Date : 2022-11-29

সরকারি স্কুলের শিক্ষকদের প্রাইভেট টিউশনে না শিক্ষা দফতরের

নাজিয়া রহমান, সাংবাদিক :

প্রাইভেট টিউশন বা কোনও কোচিন সেন্টারে পড়াতে পারবেন না সরকারি বা সরকার পোষিত স্কুলের শিক্ষক শিক্ষিকারা। এমনই নির্দেশিকা জারি করল শিক্ষা দফতর। সরকারি নির্দেশিকা অমান্য করলে কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানিয়ে দেওয়া হয়েছে নির্দেশিকায়। প্রাইভেট টিউশন বন্ধ করার পক্ষে ছিল বামফ্রন্ট সরকার। সেই আমলেও নেওয়া হয়েছিল কড়া পদক্ষেপ। তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যের উদ্যোগে স্কুল ও কলেজ শিক্ষক-শিক্ষিকাদের প্রাইভেট টিউশন বন্ধ করা হয়েছিল। কিন্তু কিছুদিন কড়াকড়ি চললেও তারপর থেকে যে কে সেই দশা চলতে থাকে বলে মত শিক্ষাবিদের একাংশের।

সামগ্রিক ভাবে নির্দেশিকা প্রকাশের পাশাপাশি জেলা স্তরের স্কুল ইন্সপেক্টরদের তরফে নির্দেশিকা জারি করা হয়েছে। সেখানে উল্লেখ করা হয়েছে কোনও জুনিয়র হাই স্কুল, হাই স্কুল অথবা কোনও মাদ্রাসার শিক্ষকরা গৃহশিক্ষকতা বা অন্য কোনও ধরনের শিক্ষকতার সঙ্গে যুক্ত থাকতে পারবেন না। ‘রাইট অব চিল্ড্রেন টু ফ্রি এন্ড কম্পালসারি এডুকেশন অ্যাক্ট ২০০৯-এর আওতায় যে এই নির্দেশিকার কথাও উল্লেখ করা হশেছে জেলা স্তরের বিজ্ঞপ্তিতে। যদিও স্কুল শিক্ষা দফতর সূত্রের খবর, সারা ভারতব্যাপী কেন্দ্রীয়ভাবে স্কুল শিক্ষকতা করার জন্য যে নির্দেশিকা রয়েছে, তাতে বলা আছে সরকারি স্কুলগুলিতে কর্মরত শিক্ষকদের কি কি বিধি-নিষেধ মেনে চলতে হবে।

সম্প্রতি রাজ্যের বিভিন্ন জেলা থেকে স্কুল শিক্ষা দফতরের কাছে শিক্ষকদের গৃহশিক্ষকতা করা নিয়ে বেশ কিছু অভিযোগ জমা পড়েছে। সূত্রের খবর, শিক্ষা দফতরের কাছে একটি তালিকা জমা পড়েছে যেখানে প্রায় ৬১ জন শিক্ষক শিক্ষিকার নাম উল্লেখ করা হয়েছে। যারা সরকারি স্কুলের শিক্ষক হওয়ার স্বত্ত্বেও রমরমিয়ে গৃহশিক্ষকতা করছেন। সমস্ত অভিযোগ খতিয়ে দেখছে শিক্ষা দফতর।