বৈঠক ডাকা হয়েছে সেই বৈঠকে এই বিষয়ে মুখ্যমন্ত্রী বাকি মন্ত্রীদের কিছু জানান কি না।