Date : 2022-12-02

মুখ্যমন্ত্রীর নিরাপত্তায় বিচ্যুতি। সরলেন বিবেক সহায়, আসলেন পীযুষ পান্ডে !

সঞ্জু সুর, সাংবাদিক : মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নিরাপত্তায় বড়সড় বিচ্যুতি ধরা পড়েছিলো রবিবার সকালে। তার জেরে এবার সরিয়ে দেওয়া হলো মুখ্যমন্ত্রীর নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা ডিরেক্টর সিকিউরিটি বিবেক সহায়-কে। তাঁর জায়গায় নতুন নিরাপত্তা আধিকারিক হলেন পিযুষ পান্ডে। মনোজ ভার্মা কে করা হলো অতিরিক্ত নিরাপত্তা আধিকারিক।

মুখ্যমন্ত্রীর নিরাপত্তায় ত্রুটির জেরে ইতিমধ্যেই বেশকিছু পদক্ষেপ করেছে রাজ্য প্রশাসন। নবান্নে কড়াকড়ি করা থেকে শুরু করে মুখ্যমন্ত্রীর কালিঘাটের বাড়ির নিরাপত্তা জোরদার করার উপরেও জোর দেওয়া হয়েছে। ওয়াচ টাওয়ার বসানো সহ বেশি কিছু নতুন সিদ্ধান্ত‌ও নেওয়া হচ্ছে। ইতিমধ্যেই সরিয়ে দেওয়া হয়েছে একজন ইন্সপেক্টর পদমর্যাদার অফিসার সহ বেশকিছু পুলিশ কর্মিকে। কিন্তু শুধু নিচু তলার পুলিশ কর্মি বদলেই বিষয়টি থেমে থাকেনি। বুধবার রাজ্য পুলিশে বেশকিছু রদবদল করা হয়েছে। তালিকা অনুযায়ী দেখা যাচ্ছে মুখ্যমন্ত্রীর নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা ডিরেক্টর অব সিকিউরিটি পদ থেকে বিবেক সহায় কে সরিয়ে সেই জায়গায় নিয়ে আসা হয়েছে ১৯৯৩ ব্যাচের আইপিএস অফিসার পীযুষ পান্ডে কে। অবশ্য পীযুষ পান্ডের সঙ্গে অ্যাডিশনাল ডিরেক্টর অব সিকিউরিটি হিসাবে জুড়ে দেওয়া হয়েছে ১৯৯৮ ব্যাচের আইপিএস, বর্তমানে ব্যারাকপুর পুলিশ কমিশনারেটের সিপি পদে থাকা মনোজ ভার্মা কে। ২০১১ সালে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে তৃণমূল কংগ্রেস ক্ষমতায় আসার পর বেশকিছুদিন সরকারের সঙ্গে তাঁর কিছুটা দূরত্ব ছিল। কিন্তু কর্মদক্ষ এই অফিসার পরবর্তীকালে সরকারের বিশেষ করে মুখ্যমন্ত্রীর আস্থাভাজন হয়ে ওঠেন। অধুনা তৃণমূল কংগ্রেসে ফেরৎ আসা অর্জুন সিং যখন বিজেপি তে ছিলেন সেই সময় তাঁকে সামলানোর (!) ভার পড়েছিলো এই অফিসারের উপরেই। তাই তাঁকে ব্যারাকপুরে সিপি করে পাঠানো হয়। সেই সময় অর্জুন সিং অনেকবারই প্রকাশ্যে অভিযোগ করেছিলেন মনোজ ভার্মার বিরুদ্ধে। এখন অবশ্য অর্জুন সিং নিজেই তৃণমূল কংগ্রেসে। বিবেক সহায় কে পাঠানো হয়েছে ডিজি প্রভিশনিং পদে। ব্যারাকপুর পুলিশ কমিশনারেটের সিপি করা হয়েছে আইপিএস অজয় কুমার ঠাকুর কে।