Date : 2022-12-09

হিন্দির পক্ষে জোর সওয়াল অমিত শাহের

রুমঝুম সামন্ত, নিউজ ডেস্ক:- স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের ‘ইংরেজির বিকল্প হিন্দি’ মন্তব্যে বিতর্কের ঝড় উঠেছে দেশের রাজনৈতিক মহলে দক্ষিণের রাজ্যগুলিতে। ‘এক দেশ এক ভাষা’ এই স্লোগানে হিন্দির পক্ষে জোর সওয়াল অমিত শাহের। হিন্দি ভাষাকে রাষ্ট্রীয় ভাষা করতে আগেই সোচ্চার ছিল ভারতীয় জনতা পার্টি। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের দাবি, দেশে এমন একটি সর্঵জনীন ভাষার প্রয়োজন যা আন্তর্জাতিক স্তরে ভারতের পরিচিতিতে ছাপ রেখে যায়। 7 এপ্রিল ফের হিন্দির পক্ষেই কথা বলেন অমিত শাহ। দেশের বিভিন্ন প্রদেশের ভিন্ন ভাষাভাষির মানুষের ইংরেজিতে নয়। হিন্দিতে কথা বলা উচিত বলে পরামর্শ দেন অমিত শাহ। হিন্দিকে রাষ্ট্রীয় ভাষা করার অন্যতম কারণ হিসেবে তিনি বলেছেন, হিন্দির ক্ষমতা আছে দেশকে এক সূত্রে বাঁধার।
সংসদীয় সরকারি ভাষা কমিটির 37 তম বৈঠকে অমিত শাহ বলেছেন,
সাম্প্রতিক তথ্য অনুযায়ী দেশের সরকারি কাজের 70 শতাংশ ক্ষেত্রেই ব্যবহৃত হয় হিন্দি।


প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, সরকার পরিচালনা হবে সরকারি ভাষাতেই। যা অবশ্যই হিন্দির গুরুত্ব বাড়িয়ে দেবে। এখন সময় এসেছে সরকারি ভাষাকে দেশের ঐক্যের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশে পরিণত করার। যখন দেশের বিভিন্ন রাজ্যের মানুষ বিভিন্ন ভাষায় কথা বলেন
তাঁরা একে অপরের সঙ্গে যোগাযোগ করুন হিন্দিতেই। উত্তর-পূর্বের 8টি রাজ্যে 22 হাজার হিন্দি শিক্ষক নিয়োগ করা হয়েছে। এই রাজ্যের 9টি উপজাতি সম্প্রদায়ের মানুষ নিজেদের উপভাষার লিপিগুলিকে দেবনাগরীতে রূপান্তরিত করেছেন। এই সমস্ত রাজ্য দশম শ্রেণি পর্যন্ত হিন্দি বাধ্যতামূলক করতে মত দিয়েছে বলেও তিনি দাবি করেছেন। কোনও আঞ্চলিক ভাষা নয়, ইংরেজির বিকল্প হিন্দি হওয়া উচিত। অন্যান্য আঞ্চলিক ভাষার শব্দ গ্রহণ করে হিন্দিকে আরও নমনীয় না করে তুললে তার প্রসার হবে না। নবম শ্রেণি পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের হিন্দি ভাষার প্রাথমিক জ্ঞান-সহ হিন্দি শিক্ষার পরীক্ষায় আরও মনোযোগ দেওয়া দরকার। ভারতের সংস্কৃতি ও মূল্যবোধ মূলত ভাষার কারণেই সুরক্ষিত রয়েছে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর এই মন্তব্যে বিরোধীরা কটাক্ষ করতে ছাড়েনি। এ বিষয়ে পশ্চিমবঙ্গের প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরী বলেন,
‘স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ইংরেজির বিকল্প হিসেবে হিন্দিকে বেছে নিতে বলেছেন। আমরা এটা মেনে নেব না। এটা সাংস্কৃতিক সন্ত্রাস’। কর্নাটকের প্রাক্তন কংগ্রেস মুখ্যমন্ত্রী সিদ্দারামাইয়া বলেছেন,
‘হিন্দি জাতীয় ভাষা নয়। আমরা সেটা হত দেব না।’
কংগ্রেস নেতা জয়রাম রমেশের প্রশ্ন, ‘সবাইকে হিন্দি বলতে বাধ্য করার চেয়ে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী দক্ষিণ ভারতের একটি ভাষা কেন শিখছেন না’?
রাজনাথ সিং -এর একটি মন্তব্যকে হতিয়ার করে জয়রাম রমেশ বলেন, ‘ রাজনাথ সিং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী থাকাকালীন একথা বলেছিলেন, হিন্দি হল শাসকের ভাষা রাষ্ট্রের ভাষা নয়’।
দেশের প্রত্যেকটি বিরোধী দল একসুরে অমিত শাহের মন্তব্যের কড়া নিন্দা করেছে। ২০১৯ সালে এক জাতি এক ভাষার অপর জোর দিয়েছিলেন তিনি। যদিও শেষে বলেন হিন্দি কারোর সঙ্গে প্রতিযোগিতায় নামছে না। শুধু পরিপূরক হয়ে থাকতে চায়।