Date : 2022-06-30

বিদ্যুত বাঁচাতে নয়া পদক্ষেপ শ্রীলঙ্কার

পৌষালী সেনগুপ্ত, নিউজ ডেস্ক ঃ দেশের আর্থিক দুরবস্থা চরমে।স্কুল-কলেজ ও অফিস বন্ধ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিল শ্রীলঙ্কা সরকার।জ্বালানির অভাবে ধুঁকছে দ্বীপরাষ্ট্রটি।বিদ্যুৎ উৎপাদন করা সম্ভব হচ্ছে না শ্রীলঙ্কায়। যানবাহন চালানোর মতো প্রয়োজনীয় তেলও পাওয়া যাচ্ছে না।সবদিক ভেবেই আপাতত সরকারি অফিস ও শিক্ষাকেন্দ্র বন্ধ রাখা হবে।তবে অনলাইন ক্লাস করাতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে শিক্ষকদের। সোমবার থেকেই এই নির্দেশ কার্যকর করার কথা ঘোষণা করেছে শ্রীলঙ্কা সরকার। শ্রীলঙ্কায় বিদেশি মুদ্রাও কমে এসেছে।বিদেশ থেকে জ্বালানি আমদানি করতে পারছে না তারা। নিজেদের সঞ্চিত জ্বালানির পরিমাণও কমে গিয়েছে। বিদ্যুৎ উৎপাদন বন্ধ হয়ে যাওয়ায় দিনে প্রায় ১৩ ঘণ্টা ধরে লোডশেডিং হচ্ছে।শিক্ষা দপ্তর থেকে নির্দেশিকায় বলা হয়েছেদিনের অধিকাংশ সময়েই বিদ্যুৎ থাকছে না। সেই কারণেই আপাতত স্কুল বন্ধ থাকবে।বাড়িতে বসে অনলাইন ক্লাসের মাধ্যমে পড়াশোনা চলবে।কিন্তু বিদ্যুৎ না থাকলে অনলাইন ক্লাস কী করে সম্ভব, তা নিয়ে প্রশ্ন থাকছে।দেশের বিভিন্ন পেট্রল পাম্পে লম্বা লাইন দিয়েও তেল পাচ্ছেন না সাধারণ মানুষ। যাতায়াতের ক্ষেত্রে ব্যাপক সমস্যা সৃষ্টি হচ্ছে। তবে ছুটি নেই চিকিৎসাকেন্দ্রগুলির কর্মচারীদের। অফিসে এসেই তাঁদের কাজ করতে হবে।আগামী তিনমাস এই নিয়ম কার্যকর থাকবে।ইতিমধ্যেই প্রতি শুক্রবার ছুটি ঘোষণা করেছে দ্বীপরাষ্ট্রের সরকার। এরই মধ্যে ভারতের থেকে সাহায্য চেয়েছে শ্রীলঙ্কা সরকার। ভারত সরকার প্রয়জনীয় সাহায্যের আশ্বাস দিয়েছে। বাংলাদেশ ইতিমধ্যেই অনেক প্রকল্প বাতিল করেছে শ্রীলঙ্কার সঙ্গে। চিনাঋণ নিয়ে ধুঁকতে থাকা শ্রীলঙ্কা কোন পরিস্থিতির মুখোমুখি হয় সেটাই দেখার।