Date : 2022-08-10

২১-এর শহিদ স্মরণ সভা থেকে ২৪-এ মোদীকে হঠানোর ডাক

মাম্পি রায়, নিউজ ডেস্ক : ২১ জুলাইয়ের মঞ্চ থেকে কেন্দ্রীয় সরকারকে তীব্র নিশানা করলেন মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। নেত্রীর ভাষণের পুরোটা জুড়েই বিজেপির বিরুদ্ধে বিষোদগার করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এর পাশাপাশি ২৪এ লোকসভা ভোটের সুরও বেঁধে দিলেন নেত্রী।
বিজেপির মেরদন্ড বাঁকা : মুখ্যমন্ত্রী
একুশের শহিদ স্মরণ সভা থেকে সিবিআই, ইডিকে নিশানা করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন, 2024-এ বিজেপি ভেসে যাবে। তৃণমূল কংগ্রেসের মেরুদন্ড সোজা। তাই লড়াই করার ক্ষমতা আছে। অন্যদিকে বিজেপির মেরদন্ড বাঁকা। তাই ওদের শুধুমাত্র ইডি-সিবিআইয়ের উপরেই ভরসা করতে হয়।
দিল্লি ঘেরাওয়ের হুঁশিয়ারি মুখ্যমন্ত্রীর
একশো দিনের কাজ, বাংলার বাড়ি নিয়ে কেন্দ্রের বঞ্চনার বিরুদ্ধে ফের সরব হলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। গুজরাট সহ একাধিক বিজেপি শাসিত রাজ্যে তাদের নামে প্রকল্প থাকতে পারলে বাংলার নামে কেন থাকবে না? প্রশ্ন তোলেন তিনি। প্রাপ্য টাকা না পেলে দিল্লি ঘেরাওয়ের হুঁশিয়ারিও দেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।
মুখ্যমন্ত্রীর জিএসটি তোপ
একে মূল্যবৃদ্ধি তার উপর জিএসটির হারে পরিবর্তন। দুইয়ের ধাক্কায় নাজেহাল সাধারণ মানুষ। চাল, ডাল, আটা এমনকি মুড়িতেও জিএসটি বসিয়েছে কেন্দ্র। এই নিয়ে ধর্মতলার মঞ্চ থেকে মোদী সরকারকে নিশানা করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সমর্থকদের থেকে মুড়ির বস্তা চেয়ে পাঠান মুখ্যমন্ত্রী। তারপর তিনি বলেন, মিষ্টি, দই, চিড়েতেও জিএসটি নিচ্ছে মোদী সরকার। লোকে কী খাবে? আমাদের মুড়ি ফিরিয়ে দাও, নাহলে বিজেপি বিদায় নাও। পাশাপাশি হাসপাতালে রোগী ভর্তি হলেও বেড ভাড়ায় জিএসটি বসানো নিয়ে সরব হয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন, এবার কি মৃতদেহের জন্য কেনা খাটেও জিএসটি নেবে কেন্দ্র?
মোদী সরকারই জনদরদি সরকার : সুকান্ত
মুখ্যমন্ত্রীর করা আক্রমণের জবাব দিয়েছে বঙ্গ বিজাপি। রাজ্য বিজেপি সভাপতি সুকান্ত মজুমদার বলেন, নরেন্দ্র মোদী সরকার জনদরদী সরকার। গরিবের কথা ভাবেন বলেই করোনা আবহে অর্থনীতিবিদদের মানা করা সত্বেও, দু-বার পেট্রল ও ডিজেলের দাম কমিয়েছেন। তৃণমূল সুপ্রিমোর ভাষণের জবাবে সুকান্ত মজুমদার আরও বলেন, মুখ্যমন্ত্রীর আত্মীয়ের সম্পত্তির সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর আত্মীয়ের সম্পত্তির পরিমাণ মিলিয়ে দেখলেই পুরো বিষয়টা স্পষ্ট হয়ে যাবে।
মুখ্যমন্ত্রীর চাকরি দুর্নীতি তোপ
ধর্মতলায় শহিদ সমাবেশের মঞ্চে সিপিএমের চাকরি নামে দুর্নীতি নিয়ে সরব হলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন, সেসময়ে শিক্ষক পদে চাকরির জন্য 10 থেকে 15লক্ষ টাকা ঘুষ দিতে হত। তারপর আইনজীবী তথা সিপিএম নেতা বিকাশরঞ্জন ভট্টাচার্যকেও নিশানা করে নেত্রী বলেন, বিকাশবাবুর সময়ে বার্থ সার্টিফিকেট দেওয়ার নামেও দুর্নীতি হয়েছে। ওই ফাইলটা বের করবো নাকি ? সিপিএমের দিকে প্রশ্ন ছুঁড়ে দিয়েছেন নেত্রী। এই নিয়ে পাল্টা মুখ্যমন্ত্রীকে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিয়ে বিকাশরঞ্জন ভট্টাচার্য বলেন, বার্থ সার্টিফিকেট নিয়ে একটা কমিটি গঠন করে সেই কমিটির চেয়ারপার্সন করা হোক মুখ্যমন্ত্রীকে। সেই কমিটি জেন ১৫দিনের মধ্যে রিপোর্ট প্রকাশ করে।
মোদী সরকারকে হঠানোর ডাক
2024 সালের লোকসভা নির্বাচনে বিজেপিকে বিতাড়িত করতে হবে। ভোট ফর বিজেপি রিজেকশন। একুশের মঞ্চ থেকে বার্তা দিলেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। শুধু বাংলাতেই বিজেপিকে ধরাশায়ী করা নয়, অসম, ত্রিপুরা, মেঘালয়তেও দলকে ভালো ফল করতে হবে বলে কর্মীদের উদ্দেশে বার্তা দিয়ে তিনি বলেন, যাতে কোনওভাবেই বিজেপি একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা না পায়, তা নিশ্চিত করতে হবে।
দলীয় কর্মীদের বার্তা অভিষেকের
ধর্মতলায় শহিদ সমাবেশের মঞ্চ থেকে দলীয় কর্মীদের প়ঞ্চায়েত ভোটের প্রস্তুতির বার্তা দিলেন, তৃণমূল-কংগ্রেসের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন, মানুষের পাশে দাঁড়াতে হবে। কর্মীদের অসুবিধায় সশরীরে কর্মীদের পাশে দাঁড়ানোর আশ্বাসও দেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন, কে বড়, কে ছোট সেই বিতর্কে যাবেন না। সাংসদ, বিধায়করা একদিন প্রাক্তন হয়ে যাবেন। কিন্তু কর্মীরা সবসময় কর্মী থাকবেন।
ধনখড়-আলভাকে সমর্থন নয়
একুশের সমাবেশের পর, কালীঘাটে বৈঠকে চলে যান তৃণমূল সাংসদরা। বৈঠকের মাঝে সাংবাদিক বৈঠক করে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় জানান, উপরাষ্ট্রপতি নির্বাচনে এনডিএ-র প্রার্থী জগদীপ ধনখড়কে সমর্থনের প্রশ্নই ওঠে না। বিরোধীদের প্রার্থী মার্গারেট আলভাকেও সমর্থন করা হবে না। ভোটদানে বিরত থাকবে তৃণমূল। তৃণমূল কংগ্রেসের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, উপরাষ্ট্রপতি নির্বাচনে তৃণমূলের সঙ্গে আলোচনা না করেই সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিরোধী শিবির। প্রার্থী ঠিক করার পর জানানো হয়েছে তৃণমূল কংগ্রেসকে। তবে এতে বিরোধী শিবিরে ফাটল ধরল এমনটা ভাবার কোনও প্রয়োজন নেই। উপরাষ্ট্রপতি নির্বাচন বাদ দিয়ে আগামীদিনে অন্যান্য বিরোধী দলগুলির সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে লড়াই করবে তৃণমূল কংগ্রেস। জানান তৃণমূল কংগ্রেসের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়।