Date : 2022-11-29

প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগে দুর্নীতি হয়েছে, বার বার প্রমাণিত। পর্যবেক্ষণ ডিভিশন বেঞ্চের।

ষষ্ঠী চট্টোপাধ্যায়, সাংবাদিক:-প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের সভাপতি মানিক ভট্টাচার্যের আগেই পদ গিয়েছিল।এবার ডিভিশন বেঞ্চে একাধিক প্রশ্নের মুখে পর্ষদ।

প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ এ দুর্নীতি মামলায় বোর্ড এর আইনজীবী কে ধমক ডিভিশন বেঞ্চ এর বিচারপতি সুব্রত তালুকদার এর ।
বিচারপতি : আপনার তথ্য জমা দিতে হলে এখনই দিন ।পড়ে আর্ গ্রহণ করবে না আদালত ।।দুর্নীতি হয়ছে বার বার প্রমাণিত।
প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় সিবিআই তদন্তের নির্দেশ কে চ্যালেঞ্জ করে ডিভিশন বেঞ্চে আবেদন রাজ্যের ।

চাকুরী প্রার্থীরদের আইনজীবী বিকাশ রঞ্জন ভট্টাচার্য: এই নিয়োগ গুলি অ্যাডমিনিস্ট্রেটিভ সিধ্যান্ত ছিল ।যার চাকরি পেলেন তারা বিক্ষোভ দেখাচ্ছিলেন ।মানিক ভট্টাচার্য সই করলেন ।আরো একজন অজ্ঞাত পরিচিত এর সই আছে বিজ্ঞপ্তি তে ।এই পরীক্ষাতেই ছয়টি প্রশ্ন ভুল ছিল ।আদলত আগেই ওই ছয় নম্বর যারা ওই প্রশ্ন র উত্তর দিয়েছিল তাদের দিতে নির্দেশ দিয়েছিল ।সেখানেও বিশেষ কিছু জনকে দেওয়া হয় ।অন্য দের দেওয়া হয়নি ।এখন সিবিআই এর হতে আছে সব তথ্য ।আচার্য ভবন বন্ধ রেখে সব তথ্য সংগ্রহ করেছে সিবিআই ,আদালতের নির্দেশে ।

দ্বিতীয় প্যানেল তৈরি হলো কেউ একজন আর্শি বাগচি সই করে বার করলেন যেটা কম্পিউটার প্রিন্ট ।যেটা নিয়ম বিরুদ্ধ ।৭অক্টোবর ২০১৬ শেষ আবেদন নেওয়া হয়েছে কাগজ তাই বলছে ।কিন্তু এক্সপার্ট কমিটি আদালতে সিঙ্গল বেঞ্চে জানিয়েছে ২০১৭ সাল পর্যন্ত আবেদন নেওয়া হয়েছে ।এই মামলা তেই যারা বেআইনি চাকরি পেয়েছেন তাদের বেতন বন্ধের নির্দেশ দেওয়া আছে সিঙ্গল বেঞ্চের ।বাগ কমিটি এই দুর্নীতির কথা রিপোর্ট তুলে ধরেছে ।

বোর্ড আইনজীবী লক্ষী গুপ্ত: বলা হচ্ছে প্যানেল নিয়ম মেনে প্রকাশ হয়নি এটা যেমন ভুল সেরকম ই বিক্ষোভ কারীদের মধ্যে কয়েকজন কে ডেকে চাকরি দেবার অভিযোগ ভুল ।প্রক্রিয়া করন চলছে তাই তারা চাকরি পেয়েছেন ।ভুল প্রশ্নের উত্তর যারা দিয়েছিলেন তাদের মধ্যে যারা নির্দিষ্ট সময় আবেদন করেছিল তাদের নম্বর দিয়েছে বোর্ড।কিছু লোকের বেতন বন্ধ এর নির্দেশ দিয়েছে আদালত ।বোর্ড সেই নির্দেশ মেনে চলছে।যাদের সিবিআই দফতরে যাবার কথা বলা হয়েছে তারা নির্দিষ্ট সময় হয়ে প্রশ্নের জবাব দিয়ে এসেছে ।কিন্তু এর সুযোগ সিবিআই নিতে পারে।এটা র তদন্ত রাজ্য পুলিশের দাড়াও হতে পারত ।এখনই সিবিআই তদন্তের প্রয়োজন নেই ।

ফের বিচারপতি সুব্রত তালুকদার বোর্ডের আইনজীবীকে প্রশ্ন ২৬৯ কে আপনি ১ নম্বর করে দিলেন। বাকিরা বাদ গেলোকেন? এটাতো পাবলিক সার্ভিস পরীক্ষা। কেনো এটার তদন্ত হবে না?

বিচারপতি তালুকদার আপনি শিক্ষক নন ।আর্ আমরা ছাত্র নয় ।আপনি যা বলবেন আমায় মেনে নিতে হবে ।ক্রিমিনাল অ্যাকটিভিটি হয়ছে এটা প্রমাণিত ।
ট্রেন্ড ক্যান্ডিডেট আর্ নন ট্রেন্ড ক্যান্ডিডেট এর ভিত্তিতেই যদি নিয়োগ হয় তবে অন্য আরো কিছু নিয়ম আছে যা এক একটা নিয়ম কে ভঙ্গ করছে ।নিয়মেই সমস্যা রয়েছে ।
পর্ষদের আইনজীবী লক্ষী গুপ্ত : এটা পুরনো নিয়ম ।নিয়ম এর বদল হয়নি ।বোর্ড নিয়ম পালন করছে শুধু ।

আগামী বৃহস্পতিবার মামলার পরবর্তী শুনানি ।